চুয়াডাঙ্গা বুধবার , ১০ নভেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের বৈঠক, প্রকাশিত প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে সিভিল সার্জনের প্রতিবাদ ও প্রতিবেদকের বক্তব্য

সিভিল সার্জনের অপসারণসহ পাঁচ দফা দাবি আদায়ে উপ-কমিটি গঠন
সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
নভেম্বর ১০, ২০২১ ১১:৪৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

দুর্নীতি, স্বেচ্ছাচারিসহ নান অনিয়মের অভিযোগে অভিযুক্ত চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন ডা. এ এস এম মারুফ হাসানের অবিলম্বে প্রত্যাহারসহ পাঁচ দফা দাবি নিয়ে আন্দোলনে নেমেছে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাব। এরই অংশ হিসেবে গত পরশু মানবন্ধন ও স্মারকলিপি পেশ কর্মসূচি পালন করা হয়। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাব মিলানায়তনে নেতৃবৃন্দ পরবর্তী করণীয় নির্ধারণে আলোচনা সভায় মিলিত হয়ে আন্দোলন উপ-কমিটি গঠনসহ বেশ কিছু কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন।

গতপরশু ও গতকাল দেশের অধিকাংশ ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট গণমাধ্যমে গুরুত্বের সাথে প্রতিবেদন প্রকাশ করায় চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাব সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছে। অপর দিকে, স্থানীয় তিনটি পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন ডা. এ এস এম মারুফ হাসান প্রতিবাদ জানিয়ে উত্থাপিত অভিযোগ সঠিক নয় বলে দাবি করেছেন। এদিকে, প্রতিবাদলিপি হাতে পেয়ে প্রতিবেদকও অভিমত পোষণ করে বলেছেন, চুয়াডাঙ্গার চিহ্নিত কিছু বেসরকারি ক্লিনিক হাসপাতালসহ বেশ কিছু ডায়াগনস্টিক সেন্টার সিভিল সার্জনের অনৈতিক সমর্থন ছাড়া চোখের সামনে চলছে কীভাবে, তা যেমন তদন্ত করলে প্রমাণ মিলবে, তেমনই অন্যান্য অনিয়মের বিষয়েও তদন্তের দাবি অযৌক্তিক নয়। স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ তো জেলা স্বাস্থ্য বিষয়ক কমিটির বৈঠক দীর্ঘদিন আহ্বান না করার কারণে স্বয়ং সভাপতিই বৈঠকে প্রকাশ করেছিলেন।

চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ক্লাব মিলনায়তনে আলোচনা সভায় মিলিত হন। সরদার আল আমিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় ঢাকা থেকে প্রকাশিত প্রিন্ট ও বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক মাধ্যমে এবং স্থানীয় পত্রিকাগুলোতে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাব’র কর্মসূচি পালনের প্রতিবেদন নিয়ে আলোচনা করা হয়। অভিযুক্ত সিভিল সার্জনের অবিলম্বে অপসারণ, তার বিরুদ্ধে উত্থাপিত দুর্নীতি অনিয়ম স্বেচ্ছাচারিতার তদন্তসহ পেশকৃত ৫ দফা দাবি আদায়ে করণীয় নিয়ে বিষদে আলোচনা করে বেশ কিছু কর্মসূচি হাতে নিয়ে একটি আন্দোলন উপ-কমিটি গঠন করা হয়।

প্রবীণ সাংবাদিক আজাদ মালিতাকে আহ্বায়ক করে গঠিত কমিটিতে সদস্য করা হয়েছে শেখ সেলিম ও বিপুল আশরাফকে। পেশকৃত দাবি অবিলম্বে পূরণ না হলে জেলার সর্বস্তরের সাংবাদিক, সকল পেশাজীবী, সামাাজিক সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠনসমূহের নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে আন্দোলন বেগবান করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বলা হয়- চুয়াডাঙ্গা স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান ব্যক্তির স্বেচ্ছাচারিতা ও অনিয়ম দুর্নীতির কারণে জেলার সাধারণ মানুষ সুচিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হোক, তা আমরা কেউ চাই না। সবকিছু নীরবে মেনে নেওয়া যায় না।

চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রাজীব হাসান কচির উপস্থাপিত সভায় বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতির সভাপতি প্রবীণ সাংবাদিক আজাদ মালিতা, সাধারণ সম্পাদক বিপুল আশরাফ, প্রেসক্লাব সহসভাপতি কামাল উদ্দীন জোয়ার্দ্দার, সহসাধারণ সম্পাদক ইসলাম রকিব, অর্থ সম্পাদক আতিয়ার রহমান, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আহাদ আলী মোল্লা, ক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদক খাইরুজ্জামান সেতু, দপ্তর সম্পাদক আবুল হাসেম, কার্যকরি সদস্য শাহ আলম সনি, রফিক রহমান, নাজমুল হক স্বপন, সাংবাদিক সমিতির সহসভাপতি শেখ সেলিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

অপর দিকে, গতপরশু সোমবার ৮ নভেম্বর চুয়াডাঙ্গা থেকে প্রকাশিত তিনটি দৈনিক পত্রিকায় চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের পেশকৃত স্মারকলিপি ও মানবন্ধন কর্মসূচি পালনকালে উত্থাপিত অভিযোগ ও বক্তব্যের বরাত দিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এ প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন ডা. এএসএম মারুফ হাসান প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

প্রতিবাদলিপিতে তিনি বলেছেন, নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে বেসরকারি ক্লিনিক হাসপাতাল ও ল্যাব স্থাপন করার সুযোগ দিয়ে ব্যাপক অনিয়ম ও ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ, চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জনের প্রত্যাহারসহ ৫ দফা দাবিতে মানবন্ধন শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। প্রকাশিত সংবাদে যে সমস্ত বিষয়ে অভিযোগ উত্থাপন করা হয়েছে, তা মোটেও সত্য নয়। সম্পূর্ণ বানোয়াট ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। চুয়াডাঙ্গা জেলায় সিভিল সার্জন হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর অদ্যাবধি সরকারি নিয়ম নীতি যথাযথভাবে অনুসরণ করেই জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের সকল কার্যক্রম পরিচালানা করা হচ্চে। হাসপাতালে বর্হি বিভাগ, জরুরুী বিভাগ এবং আন্তঃ বিভাগে চিকিৎসা সেবা গ্রহীতার সংখ্যা ক্রমন্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এমনকি পাশর্^বর্তী জেলা থেকেও রোগীগণ চিকিৎসা সেবা নিতে এখানে আসে। বিগত বছর হতে এ পর্যন্ত করোনা প্যান্ডামিক মোকবেলা, ব্যবস্থাপনা, ১৫০ শয্যা ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতাল, আইসিইউ সেবা কেন্দ্র স্থাপন করে কোভিড-১৯ মোকাবেলায় চুয়াডাঙ্গা সফলতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। যা চুয়াডাঙ্গাবাসীসহ সর্বজনবিদিত।

প্রতিবাদলিপিতে তিনি আরও বলেছেন, দায়িত্বপালনের সময় এসকল চিত্র চুয়াডাঙ্গা জেলায় স্বাস্থ্য সেবার মান্নোয়ন হয়েছে বলেই অনুমিত হয়। বেসরকারি ক্লিনিক হাসপাতার ও ল্যাবসমূহে সরকারি নিয়ম-নীতি অনুসরণ করেই পরিচারনার অনুমোদনের জন্য সুপারিশ করা হয়ে থাকে। নিয়ম-নীতির ব্যত্যয় ঘটলে সে সমস্ত ক্লিনিক ও ল্যাব বন্ধসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হয়। আমার দায়িত্বকালীন সময়ে কোনো দুর্নীতি আর্থিক অনিয়ম, স্বজনপ্রীতি কিংবা স্বেচ্ছাচারিতা আমার জানা মতে হয়নি।’

সিভিল সার্জন স্বাক্ষরিত প্রতিবাদলিপির বক্তব্য নিয়ে সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদক বলেছেন, চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের পেশকৃত স্মারকলিপির গুরুত্ব দিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় স্বচ্ছ্বতার সাথে তদন্ত করলেই অনেক কিছুর প্রমাণ মিলবে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।