চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুরে আরও ১২ জনের প্রাণহানি

27

সারা দেশে করোনায় আরও ১৮৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১২ হাজার ১৪৮
নিজস্ব প্রতিবেদক:
সারা দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৮৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে আরও করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও ১২ হাজার ১৪৮ জনের শরীরে। এদিকে, গতকাল চুয়াডাঙ্গায় করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে আরও আটজনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৪৪ জনের শরীরে। গতকাল মেহেরপুরে করোনা আক্রান্ত হয়ে আরও চারজনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২৭ জন।
চুয়াডাঙ্গা:
চুয়াডাঙ্গায় করোনা আক্রান্ত হয়ে পাঁচজন ও উপসর্গ নিয়ে আরও তিনজনসহ মোট ৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও ৪৪ জনের শরীরে। গতকাল জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ চুয়াডাঙ্গার ৫৪টি নমুনার ফলাফল প্রকাশ করে। এর মধ্যে ৪৪টি নমুনার ফলাফল পজিটিভ ও ১০টি নমুনার ফলাফল নেগেটিভ এসেছে। জেলায় নতুন আক্রান্ত ৪৪ জনের মধ্যে সদর উপজেলার ২৯ জন, আলমডাঙ্গা উপজেলার ৮ জন ও দামুড়হুদা উপজেলার ৭ জন রয়েছে। নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ৮১.৪৮ শতাংশ। এনিয়ে জেলায় মোট করোনা আক্রান্ত হয়েছে ৫ হাজার ২০৯ জন। আক্রান্তদের মধ্যে সদর উপজেলার ২ হাজার ২৪১ জন, আলমডাঙ্গার ৮৯১ জন, দামুড়হুদায় ১ হাজার ৮৪ জন ও জীবননগরে ৯৯৮ জন। গতকাল জেলায় নতুন ৩৪ জন সুস্থ হয়েছে। এনিয়ে জেলায় মোট সুস্থ হয়েছে ২ হাজার ৯৪৪ জন।
গতকাল জেলায় করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে আরও আটজনের মৃত্যুর বিষয়ে নিশ্চিত করেছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যমতে এনিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ১৫৩ জনের। এর মধ্যে ১৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে জেলায় ও করোনা আক্রান্ত হয়ে আরও ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে জেলার বাইরে। এদিকে, এখন পর্যন্ত জেলায় চিকিৎসা সেবা কাজে নিয়োজিত ৮৪ জন স্বাস্থ্যকর্মী করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ৭১ জন সুস্থ হয়ে তাঁদের কর্মস্থলে পুনঃরায় যোগদান করেছেন। অন্য ১৩ জন প্রাতিষ্ঠানিক ও হোম আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
গতকাল সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন অবস্থায়, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বিজলী বেগম (৪০), একই উপজেলার বিলাত মণ্ডলের মেয়ে মোনয়ারা খাতুন (৬০), সদর উপজেরার আলুকদিয়া ইউনিয়নের মঙ্গল মণ্ডলের মেয়ে বেলী খাতুন (৪৫) ও দামুড়হুদা উপজেলার কুটালি গ্রামের মৃত আজের উদ্দীনের মেয়ে পরিছন খাতুন (৫০) এবং হোম আইসোলেশনে একজনসহ মোট পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে।
করোনা উপসর্গ নিয়ে সদর হাসপাতালের ইয়োলো জোনে মৃত্যু হওয়া তিনজন হলেন- সদর উপজেলার মৃত জয়নালের ছেলে শাহার আলী (৫০), রিপনের মেয়ে ববিতা, ও ওসমানপুর গ্রামর এসকান আলীর ছেলে সেকেন মণ্ডল (৭৫)।
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. এ এস এম ফাতেহ্ আকরাম জানান, গতকাল জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে সদর হাসপাতাল আইসোলেশনে চারজন ও হোম আইসোলেশনে একজনসহ মোট পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও ইয়োলো জোনে উপসর্গ নিয়ে আরও তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর পর করোনা প্রটোকলে নিহতের লাশ পরিবারের সদস্যদের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। করোনায় মৃত্যু হওয়া নতুন পাঁচজনসহ জেলায় আক্রান্ত হয়ে হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে মৃত্যু হয়েছে মোট ১৩৭ জনের ও জেলার বাইরে মৃত্যু হয়েছে আরও ১৬ জনের।
জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ করোনা পরীক্ষার জন্য গত মঙ্গলবার ৩৭৩টি, বুধবার ৪৭৮টি ও বৃহস্পতিবার ৪৩৮ নমুনা সংগ্রহ করে করোনা পরীক্ষার জন্য কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে প্রেরণ করে। গতকাল উক্ত নমুনা ও পূর্বের পেন্ডিং নমুনার মধ্যে ৫৪টি নমুনার ফলাফল প্রকাশ করে জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ। গতকাল জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ আরও ৫৪টি নমুনা সংগ্রহ করে করোনা পরীক্ষার জন্য প্রেরণ করেছে।
চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন অফিসের সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী জেলা থেকে এ পর্যন্ত মোট নমুনা সংগ্রহ ১৯ হাজার ৩৫টি, প্রাপ্ত ফলাফল ১৮ হাজার ৭০৭টি, পজিটিভ ৫ হাজার ২০৯ জন। জেলায় বর্তমানে ২ হাজার ১১২ জন হোম আইসোলেশন ও হাসপাতাল আইসোলেশনে রয়েছে। এর মধ্যে হোম আইসোলেশনে আছে ১ হাজার ৯৭৩ জন ও হাসপাতাল আইসোলেশনে ১৩৯ জন। জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ১৫৩ জনের। এর মধ্যে জেলায় আক্রান্ত হয়ে জেলার হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে মৃত্যু হয়েছে ১৩৭ জনের। এছাড়া চুয়াডাঙ্গায় আক্রান্ত অন্য ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে জেলার বাইরে।
মেহেরপুর:
মেহেরপুরে করোনা আক্রান্ত হয়ে আরও চারজনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল রাত নয়টায় মেহেরপুর সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে এ তথ্য জানা যায়। গত ২৪ ঘণ্টায় জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জিন এক্সপার্ট ল্যাবে পরীক্ষিত ১০২টি নমুনার ফলাফল প্রকাশ করে এর মধ্যে ২৭টি নমুনায় করোনা শনাক্ত হয়েছে। নতুন আক্রান্ত ২৭ জনের মধ্যে সদর উপজেলার ১৯ জন, গাংনী উপজেলার ৪ জন ও মুজিবনগর উপজেলার ৪ জন রয়েছে। নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ২৬.৪৭ শতাংশ।
মেহেরপুর সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা যায়, বর্তমানে মেহেরপুর জেলায় মোট পজিটিভ রোগীর সংখ্যা ৭৮৯ জন। এর মধ্যে সদরে ২৩৭ জন, গাংনীতে ৪৪৩ ও মুজিবনগরে ১০৯ জন। এ পর্যন্ত মেহেরপুরে মারা গেছেন মোট ৯২ জন। এর মধ্যে সদর উপজেলার ৪০ জন, গাংনী ৩২ জন ও মুজিবনগরে ২০ জন। গতকাল নতুন ৭৭জনসহ জেলায় এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছে ২ হাজার ২২ জন। এর মধ্যে সদর উপজেলার ১ হাজার ১১৫ জন, গাংনী উপজেলার ৬৪৭ জন ও মুজিবনগর উপজেলার ২৬০ জন।
সারা দেশ:
সারা দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৮৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এনিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১৭ হাজার ৪৬৫ জনে। এর আগে, ১১ জুলাই দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ২৩০ জনের মৃত্যু হয়েছিল। গতকাল শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১২ হাজার ১৪৮ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে । এনিয়ে দেশে শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১০ লাখ ৮৩ হাজার ৯২২ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় ৪৫ হাজার ৪৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হলেও ৪১ হাজার ৯৪৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যেখানে শনাক্তের হার ২৮ দশমিক ৯৬ শতাংশ। এ পর্যন্ত শনাক্তের মোট হার ১৫ দশমিক ০৮ শতাংশ। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, একদিনে নতুন করে সুস্থ হয়েছেন ৮ হাজার ৫৩৬ জন। এনিয়ে সুস্থ হয়ে ওঠা রোগীর সংখ্যা ৯ লাখ ১৪ হাজার ৩৪৩ জন।
বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে দেখা যায়, মারা যাওয়া ১৮৭ জনের মধ্যে ১০০ বছরের বেশি বয়সী একজন। ৯১ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে চারজন, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে ১২ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ৩০ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ৫৪ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৩৬ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৩০ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ১১ জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে সাতজন, ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে দুইজন রয়েছে।
২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের মধ্যে পুরুষ ১১৩ জন ও মহিলা ৭৪ জন। যাদের মধ্যে বাসায় ১২ জন ছাড়া বাকিরা হাসপাতালে মারা গেছেন। একই সময়ে বিভাগওয়ারী পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ঢাকা বিভাগে সর্বোচ্চ ৬৮ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ৩৬ জন, রাজশাহী বিভাগে ১৪ জন, খুলনা বিভাগে ৩৯ জন, বরিশাল বিভাগে আটজন, সিলেট বিভাগে ৯ জন, রংপুর বিভাগে ছয় জন ও ময়মনসিংহ বিভাগে সাতজন মারা গেছেন। গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম ৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০দিন পর ১৮ মার্চ দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।