চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহে চালক জমিরের যাবজ্জীবন কারাদন্ডের প্রতিবাদে পরিবহন ধর্মঘট অব্যহত চরম ভোগান্তিতে যাত্রীরা : কাল শ্রমিক নেতাদের বৈঠক : সারাদেশে কঠোর আন্দোলনের ডাক

353

chuadanga20170223111121 চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহে চালক জমিরের যাবজ্জীবন কারাদন্ডের প্রতিবাদে পরিবহন ধর্মঘট অব্যহত
চরম ভোগান্তিতে যাত্রীরা : কাল শ্রমিক নেতাদের বৈঠক : সারাদেশে কঠোর আন্দোলনের ডাক
নিজস্ব প্রতিবেদক: চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহে বাস মিনিবাস ও সড়ক পরিবহন ইউনিয়নের শ্রমিকরা সড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছে। চুয়াডাঙ্গা ডিলাক্স পরিবহনের চালক জামির হোসেনকে মানিকগঞ্জের একটি আদালত যাবজ্জীবন কারাদন্ডাদেশ প্রদান করার প্রতিবাদে চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহের শ্রমিকরা এই কর্মসুচি পালন করে।
আমাদের শহর প্রতিনিধি, জমিরের নি:শর্ত মুক্তির দাবীতে সারাদেশে কঠোর আন্দোলনের ডাক দেবে শ্রমিকরা। বুধবার দুপুরে আদালত কর্তৃক রায় ঘোষনার পর  চুয়াডাঙ্গা জেলা বাস-ট্রাক সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়ন অনিদিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দেয়। যা গতকাল দ্বিতীয় দিন বৃহস্পতিবার শ্রমিকরা ধর্মঘট পালন করে। আজ শুক্রবার ও আগামীকাল শনিবারও ধর্মঘট  অব্যহত  থাকবে বলে শ্রতিক নেতারা জানিয়েরেছ। ধর্মঘটের সমর্থনে বেলা সাড়ে ১১টায় শ্রমিকরা শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে। পরে স্থানীয় শহীদ হাসান চত্বরে চুয়াডাঙ্গা জেলা বাস-ট্রাক সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি এম জেনারেল ইসলামের সভাপ্রতিত্বে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য দেন উক্ত সংগঠনের সভাপতি এম জেনারেল, ডিলাক্স পরিবহনের মালিক খোকন, সাধারন সম্পাদক রিপন মন্ডল, সহ-সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, সহ-সভাপতি আইনাল হক,  ট্রাক ও ট্রাংকলরী  মালিক সমিতির সহ-সাধারণ সম্পাদক ইসলাম হোসেন প্রমুখ। এদিকে বাসসহ সকল প্রকার যানবাহন  চলাচল বন্ধ হওয়ায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারন ও খেটে খাওয়া মানুষ। যানবাহণ চলাচল বন্ধ থাকায় জেলা শহর থেকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে প্রচুর পরিমানে কাঁচামাল রপ্তানি বন্ধ হয়ে গেছে, এতে কতরে ব্যবসায়ী এবং কৃষকরা চরমভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে।Sromik-Oborodh-Picture
আমাদের ঝিনাইদহ প্রতিনিধি জানিয়েছেন, এ উপলক্ষ্যে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা থেকে ১২পর্যন্ত এক ঘন্টা ব্যাপী জেলা প্রধান টার্মিনাল এলাকায় সড়ক অবরোধ করে তারা বিক্ষোভ প্রদর্শন করে।  এসময় রাস্তার উভয় পাশে আটকা পড়ে কয়েকশত যানবাহন। ফলে দর্ভোগে পড়ে যাত্রীরা। অবরোধ চলাকালে বক্তব্য রাখেন, সড়ক পরিবহনের সভাপতি দাউদ হোসেন, জেলা বাস-মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ওলিয়ার রহমান, সাধারণ সম্পাদক আবু সাইদ, একরামুল হক লিকু, ও সাঈদ। বক্তারা অবিলম্বে দন্ডপ্রাপ্ত চালক জামির হোসেনের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করে। এ কর্মসূচীতে দু’শতাধিক শ্রমিক অংশ গ্রহন করেন।
উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ১৩ আগষ্ট মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার জোকা এলাকায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে চুয়াডাঙ্গা ডিলাক্স পরিবহনের  সাথে মাইক্রোবাসের  সংঘর্ষ হয়। এতে মাইক্রোবাস আরোহী তারেক মাসুদ,  মিশুক মুনীরসহ ৫ জন ঘটনাস্থলেই নিহত হন।