চুয়াডাঙ্গায় ভুমিষ্ঠ সন্তান বিক্রি : বাবাসহ মধ্যস্থতাকারী হুমায়ন ও নান্নুর গাঢাকা : নবজাতক ফেরত নিতে গিয়ে হতাশা নিয়ে ফিরলেন দাদি

502

নিজস্ব প্রতিবেদক: চুয়াডাঙ্গায় সদ্য ভুমিষ্ঠ পুত্রসন্তান বিক্রির ঘটনায় নানা নাটকিয়তার সৃষ্টি হয়েছে। সন্তান ফেরতের আশায় রয়েছেন নবজাতকের দাদি। এই দাবি নিয়ে পাঁচকমলাপুর গ্রামে দুই’দুবার গিয়েও অবশেষে খালি হাতে বাড়ি ফিরেছেন দাদি ছবেদা খাতুন। ছেলের সন্তানকে ফিরে পেতে আইনের আশ্রয় নেবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি। এদিকে, ঘটনার পর থেকেই গাঢাকা দিয়েছেন নবজাতকের বাবা আশরাফুল ইসলাম ওরফে আশিকুর, সন্তান বিক্রির মধ্যস্থতাকারী সদর হাসপাতাল রোডের ওষুধ ব্যবসায়ী হুমায়ন ও হাতিকাটা গ্রামের নান্নু। সদ্য ভুমিষ্ঠ সন্তানের পিতা আশরাফুলের খোঁজ পাচ্ছে না তার পরিবারের লোকজন। সদর হাসপাতাল রোডের আল্লার দান ফার্মেসির মালিক হুমায়ন তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তিন দিন বন্ধ রেখে গাঢাকা দিয়েছেন। চট্টগ্রামে অবস্থান করছে বলে জানা গেছে হাতিকাটার নান্নু।
বিক্রি হওয়া সদ্য ভুমিষ্ঠ নবজাতকের দাদি জানান, নাতিছেলে ফেরত নিতে গতকাল বুধবার সকালে আলমডাঙ্গার পাঁচকমলাপুরে যান আশরাফুলের মা ছবেদা খাতুন। সেসময় তার কোলেও দেয়া হয় নবজাতককে। এসময় ছবেদা খাতুন নাতিছেলে ফেরত নেয়ার কথা জানালে বেঁকে বসে সন্তান দত্তক নেয়া ফরিদা খাতুনের পরিবারের লোকজন। ছবেদা খাতুনকে বিকেলে লোকজন সাথে নিয়ে আসার জন্য বলে তারা। তাদের কথা মত সেখান থেকে ফিরে আসেন ছবেদা খাতুন। বিকেলে তিনি কয়েকজন আত্মীয়ের সাথে আবারও যান পাঁচ কমলাপুর গ্রামে। এসময় ফরিদা খাতুনের পরিবারের লোকজন বাড়ির ভিতরে ঢুকতে তাদের শুধু বাধাই দেননি, সাথে যাওয়া আলমসাধু চালককেও মারধর করে তারা। হতাশা নিয়ে আবারও বাড়ি ফেরেন তিনি।
ছবেদা খাতুন আরও জানান, সন্তান ভুমিষ্ঠ হওয়ার আগেই এফিডেভিট করা হয়েছে। ওই এফিডেভিটের কোন মূল্য নেই। নাতিছেলে ফেরত পেতে প্রয়োজনে জেলা প্রশাসক এবং পুলিশ সুপারের কাছেও যাবেন তিনি।
উল্লেখ্য, গত ৩ জুলাই অর্থাৎ সোমবার চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল সড়কের ইউনাইটেড ক্লিনিকে পুত্রসন্তান প্রসব করে শ্যামলী। সন্তান ভুমিষ্ঠ হওয়ার কিছুক্ষণ পরই নবজাতককে সরিয়ে নিলে সন্তান বিক্রির বিষয়টি জানাজানি হয়। প্রথমে ঘটনাটি ভিন্ন খাতে নেয়ার জন্য নানা কৌশল অবল¤॥^ন করলেও পরে অবশ্য সব স্বীকার করে প্রসূতী নিজেই। শ্যামলী অন্তঃসত্ত্বা থাকাকালীনই এফিডেভিট করে ওই সন্তান বিক্রি করে দেয় তারা। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল সড়কের আল্লাহর দান ফার্মেসির মালিক হুমায়ুনের মাধ্যমে হাতিকাটার নান্নু তার এক আত্মীয়র জন্য কিনেছে বলে জানায় শ্যামলী।