চুয়াডাঙ্গা মঙ্গলবার , ২৪ নভেম্বর ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ফল আর্মি ওয়ার্ম দমনে সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনার উপর প্রশিক্ষণ কর্মশালা চুয়াডাঙ্গায় প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন ৫৫ জন নারী কর্মকর্তা

সমীকরণ প্রতিবেদন
নভেম্বর ২৪, ২০২০ ১০:৩০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

Girl in a jacket

নিজস্ব প্রতিবেদক: ফল আর্মিওয়ার্ম ভুট্টা ফসলের জন্য একটি অত্যন্ত ক্ষতিকারক পোকা। এটি মূলত আমেরিকা মহাদেশের পোকা হলেও ২০১৮ সালের শেষদিকে বাংলাদেশে প্রথম এই পোকার আক্রমণ চিহ্নিত করা হয়। ফল আর্মিওয়ার্ম ভুট্টাচাষিদের আয় এবং জীবিকার জন্য একটি মারাত্মক হুমকিস্বরূপ । এই সমস্যাটি মোকাবেলায় ইউএসএআইডি এবং মিশিগান ষ্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের Higher Education for Agricultural Research and Development (BHEARD) এর সহযোগিতায়, ÔFighting Back against the Fall Armyworm in BangladeshÕ cÖKíwU Cereal Systems Initiative for South Asia (CSISA)  প্রকল্পের সাথে যৌথভাবে কাজ শুরু করে। যার মূল উদ্দেশ্য ছিল কৃষকদের সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমে সহায়তা করা। এই দুটি প্রকল্পই আন্তর্জাতিক ভুট্টা ও গম উন্নয়ন কেন্দ্র (সিমিট) এর মাধ্যমে বাস্তবায়িত হচ্ছে এবং বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউট এবং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের (ডিএই) সহযোগিতায় লক্ষ্য অর্জনে এগিয়ে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায়, চুয়াডাঙ্গা চারদিন ব্যাপী একটি প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে গত রোববার। চুয়াডাঙ্গার তিন তারকা হোটেল শহীদ প্যালেসে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের প্রায় ৫৫ জন মহিলা কর্মকর্তা দুটি ব্যাচে প্রশিক্ষণ কর্মশালাতে অংশ নিবেন। এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচীটি মূলত কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে কর্মরত মহিলা কর্মকর্তাদের জন্য বিশেষ ভাবে ডিজাইন করা হয়েছে যাতে তারা ফল আর্মিওয়ার্ম দমনে এবং কীটনাশক এর বিষক্রিয়া ঝুঁকি হ্রাসকল্পে কৃষকদের বিশেষ করে মহিলা কৃষকদের যে কোন রকম কৃষি পরামর্শ প্রদানের সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারবে। কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে চুয়াডাঙ্গা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আলী হাসানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর যশোর অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালক পার্থ প্রতিম সাহা। প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্থ প্রতিম সাহা বলেন, ভুট্টা বাংলাদেশে দ্বিতীয় বৃহত্তম দানাদার শস্য এবং কৃষকদের জন্য একটি অত্যন্ত লাভজনক ফসল। ভুট্টা চাষে কৃষকেরা অন্য যেকোন ফসল অপেক্ষা বেশি অর্থ আয়ের মাধ্যমে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সক্ষম হয়। গবেষনা লব্ধ জ্ঞান এবং সঠিক বালাই ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে এই ফল আর্মিওয়ার্ম দমন করা সম্ভব। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা এই বিষয়ে কার্যকরী জ্ঞান অর্জন করবেন বলেও তিনি আশা ব্যক্ত করেন। প্রখ্যাত কীটতত্ত্ববিদ, ড. সৈয়দ নুরুল আলম এই প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের প্রধান সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করেন এবং সিমিট বাংলাদেশের বেশ কয়েকজন প্রশিক্ষক এর সহায়তায় দুই দিন ব্যাপী এই প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালিত হবে। ড. সৈয়দ নুরুল আলম ফল আর্মিওয়ার্ম শনাক্তকরণ, ফিল্ড স্কাউটিং কৌশল, ফল আর্মিওয়ার্ম এর জীবন পরিক্রমা, এবং মথের সংখ্যা গন্না করে এই আক্রমণাত্মক পোকার প্রাদুর্ভাব কীভাবে পর্যবেক্ষণ করবেন সেগুলিসহ প্রশিক্ষনের নানা দিক উপস্থাপন করেন। এছাড়াও কিভাবে ফল আর্মিওয়ার্ম এর আক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব সে বিষয়ে আলোকপাত করা হবে। প্রশিক্ষনার্থীরা সেমিনারকক্ষে বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণের পাশাপাশি মাঠে গিয়েও সরাসরি ব্যবহারিক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করবেন। প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারী জীবননগর উপজেলা কৃষি অফিসার শারমিন আক্তার বলেন, ‘‘আমি শুধুমাত্র মহিলা কর্মকর্তাদের জন্য এই বিশেষায়িত প্রশিক্ষণের অংশ হতে পেরে অত্যন্ত আনন্দিত। ফল আর্মিওয়ার্ম সনাক্তকরণ থেকে শুরু করে সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে দমন কৌশল সম্পর্কে একটি বিস্তৃত জ্ঞান অর্জন করতে পারছি যা আমাকে মহিলা কৃষকদের আরো ভালোভাবে কৃষি পরামর্শ প্রদানে সহায়তা করবে।” বাংলাদেশ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর চুয়াডাঙ্গা অঞ্চলের উপপরিচালক মোঃ আলী হাসানের সভাপতির বক্তব্যে আন্তর্জাতিক ভুট্টা এবং গম গবেষণা কেন্দ্রের কারিগরি সহায়তায় ফল আর্মি ওয়ার্ম এর প্রাদূর্ভাব এর মাত্রা পর্যবেক্ষনের জন্য তৈরি করা অ্যাপ এর প্রশংসা করেন। এছাড়া তিনি আরও বলেন, ফল আর্মিওয়ার্ম দমনে এমন বিশেষায়িত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের মহিলা কর্মকর্তাদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে বিশেষ সহায়তা করবে। এছাড়া প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সিমিট বাংলাদেশ এর খুলনা অঞ্চলের হাব কো-অর্ডিনেটর ড. খন্দকার শফিকুল ইসলাম এই অঞ্চলে সিমিট এর চলমান বিভিন্ন কর্মসূচী এবং সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে ফল আর্মিওয়ার্ম দমনে সরকারী এবং বেসরকারি কর্মকর্তাদের জন্য গৃহীত নানা রকম প্রশিক্ষণ কর্মশালা এবং শিক্ষা সরঞ্জাম এর উপর আলোকপাত করেন। এই প্রশিক্ষণ কার্যক্রমটি আজ ২৫ শে নভেম্বর মঙ্গলবার পর্যন্ত চলবে এবং এই প্রশিক্ষণের পরপরই আগামী ২৮ নভেম্বর থেকে দিনাজপুরের নসিপুরে অবস্থিত ব্র্যাক লার্নিং সেন্টারে দ্বিতীয় পর্বের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু হবে, যেখানে দেশের উত্তরাঞ্চলে কর্মর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহিলা কর্মকর্তারা অংশ গ্রহণ করবেন।

Girl in a jacket

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।