চুয়াডাঙ্গায় পৃথকস্থানে বজ্রপাতে দুজন আহত

24

নিজস্ব প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গায় পৃথকস্থানে বজ্রপাতে নারীসহ দুজন গুরুতর আহত হয়েছেন। গতকাল রোববার সন্ধ্যায় ঝড়ের সময় পৃথকস্থানে বজ্রপাতে আহত হন তাঁরা। পরে পরিবারের সদস্যরা গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় আহতদেরকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। আহতরা হলেন- চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার শঙ্করচন্দ্র ইউনিয়নের জাফরপুরর গ্রামের হাজামপাড়ার খাকচার আলীর স্ত্রী হালিমা বেগম (৩৫) ও আলমডাঙ্গা উপজেলার গাংনী ইউনিয়নের ফুলবগাদী গ্রামের গাংপাড়ার মৃত আফতাব উদ্দীনের ছেলে তাহাজইদ্দীন (৫০)।
জানা যায়, গতকাল সন্ধ্যায় বৃষ্টিপাতের সময় নিজ বাড়ির বারান্দায় বসে ছিলেন হালিমা বেগম। এসময় তাঁদের বাড়ির নারকেল গাছে বজ্রপাত পড়লে বারান্দায় বসে থাকা হালিমা বেগম গুরুতর আহত হন। পরে পরিবারের সদস্যরা তাঁকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়। জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মাহাবুবুর রহমান তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে হালিমা বেগমকে হাসপাতালে ভর্তি রাখেন।
এদিকে, গতকাল আলমডাঙ্গার ফুলবগাদীতে নিজ এলাকার বীলের মাঠে পাওয়ারটিলার দিয়ে জমি চাষ করছিলেন তাজইদ্দীন। এসময় হঠাৎ বজ্রসহ বৃষ্টিপাত শুরু হলে তিনি পাওয়ারটিলার নিয়ে নিজ বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হন। বাড়ি ফেরার সময় মাঠের মধ্যে একটি বাজ পড়লে তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। খবর পেয়ে স্থানীয় ব্যক্তিদের সহযোগিতায় পরিবারের সদস্যরা তাঁকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়। জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালের মেল সার্জারি ওয়ার্ডে ভর্তি রাখেন।
সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মাহাবুবুর রহমান বলেন, পৃথকস্থানে বজ্রপাতে আহত তাজউদ্দীন ও হালিমা নামের দুজনকে পরিবারের সদস্যরা জরুরি বিভাগে নিয়ে আসে। আহতদের দুজনকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালের পুরুষ ও মহিলা সার্জারি ওয়ার্ডে ভর্তি রাখা হয়েছে। আহতদের মধ্যে তাজউদ্দীন গুরুতর অসুস্থ হয়েছেন। তাঁর অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিতিৎসার জন্য রেফার্ড করা হতে পারে।