চুয়াডাঙ্গায় এক ব্যক্তিকে হাসুয়া দিয়ে কুপিয়ে জখম

26

নিজস্ব প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গার গাইদঘাটে শিটন হোসেন (৩৫) নামের এক ব্যক্তিকে হাসুয়া দিয়ে কুপিয়ে জখম করার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বুধবার বিকেল পাঁচটার দিকে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার শঙ্করচন্দ্র ইউনিয়নের গাইদঘাটের বেলের মাঠে এ ঘটনা ঘটে। শিটনের চিৎকার শুনে চাচাতো ভাই শাহিন ছুটে এসে রক্তাক্ত জখম অবস্থায় আহত শিটনকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়। এসময় জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক জখম শিটনকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতলের সার্জারি ওয়ার্ডে ভর্তি রাখেন একইসঙ্গে শিটনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেন।
আহত শিটনের চাচাতো ভাই শাহিন বলেন, ‘বিকেলে গাইদঘাট বেলে মাঠে নিজের ঝালের ক্ষেতের আগাছা পরিষ্কার করছিলেন শিটন। আগাছাগুলো ঝাল ক্ষেতের আঁইলের সঙ্গে থাকা ক্ষেতে পানি সরবরাহের ক্যানালে ফেলেন। ওই ক্যানাল দিয়ে নিজ ধানের ক্ষেতে পানি দেয় একই এলাকার মথুরাপাড়ার হোসেন (৩৪)। ক্যানালে আগাছা ফেলা নিয়ে গতকাল শিটন ও সোহানের মধ্যে বাগবিতণ্ডার সৃষ্টি হয়। এর একপর্যায়ে হোসেন তাঁর হাতে থাকা ধারালো হাসুয়া দিয়ে শিটনের ঘারে কোপ মেরে পালিয়ে যায়। আমি একই মাঠে নিজের জমিতে কাজ করছিলাম। শিটনের চিৎকার শুনে রক্তাক্ত জখম অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে আসি।’
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. উৎপল বিশ্বাস বলেন, ‘শিটনের ঘাড়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে গুরুতর জখম হয়েছে। তার ঘাড়ের চামড়াসহ শিরা কেটে গেছে। তাকে জরুরি বিভাগথেকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালের সার্জারি ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। জখম গুরুতর হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য শিটনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ প্রদান করা হয়েছে।’
শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত গুরুতর জখম শিটন সদর হাসপাতালের সার্জারি ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছিলো। এ ঘটনায় শিটনের পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় মামলার পরিকল্পনা চলছিল।