চুয়াডাঙ্গায় ঈদের ছুটি শেষে খুলেছে অফিস আদালত

320

চুয়াডাঙ্গায় ঈদের ছুটি শেষে খুলেছে অফিস আদালত : নেই প্রাণচাঞ্চল্যতা
রবিবার থেকে স্বাভাবিক হবে সকল কার্যক্রম
DSCN8592এস, এম শাফায়েত: ঈদে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের তিন দিনের ছুটি মঙ্গলবার শেষ হয়েছে। ঈদের ছুটি শেষে আবারো শুরু হয়েছে কর্মব্যস্ত জীবন। বুধবার খুলেছে সরকারি অফিস, আদালত ও ব্যাংক-বীমা। প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদ উদযাপন শেষে ফিরে আসছেন নিজ নিজ কর্মস্থলে। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ঈদের সরকারি ছুটি নির্ধারিত ছিল ২৫,২৬ ও ২৭ জুন (রবি, সোম ও মঙ্গলবার)। শনিবার ২৫ জুন দেশে শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা যাওয়ায় সরকারি নির্ধারিত ছুটির ব্যত্যয় ঘটেনি। তবে বুধ ও বৃহস্পতিবার এই দুইদিন অফিস করার পর আবার শুক্র ও শনিবার দু’দিনের সাপ্তাহিক ছুটি রয়েছে। এ কারণে অনেকেই বুধ ও বৃহস্পতিবারের জন্য আগে থেকেই ছুটি নিয়ে রেখেছেন।
বুধবার সকাল ৯টায় চুয়াডাঙ্গা জেলা ও দায়রা জজ আদালত, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়সহ সরকারি সব অফিস, ব্যাংক, বীমা খুলেছে। তবে অতীতে দেখা গেছে, ঈদের ছুটি শেষে অফিস খোলার দিনে সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তাদের উপস্থিতি কম থাকে। ঈদ শেষ হলেও ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় ও কোলাকুলি থাকে এদিনের মূল অনুষঙ্গ। কিন্তু যাদের উপস্থিতি জরুরি, বুধবার অফিস খোলার দিনে তাদেরকে ফিরতেই হয়েছে। তাই সকাল থেকে সরকারি সব অফিস ও ব্যাংক-বীমা খুললেও কর্মজীবি মানুষের উপস্থিতি কম।
আদালত ঘুরে দেখা যায়, জজশীপ ও জুডিশিয়াল আদালতের প্রায় সকল বিচার বিভাগের কর্তারা অফিসে আসেন। তবে কর্মতৎপরতা তুলনায় একে অপরের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করতে বেশি দেখা যায়। এদিকে বিশেষ কিছু মামলা মোকাদ্দমা ছাড়া অনুপস্থিত থাকতে দেখা গেছে অধিকাংশ আইনজীবিদেরকেই।
ঈদের ছুটি শেষে অফিস করছেন জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদ। বুধবার থেকে যথারীতিই তিনি কর্মব্যস্ত সময় পার করছেন।
পবিত্র ঈদুল ফিতর ও অসুস্থতা কাটিয়ে বৃহস্পতিবার অফিস করেছেন চুয়াডাঙ্গা পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু। গতকাল সকাল থেকে তিনি পৌর পরিষদের নিজ কার্যালয়ে ফিরে স্বাভাবিক কার্যক্রমে যোগদেন। এ সময় পৌরসভার কাউন্সিলর, বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় ও কোলাকুলি করেন।
ব্যাংক-বীমা অফিস গুলোতেও লেনদেন শুরু হয়েছে বুধবার থেকেই। তবে সেখানেও ছিল না প্রাণ চাঞ্চল্যতা। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া গত দু’দিনে সাধারণ গ্রাহকদের উপস্থিতি ছিল খুবই কম। সব মিলিয়ে শহরবাসীকে ঈদের আমেজ কাটিয়ে উঠতে আরো বেশ কিছুদিন সময় লাগবে। তবে রবিবার অনেকাংশেই স্বাভাবিক হবে কর্মব্যস্ত জীবন।