চুয়াডাঙ্গায় ইলেকট্রিক জগের ফুটন্ত পানিতে ঝলসে গেল শিশু!

10

নিজস্ব প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গায় ইলেকট্রিক জগের ফুটন্ত পানি গায়ে পড়ে জামেলা আক্তার (২) নামের এক শিশু গুরুতরভাবে ঝলসে গেছে। গত রোববার বেলা তিনটার দিকে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার তিতুদহে এ ঘটনা ঘটে। গতকাল সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে পরিবারের সদস্যরা শিশুটিকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়। জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটিকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালের মহিলা সার্জারি ওয়ার্ডে ভর্তি রাখেন। ঝলসে যাওয়া শিশু জামেলা আক্তার চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার তিতুদহ ইউনিয়নের গোপালনগর গ্রামের বিল্লাল হোসেনের মেয়ে।
জানা যায়, গত রোববার বেলা তিনটার দিকে ইলেকট্রিক জগে ডিম সেদ্ধ করতে দেয় শিশু জামেলার মা। ইলেকট্রিক জগটি টেবিলের ওপরে রেখে তিনি বাইরে কাজ করছিলেন। এসময় শিশু জামেলা ঘড়ে ঢুকে ইলেকট্রিক জগের তার ধরে টান দিলে জগ উলটে ফুটন্ত পানি শিশুটির গায়ে পরে। এতে শিশুটির মুখ থেকে পা পর্যন্ত শরীরের প্রায় ৪০ শতাংশ ঝলসে যায়। শিশুটির চিৎকার শুনে পরিবচারের সদস্যরা ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় চিকিৎসকের কাছে নেয়। পরে অবস্থার অবনতি হওয়ায় গতকাল দুপুরে শিশুটিকে জরুরি বিভাগে নেয়। এসময় জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটিকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালে ভর্তি রাখেন।
শিশু জামেলার মা জানান, ‘গত রোববার বেলা ৩টার দিকে জামেলার জন্য একটি ইলেকট্রিক জগে ডিম সেদ্ধ করতে দিই। জামেলা যেন জগটি ধরতে না পারে সে জন্য জগটি টেবিলেও ওপরে রাখি। পরে আমি সাংসারিক কাজ করতে ঘরের বাইরে বের হলে জামেলা ইলেকট্রিক জগের তার ধরে টান দিলে ফুটন্ত পানি আমার মেয়ের গায়ে পরে যায়। মেয়ের চিৎকারে ঘরে ছুটে এসে এ ঘটনা দেখতে পায়। পরে তাকে দ্রুত স্থানীয় চিকিৎসকের নিকটে নিই। কিন্তু মেয়ের অবস্থা আরও খারাপ হওয়ায় গ্রামের ডাক্তার হাসপাতালে নিতে বলায় আজ (গতকাল সোমবার) হাসপাতালে নিয়ে আসি।
জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, ‘ফুটন্ত গরম পানিতে শিশুটির মুখমণ্ডল থেকে পা পর্যন্ত প্রায় ৬০ শতাংশ ঝলসে গেছে। শিশুটিকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে। শিশুটির অবস্থার অবনতি হলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হতে পারে।’