চুয়াডাঙ্গায় আরও পাঁচজন করোনা আক্রান্ত, সুস্থ তিন

44

নিজস্ব প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গায় নতুন করে আরও পাঁচনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট করোনা আক্রান্ত হয়েছে ১ হাজার ৮৯৫ জন। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ১ হাজার ৫ জন, আলমডাঙ্গায় ৩৬০ জন, দামুড়হুদায় ৩২৬ জন ও জীবননগরে ২০৪ জন। বৃহস্পতিবার (১৩ মে) জেলা সিভিল সার্জন অফিস এ তথ্য নিশ্চিত করে। বৃহস্পতিবার জেলায় করোনাভাইরাস আক্রান্ত থেকে আরও তিনজন সুস্থ হয়েছে। এখন পর্যন্ত জেলায় মোট সুস্থ হয়েছে ১ হাজার ৭৭৩ জন। এর মধ্যে সদর উপজেলার ৯৫৩জন, আলমডাঙ্গার ৩৩৬ জন, দামুড়হুদার ৩০০ জন ও জীবননগরের ১৮৪ জন।
জানা যায়, গত বুধবার জেলা স্বাস্থবিভাগ করোনা পরীক্ষার জন্য কোন নমুনা পরীক্ষার জন্য ২৪টি নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য প্রেরণ করে। আজ বৃহস্পতিবার (১৩ মে) উক্ত ২৪টি নমুনার ফলাফল সিভিল সার্জন অফিসে পৌঁছায়। এর মধ্যে পাঁচজনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে বাকী ১৯টি নমুনার ফলাফল নেগেটিভ। গতকাল জেলা স্বাস্থ্যবিভাগ করোনা পরীক্ষার জন্য কোন নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য প্রেরণ করেনি। এ নিয়ে জেলায় মোট নমুনা সংগ্রহের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯ হাজার ৪৫৭টি।
চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন অফিসের সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী জেলা থেকে এ পর্যন্ত মোট নমুনা সংগ্রহ ৯ হাজার ৪৫৭টি, প্রাপ্ত ফলাফল ৯ হাজার ২২৭টি, পজিটিভ ১ হাজার ৮৯৫টি। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত চুয়াডায় ৬৩ জন করোনা আক্রান্ত রোগী চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছিল। এর মধ্যে সদর উপজেলায় অবস্থানকালে আক্রান্ত হয়েছেন ২৬ জন, আলমডাঙ্গায় ৬ জন, দামুড়হুদায় ১৫ জন ও জীবননগরে ১৩ জন। আক্রান্তদের মধ্যে বর্তমানে ৫৫ জন হোম আইসোলেশনে আছেন। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ২০ জন, আলমডাঙ্গায় ৫ জন, দামুড়হুদায় ১৪ জন ও জীবননগরে ১৬ জন। প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে আছেন সদর উপজেলার ৩ জন ও আলমডাঙ্গার ১ জন ও দামুড়হুদায় ১ জনসহ ৫জন। এছাড়াও উন্নত চিকিৎসার জন্য চুয়াডাঙ্গার বাইরে রয়েছেন আরও ৩ জন। চুয়াডাঙ্গায় করোনা আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ৫৩ জনের। এর মধ্যে সদর উপজেলার ২২ জন, আলমডাঙ্গায় ১৬ জন, দামুড়হুদায় ১১ জন ও জীবননগরে ৪ জন। এছাড়াও চুয়াডাঙ্গায় আক্রান্ত ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে জেলার বাইরে।
এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়ে দেশে ৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। সারা দেশে এ নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৭৬ জনে। একই সময়ে নতুন করে করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ২৯০ জন। এ নিয়ে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা হলো সাত লাখ ৭৮ হাজার ৬৮৭ জন। বৃহস্পতিবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।