চুয়াডাঙ্গা বৃহস্পতিবার , ২০ জানুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুয়াডাঙ্গায় আইসোলেশন থেকে ভারতফেরত রোগী পালানোর ঘটনায় ওয়ার্ড বয়কে শোকজ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
জানুয়ারি ২০, ২০২২ ১০:৫০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের ডেডিকেটেড করোনা ইউনিটের আইসোলেশন থেকে ভারত ফেরত রোগী পালানোর ঘটনায় আহসান নামের এক ওয়ার্ড বয়কে শোকজ করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। গতকাল বুধবার সকালে তাঁকে তিন দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়। ভারত ফেরত পলাতক রোগী চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাটি উপজেলার নন্দনি গ্রামের মৃত সিজার আলীর ছেলে আবুল কালাম আজাদ (৪৫)। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. ওয়াহিদ মাহমুদ রবিন এ তথ্য নিশ্চিত করেন। এদিকে, করোনা সংক্রমণ রোধে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসন থেকে পলাতক আবুল কালাম আজাদকে পুনরায় আইসোলেশনে নেওয়ার জন্য নাম-পরিচয় ও পাসপোর্ট নম্বর দিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে।

জানা যায়, আইসোলেশন থেকে পলাতক আবুল কালাম আজাদ চলতি মাসের ৯ তারিখ দর্শনা চেকপোস্ট দিয়ে ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করেন। দর্শনা চেকপোস্টের হেলথ স্কিনিং সেন্টারে তাঁর নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়। আবুল কালাম আজাদ বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী যাত্রী হওয়ায় তাঁকে দেশে প্রবেশ করতে দেওয়া হলেও সরাসরি চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের ডেডিকেটেড করোনা ইউনিটের আইসোলেশন ওয়ার্ডে নেওয়া হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় গত মঙ্গলবার দুপুরে তিনি পালিয়ে যান।

হাসপাতাল সূত্রে আরও জানা যায়, আবুল কালাম আজাদ ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করেন। এসময় দর্শনা বন্দরে নমুনা পরীক্ষায় তাঁর শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। পরে জেলা করোনা ব্যবস্থাপনা ও নিয়ন্ত্রণ কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, বিকেলেই তাঁকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের করোনা ডেডিকেটেড ইউনিটের আইসোলেশন ওয়ার্ডে রাখা হয়। এরই মধ্যে গত মঙ্গলবার দুপুরে তিনি হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যান। এ ঘটনার পর রাতেই আইসোলেশন ওয়ার্ডের দরজায় তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। আর ভারত ফেরত করোনা পজিটিভ প্রত্যেকের যাত্রীর পাসপোর্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে রেখে দেওয়া হয়েছে। তবে চিকিৎসা-সংক্রান্ত জরুরি পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজনে অনুমতি সাপেক্ষে রোগীরা আইসোলেশন থেকে বের হওয়ার সুযোগ পাবেন। আর আইসোলেশন শেষে করোনা নেগেটিভ হওয়ার পর পাসপোর্ট নিয়ে এসব রোগী বাড়িতে ফিরতে পারবেন।

ডা. ওয়াহেদ মাহমুদ রবিন বলেন, ‘করোনা ওয়াডের্রর রেড জোনের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসা কর্মকর্তার অনুমতি ছাড়া রোগীদের বাইরে চলাচলের নিয়ম নেই। ভারত ফেরত আবুল কালাম আজাদ সেই নিয়ম ভঙ্গ করেছেন। এ ঘটনায় আজই (গতকাল বুধবার) ওই ওয়ার্ডের দায়িত্বে থাকা ওয়ার্ড বয়কে তিন দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়ে শোকজ করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার সকালে আবুল কালাম আজাদ করোনার নমুনা পরীক্ষার জন্য রেড জোন থেকে বের হন। দুপুরে খাবার পরিবেশনকারী ওই বেডে রোগীকে দেখতে না পেলে তাঁর পালানোর বিষয়টি জানা যায়।’

চুয়াডাঙ্গা ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক শারমিন আক্তার বলেন, আবুল কালাম আজাদের নাম-পরিচয় ও পাসপোর্ট নম্বর চাঁপাইনবাবগঞ্জের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। যেন তাঁকে শনাক্ত করে পুনরায় আইসোলেশনে নিশ্চিত করা যায়।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।