চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ১৪ নভেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুয়াডাঙ্গাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে দিনভর হালকা বৃষ্টি, বাড়ছে শীত

দুর্ভোগে সাধারন মানুষ; আরেকটি লঘুচাপের সৃষ্টি
নিজস্ব প্রতিবেদক:
নভেম্বর ১৪, ২০২১ ৭:৪০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

কার্তিকের শেষে বৃষ্টি হওয়ায় বেড়েছে শীতের তাপমাত্রা। চুয়াডাঙ্গাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে গতকাল শনিবার বেলা বাড়ার সাথে সাথে বৃষ্টি বাড়তে থাকে। হেমন্তের মাঝা-মাঝিতে চুয়াডাঙ্গাসহ সারাদেশে হচ্ছে হালকা বৃষ্টি। এর প্রভাবে দুই-তিন দিন পরেই শীতের অনুভূতি বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস। গতকাল শনিবার ভোর থেকে চুৃয়াডাঙ্গাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে শুরু হয় গুড়িগুড়ি বৃষ্টি। ক’দিন আগে যে নিম্নচাপটি স্থলভাগে উঠে গেছে তার প্রভাবে বৃষ্টি হচ্ছে। অন্যদিকে গতকাল সকাল থেকে আরেকটি লঘুচাপ উত্তর থাইল্যান্ড উপকূল ও দক্ষিণ আন্দামান সাগরের উপকূলে সৃষ্টি হয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকে শুরু করে সারাদিন ছিল মেঘলা আকাশ। শুক্রবার বৃষ্টিপাত না হলেও শনিবার দিনভর বৃষ্টিপাত হয়েছে। সকালের পর থেকে শুরু হওয়া এ বৃষ্টি চলছে এখনো। যা চলবে আরোও দুদিন। গুড়িগুড়ি বৃষ্টিতে দূর্ভোগ নেমে এসেছে জনজীবনে। কখনো হালকা, কখনো মাঝারি গড়নের বৃষ্টিপাতের কারণে বাইরে বের হওয়া মানুষজনের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। নিতান্ত কাজ ছাড়া মানুষ বাইরে বের হয়নি। যারা বের হয়েছে তারা কাকভেজা ভিজে বাড়িতে রওনা দিয়েছেন। বৃষ্টিতে বেশি সমস্যায় পড়েছে দিনেখাটা দিনমূজুররা। চরম দূর্ভোগে পড়েছে চাষীরা। মাঠে কাটা ধান বৃষ্টিতে ভিজে যাওয়ায় চাষীদের কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে। শীতের আগমণী এই বৃষ্টি অনেকের কাছে রোমান্টিক হলেও অনাহারীদের আহার জোগাতে বেগ পেতে হয়।

চুয়াডাঙ্গা আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা যায়, গতকাল দিনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। দিনের গড় তাপমাত্রা ছিল ২২.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সারাদিনে বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে ২০.৬ মিলিমিটার। এদিকে মেহেরপুরে সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত তাপমাত্রা ছিল সর্বোচ্চ ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শুক্রবার ও শনিবার সূর্যের আলো দেখা যায়নি। গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি সহ কখনো মাঝারি গড়নের বৃষ্টি হওয়ায় মেহেরপুরের অনেক অঞ্চলে পানি জমতে দেখা গেছে।

আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, আন্দামান সাগরের কাছে গতকাল যে লঘুচাপটি হয়েছে তা আগামীকাল সোমবারের কোনো এক সময়ে নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে। চলতি লঘুচাপটি থেকে থেকে ঝড় হবে কি না তা আগামী ১৮ নভেম্বরের পর বলা যাবে। এর মধ্যেই এটি নিম্নচাপে পরিণত হবে। বর্তমান লঘুচাপটি পশ্চিম ও উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে উত্তর আন্দামান সাগরের কাছে নিম্নচাপে পরিণত হতে পারে। এরপর এটি পশ্চিম ও উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে আরো অগ্রসর হতে পারে এবং তামিলনাড়ু প্রদেশের উপকূলে পৌঁছতে পারে ১৮ নভেম্বর। আগামী ১৬ থেকে ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত নিম্নচাপ কেন্দ্রে ঝড়ো হাওয়া আকারে বাতাসের গতিবেগ থাকতে পারে ঘণ্টায় ৫৫ থেকে ৬৫ কিলোমিটার পর্যন্ত। নিম্নচাপ কেন্দ্রের সর্বোচ্চ গতিবেগ উঠতে পারে ৭৫ কিলোমিটার পর্যন্ত। সামনের নিম্নচাপটির প্রভাবেও বাংলাদেশের কোথাও কোথাও বৃষ্টি হতে পারে।

এদিকে গতকাল শনিবার সারা দিনই সূর্যের দেখা মেলেনি। ফলে দেশের বিভিন্ন স্থানে উচ্চ তাপমাত্রা ও উচ্চ ও নিম্ন তাপমাত্রার মধ্যে ব্যবধান ছিল খুবই কম। এ কারণে শীতের মাত্রা আরো বেড়েছে। গতকাল ঢাকার সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল যথাক্রমে ২৪.৪ ও ২৩.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল টেকনাফে ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও সর্বনিম্ন ছিল তেঁতুলিয়ায় ১৩.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

চুয়াডাঙ্গা আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ জামিনুর রহমান জানান, নিম্নচাপের কারণে বৃষ্টি হচ্ছে। তাছাড়া হেমন্তের মাঝামাঝি সময় এখন। ধিরে ধিরে শীত পড়বে। তবে এই নিম্নচাপ আরও দু-একদিন থাকবে। এরপর শীত বাড়বে। তাছাড়া, আন্দামান সাগরে কয়েকদিনের মধ্যে একটি লঘুচাপ সৃষ্টি হচ্ছে। আগামী ১৬ নভেম্বর থেকে দেশের মধ্য ও দক্ষিণাঞ্চলের আবহাওয়া ধীরে ধীরে পুনরায় স্বাভাবিক হয়ে আসতে পারে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।