চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ৬ নভেম্বর ২০১৬
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুয়াডাঙ্গার বিদায়ী পুলিশ সুপার রশীদুল হাসানকে রাজকীয় বিদায় কাঁদছিলোস চুয়াডাঙ্গার শতশত মানুষ : নিরবে সবার অলক্ষ্যে কাঁদছিলেন সদ্য বিদায়ী পুলিশ সুপার রশীদুল হাসান

সমীকরণ প্রতিবেদন
নভেম্বর ৬, ২০১৬ ৯:০৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

DSC09420শহর প্রতিবেদক: হে বন্ধু বিদায়, কোনদিন কর্মহীনপূর্ণ অবকাশে বসন্ত বাতাসে অতীতের তীর হতে, যে রাতে বহিবে দীর্ঘশ্বাস, ঝরা বকুলের কান্না ব্যাথিবে আকাশ, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথের কবিতার মতই গতকাল কাঁদছিলো চুয়াডাঙ্গার শতশত মানুষ। নিরবে সবার অলক্ষ্যে অঝরে কাঁদছিলেন সদ্য বিদায়ী পুলিশ সুপার রশীদুল হাসান। ” গতকাল জিরো আওয়ারে ৩ বছরের কর্মজীবনকে সূখকর স্মৃতি করে নতুন কর্মস্থল জয়পুরহাটে যোগদানের উদ্যোশে চুয়াডাঙ্গা ছেড়ে গেলেন পুলিশ সুপার রশীদুর হাসান। গতকাল সকাল থেকে বিদায়ী পুলিশ সুপার রশীদুল হাসান ব্যস্ত ও কর্মময় দিন পার করেন। সকাল থেকেই তিনি অফিসে বিভিন্ন সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেন। চুয়াডাঙ্গা বিজিবি’র অধিনায়ক আমির মজিদের সাথে বিদায়ী সাক্ষাত শেষে সকাল সাড়ে দশটায় এনএসআই উপ-পরিচালক জাফর ইকবাল, দৈনিক সময়ের সমীকরণ পত্রিকার প্রধান সম্পাদক নাজমুল হক স্বপন, বার্তা সম্পাদক হুসাইন মালিকের সাথে বিদায়ী সাক্ষাত করেন নিজ অফিসে। এরপর তিনি চুয়াডাঙ্গা পুলিশ লাইনে যান। সেখানে চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশ কর্তৃক আয়োজিত মাসিক কল্যান প্যারেডে জেলা পুলিশের প্রত্যেকটি সদস্যের নিকট থেকে আনুষ্ঠানিক ভাবে বিদায় গ্রহন করেন। এর আগে তিনি চুয়াডাঙ্গা জেলায় কর্মরত ৫৭ জন কনষ্টেবলকে এএসআই(নিঃ) র‌্যাঙ্ক ব্যাজ পরিয়ে দেন। পুলিশ সুপার রশীদুল হাসানের বিদায় উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান গত ৪দিন ধরে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যধে সম্মননা স্মারক প্রদান, বিদায়ী সংবর্ধনার আয়োজন করে। DSC09427 (2)গতকাল বিকাল থেকে পুলিশ সুপারের বাসভবনে রাজনৈতিক, সামাজিক, সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারী, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা বিদায়ী সাক্ষাত করেন বিদায়ী পুলিশ সুপার রশীদুল হাসানের সাথে। এর আগে তিনি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেনের কাছে নতুন এসপি না আসা পর্যন্ত দায়িত্বভার বুঝিয়ে দেন। গতরাত ঠিক ১১.৫০ মিনিটে পুলিশ সুপারের কার্যালয় থেকে ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ বেলায়েত, চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার মেয়র ওবাইদুর রহমান চৌধূরী জিপুর সাথে চুয়াডাঙ্গায় কর্মরত সকল পুলিশ অফিসারের অংশগ্রহনে এক রাজকীয় বিদায় পথ যাত্রায় কখনো হেটে কখনো গাড়ীতে করে রেল ষ্টেশনে পৌছাঁন সদ্য বিদায়ী পুলিশ সুপার রশীদুল হাসান। শতশত সাধারণ মানুষ, প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের বিদায়ী পথযাত্রায় ব্যান্ড পার্টির ড্রাম আর বাঁশির বিদায় সুরে মনে হচ্ছিলো এ যেন রাজকীয় বিদায়। চুয়াডাঙ্গা রেল ষ্টেশনে পৌছানোর পথিমধ্যে কোর্ট মোড়, পান্না(রুপছায়া)সিনেমা হলের সামনে, বাদল মোড়, সরকারী কলেজ গেট, টিএনটি মোড়, মাছপট্টিতে বিভিন্ন পেশার শতশত সাধারণ মানুষ সৎ এই পুলিশ সুপারকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও চোখের জলে বিদায়ের মুহুর্তটি স্মৃতিপাতার স্বাক্ষী হয়ে থাকবে সেটা নতুন বলার অপেক্ষা রাখেনা। সদ্য বিদায়ী পুলিশ সুপার নিজের চোখের জল ধরে রাখতে পারেননি। নিজে কেঁদেছেন, কাঁদিয়েছেন চুয়াডাঙ্গাকে। ঠিক রাত ১২.৪০মিনিটে তিনি যখন সীমান্ত ট্রেনে চড়ে বসেন তখন ষ্টেশনে বিদায় দিতে আসা শতশত মানুষ কেউ নিরবে আবার কেউ হাউমাউ করে কেঁদে ওঠে। তিনি ট্রেনে ওঠার আগে উপস্থিত সকলের উদ্যেশে বক্তব্য দিতে গিয়ে থেমে যান আমি সাংবাদিকতো বুঝতে বাকী থাকে তিনি নিরবে কাঁদছেন অঝর ধারায়। ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন সদ্য বিদায়ী পুলিশ সুপারের পক্ষ থেকে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন এবং নিজে সকলের কাছে সহযোগিতা চেয়ে বক্তব্য শেষ করেন। ট্রেনে ওঠার আগে মেয়র জিপু চৌধূরী, প্রেসক্লাব সভাপতি আজাদ মালিতাসহ উপস্থিত সাংবাদিক, রাজনৈতিক, সামাজিক নেতৃবৃন্দের সাথে কোলাকুলি করেন।
উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ২ ডিসেম্বর নীলফামারীর কৃতি সন্তান মোঃ রশীদুল হাসান সাজু চুয়াডাঙ্গায় পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদান করেন। এর আগে তিনি রংপুর জেলায় কর্মরত ছিলেন। গতকাল ৫ নভেম্বর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেনের কাছে দায়িত্বভার হস্তান্তর শেষে নতুন কর্মস্থল জয়পুরহাটে পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদানের উদ্যোশে রাত ১২.৪০ মিনিটে সীমান্ত ট্রেনে রওনা দেন।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।