চুয়াডাঙ্গা সোমবার , ১৬ মে ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুয়াডাঙ্গার ডিঙ্গেদহ বাজারে ভুয়া চিকিৎসককে জরিমানা, ক্লিনিক সিলগালা

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
মে ১৬, ২০২২ ১১:৩০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

চুয়াডাঙ্গায় অভিযান চালিয়ে এক ভুয়া চিকিৎসককে আটকের পর দেড় লাখ টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই সঙ্গে সিলগালা করা হয়েছে ওই ব্যক্তির কথিত ক্লিনিকটি। গতকাল রোববার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে সদর উপজেলার ডিঙ্গেদহ বাজারের মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল প্র্যাকটিস প্রতিষ্ঠানে ওই অভিযান চালায় সদর উপজেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক ও সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাজহারুল ইসলাম।

জানা গেছে, ওই বাজারে দীর্ঘদিন ধরে দাঁতের অপচিকিৎসা দিয়ে আসছিলেন লিনটন রয় জিপ্পু নামে এক ব্যক্তি, এমন গোপন তথ্যের ভিত্তিতে ওই ক্লিনিকে অভিযান চালানো হয়। আটক করা হয় চিকিৎসক পরিচয়দানকারী লিনটনকে। পরে তাঁর ডিগ্রি ও ডাক্তারি সনদ দেখতে চাইলে তা দেখাতে ব্যর্থ হন তিনি।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাজহারুল ইসলাম জানান, ডিঙ্গেদহ বাজারে দীর্ঘদিন থেকে দাঁতের অপচিকিৎসা দিয়ে আসছেন এক ব্যক্তি, এমন সংবাদের ভিত্তিতে বিকেলে সেখানে অভিযান চালানো হয়। আটক করা হয় চিকিৎসক পরিচয়দানকারী লিনটন রায় জিপ্পু নামে এক ব্যক্তিকে। এসময় তাঁর চিকিৎসা দেওয়ার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখতে চান ভ্রাম্যমাণ আদালত। কাগজপত্র দেখাতে ব্যর্থ হন তিনি। পরে দোষ স্বীকার করলে তাঁকে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯-এর ৪৪ ধারায় দেড় লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। সেই সঙ্গে সিলগালা করা হয় তাঁর প্রতিষ্ঠানটি।

তিনি আরও জানান, এমবিবিএস ডিগ্রি না থাকলেও চিকিৎসাপত্র লিখতেন তিনি। তার শুধু চক্ষুর ওপর কয়েকটি কোর্সের সার্টিফিকেট আছে। অথচ তার সাইনবোর্ডে লেখা রয়েছে এলএম (ঢাকা) ও ডিটি (দক্ষিণ কোরিয়া)। তিনি শুধু দাঁতের নয়, কানেরও চিকিৎসা দিতেন। সম্প্রতি জেলায় আরও দুজন ভুয়া চিকিৎসককে জরিমানা ও তাঁদের প্রতিষ্ঠান সিলগালা করা হয়েছে। ভ্রাম্যমাণ আদালতের কাজে সহযোগিতা করেন সদর উপজেলা সহকারী কমিশনারের (ভূমি) কার্যালয়ের নাজির সাজেদুর রহমান ও সদর থানা পুলিশের একটি টিম।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।