চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ২৮ নভেম্বর ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুয়াডাঙ্গার গহেরপুরে মাদ্রাসা শিক্ষককে কুপিয়ে জখম

সমীকরণ প্রতিবেদন
নভেম্বর ২৮, ২০২০ ১০:০৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

Girl in a jacket

প্রতিবেদক, তিতুদহ:
চুয়াডাঙ্গায় পূর্বশত্রুতার জের ধরে মাদ্রাসার এক শিক্ষককে কুপিয়ে জখম করার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় চুয়াডাঙ্গার নবগঠিত গড়াইটুপি ইউনিয়নের মাঝেরপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে গড়াইটুপি ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান জখম শিক্ষককে চিকিৎসার জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন। জখম মহিদুল ইসলাম সড়াবাড়িয়া দাখিল মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক ও গহেরপুর গ্রামের দক্ষিণপাড়ার মৃত রমজান আলির ছেলে।
জানা যায়, গত ৬ নভেম্বর গ্রামের মসজিদ কমিটি নিয়ে মহিদুল ইসলাম পক্ষ ও বদর পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে একই গ্রামের শোভনের পিতা বদর উদ্দীন আহত হন। গতকাল চেয়ারম্যান শফিকুর রহমানের বাড়িতে একটি গ্রাম্য সালিশে অংশ নেন মহিদুল ইসলামসহ বেশ কয়েকজন। সালিশ শেষে একটি মোটরসাইকেলযোগে বাড়ি ফিরছিলেন মহিদুল ইসলাম, সেলিমসহ তিনজন। চেয়ারম্যান শফিকুর রহমানের বাড়ি থেকে মোটরসাইকেল নিয়ে তিনজন বের হলেই আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা গহেরপুর গ্রামের বদর উদ্দীনের ছেলে শোভন একটি রড দিয়ে মোটরসাইকেলে হামলা চালায়। মোটরসাইকেল নিয়ে মহিদুল রাস্তার পাশের একটি নারকেল গাছের সঙ্গে ধাক্কা মারে। এতে মোটরসাইকেলের অন্য দুজন আহত হয়। এ সময় শোভন একটি ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাদ্রাসা শিক্ষককে কুপিয়ে জখম করে।
মোটরসাইকেলের আরোহী সেলিম জানায়, ‘মোটরসাইকেল চালাচ্ছিল গহেরপুরের মৃত অকিজদ্দীনের ছেলে জমির। আমি পিছনে বসেছিলাম, মাদ্রাসা শিক্ষক শহিদুল মাঝে বসেছিল। আমরা চেয়ারম্যনের বাড়ির সামনে পৌঁছালে মোটরসাইকেল হঠাৎ রড দিয়ে মোটরসাইকেলে আঘাত করে শোভন। মোটরসাইকেলটি রাস্তার ধারের একটি গাছের সঙ্গে ধাক্কা লাগলে শোভন একটি রামদা দিয়ে শিক্ষক শহিদুলকে কোপ দেয়। এ সময় আমরা মোটরসাইকেল নিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে খবর পেয়ে চেয়ারম্যান জখম মহিদুলকে সদর হাসপাতালে পাঠায়।’
এবিষয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. মাহাবুবুর রহমান রহমান, রাত সাড়ে নয়টার দিকে রোগীকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেওয়া হয়। রোগীর বাম হাতে ধারালো অস্ত্রের কোপে একটি ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে। তাঁকে তাৎক্ষণিক টিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালের সার্জারি ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রাখা হয়েছে।
এবিষয়ে দর্শনা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি, তদন্ত) মাহাবুবুর রহমান বলেন, এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Girl in a jacket

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।