চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ৯ এপ্রিল ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চুয়াডাঙ্গার নবীননগরে প্রবাসীর বাড়িতে ইলেকট্রনিক মিস্ত্রি অবরুদ্ধ

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
এপ্রিল ৯, ২০২২ ১০:২৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

প্রতিবেদক, সরোজগঞ্জ:

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার সরোজগঞ্জ নবীননগরে প্রবাসীর বাড়িতে এক ইলেকট্রনিক মিস্ত্রিকে অবরুদ্ধ করে পিটিয়ে আহত করার ঘটনা ঘটেছে। এতে গ্রামজুড়ে উত্তেজনা দেখা দেয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে ও ওই মিস্ত্রিকে উদ্ধার করে। আহত ইলেকট্রনিক মিস্ত্রি খাড়াগোদা গ্রামের আলম হোসেনের ছেলে জিবরান হোসেন (২২)। গতকাল শুক্রবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা সদরের নবগঠিত গড়াইটুপি ইউনিয়নের খাড়াগোদা গ্রামের ইলেকট্রনিক মিস্ত্রি জিবরান হোসেন নবীনগর গ্রামে এক প্রবাসীর বাড়িতে বেশ কয়েকদিন যাবত ইলেকট্রনিকের কাজ করে আসছেন। গতকাল শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে ওই বাড়িতে কাজ করার সময় বাড়ির মালিকের মেয়ের সাথে ধাক্কা লাগে তার। এতে ওই মেয়ে চিৎকার করলে তার মা ছুটে এসে জিবরানকে ঘরের দরজা দিয়ে অবরুদ্ধ করে রাখে এবং এলাকার বাইরের থেকে লোকজন নিয়ে এসে তাঁকে পোটাতে থাকে। গ্রামের লোকজন বিষয়টি জানতে পেরে পুলিশকে জানায়। পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয় আহত জিবরানকে উদ্ধার করে।

আহত জিবরান হোসেন জানান, ‘আমি নবীননগর গ্রামের এক প্রবাসীর বাড়িতে ইলেকট্রনিকসের কাজ করছিলাম। বাড়িতে শুধু বাড়ির মালিকের মেয়ে ছিল। ছাদের উপরের কাজ করতে গিয়ে প্রয়োজন পড়ে টেবিল, ওই টেবিল ধরার আর কোনো লোকজন ছিল না। তাই আমি বাড়ির মালিকের মেয়েকে ওই টেবিলটা ধরতে বলি। কিন্তু অসাবধানতাবশত ওই মেয়ের গায়ে ধাক্কা লাগে। বিষয়টি মেয়ে নেগেটিভে নেয় এবং ঘরের দরজা বন্ধ করে দেয়। পরে মেয়ের মা এসে ও তাঁর ভাড়া করা লোকজন নিয়ে এসে আমাকে দরজা বন্ধ করে রড দিয়ে তিনজন ব্যক্তি বেধড়ক মারপিট করে। এতে আমার মাথা ফেটে রক্তাক্ত হয়ে ৩টি সেলাই দেওয়া হয়েছে। পরে পুলিশ এসে আমাকে উদ্ধার করে।’

এবিষয়ে সরোজগঞ্জ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই তাইফুজ্জামান জানান, এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুজনকে প্রাথমিকভাবে আটক করা হয়। তবে পরে স্থানীয় চেয়ারম্যান এসে মুচলেকা দিয়ে তাঁদের ছাড়িয়ে নিয়ে যায়।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।