চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ৬ ডিসেম্বর ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চাচাত ভাই সাকিবের লাঠির আঘাতে মৃত্যু হয় আলমগীরের

সমীকরণ প্রতিবেদন
ডিসেম্বর ৬, ২০২০ ১০:২৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

Girl in a jacket

খাদিমপুরে আলমগীর হত্যাকাণ্ড, পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য
আফজালুল হক:
আলমডাঙ্গা উপজেলার খাদিমপুরে আলমগীর হত্যাকাণ্ড ঘটনায় বেরিয়ে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। চাচাত ভাই সাকিবের লাঠির আঘাতে মৃত্যু হয় আলমগীরের। এরপর শিপনের সহযোগিতায় লাশ পুকুরের মধ্যে পুতে রাখা হয়। নিহত আলমগীরের কাছে থাকা নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন নিয়ে নেয় শিপন। পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এসব তথ্য জানিয়েছে শিপন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একটি নির্ভরশীল সূত্র জানায়, শিপনের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে নিহত আলমগীরের চাচাত ভাই সাকিবকে (১৮) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গতকাল শনিবার থানা হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।
সূত্রটি জানায়, জিজ্ঞাসাবাদে গত ১০ অক্টোবর রাত ১০টার দিকে খাদিমপুর গ্রামের মোল্লাপাড়ার পুকুরের ধারে এলাকার আব্দুর রশিদের স্কুলপড়ুয়া ছেলে শিপন, আলমগীর ও তার চাচাত ভাই সাকিব গল্প করছিল। আলমগীরের সঙ্গে তার চাচাত ভাই সাকিবের পূর্ববিরোধ ছিল। এসময় কোনো এক বিষয়ে তর্কাতর্কি হয়। একপর্যায়ে সাকিব একটি লাঠি দিয়ে আলমগীরের মাথায় করলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে শিপন আলমগীরের লাশটি পুকুরে কচুরিপনার নিচে লুকিয়ে রাখে। এসময় নিহত আলমগীরের সঙ্গে থাকা নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন নিয়ে নিজের কাছেই রাখে শিপন। শিপনের দেওয়া এসব তথ্য শক্রতামূলক নাকি অন্যকিছু, এ জন্য চাচাত ভাই সাকিবকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নেওয়া হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের পরই জানা যাবে ঘটনার রহস্য। গতকাল পুলিশ আলমগীরের মোবাইল ফোনটি শিপনের নিকট থেকে উদ্ধার করে।
এদিকে গতকাল শনিবার নিহত আলমগীরের কঙ্কালটি চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে পারিবারের নিকট হস্তান্তর করে পুলিশ। বিকেলে আসরের নামাজের পর জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তার দাফনকার্য সম্পন্ন করা হয়। এর আগে গত শুক্রবার বিকেলে পরিস্থিতি বেগতিক দেখে শিপন ও তার স্ত্রী সটকে পরে। পরে পুলিশের তড়িৎ অভিযানে তারা আটক হয়। গতকাল শনিবার তাদেরকে আদালতে সোপর্দ করলে জবানবন্দি শেষে বিজ্ঞ আদালত তাদেরকে জেলহাজতে পাঠায়। এদিকে, গতকাল চাচাত ভাই সাকিবকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আলমডাঙ্গা থানা হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় গতকাল আলমগীরের বড় ভাই জাহাঙ্গীর বাদী হয়ে আলমডাঙ্গা থানায় ৮ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ২-৩ জনের নামে একটি হত্যা মামলা করেছেন।
এ বিষয়ে আলমডাঙ্গা থানায় অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলমগীর কবির বলেন, শিপন ও তার স্ত্রী ইভাকে আটক করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আলমগীরের চাচাত ভাই সাকিবকে থানায় নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে। শিপনের নিকট থেকে অনেক তথ্য পাওয়া গেছে। আলমগীরের ব্যবহত মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করা হয়েছে। তবে মামলার তদন্তের স্বার্থে এখনই বলা সম্ভব নয়।
উল্লেখ্য, গত শুক্রবার সকালে আলমডাঙ্গা উপজেলার খাদিমপুরে নিখোঁজের ৫৪ দিন পর পুকুরের কচুরিপনার নিচ থেকে আলমগীরের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। আলমগীরে পিতা কাতব আলী অভিযোগ করেন, এলাকার আব্দুর রশিদের স্কুলপড়ুয়া ছেলে শিপন তাঁর ছেলে আলমগীরকে টাকার জন্য পরিকল্পিতভাবে হত্যা পর পুকুরে ফেলে দিয়েছে। এ ঘটনায় ওই দিনই শিপন ও তার অপ্রাপ্তবয়স্ক স্ত্রী ইভাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানা হেফাজতে নেয়।

Girl in a jacket

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।