গ্রাহককে ১ টাকা ঠকাতে সহযোগী মোবাইল অপারেটররা

449

সমীকরণ ডেস্ক: মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীদের রিচার্জে ১ টাকা করে ঠকাতে সহযোগীর ভূমিকা পালন করছে দেশের মোবাইল ফোন অপারেটররা। তারা এমন হারে প্যাকেজের মূল্য নির্ধারণ করছে, যেখানে খুচরা পয়সার অভাব দেখিয়ে রিচার্জ ব্যবসায়ীরা ১ টাকা করে বেশি নেওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। এতে সাড়ে ১৪ কোটি মোবাইল ফোনসংযোগ থেকে গ্রাহকের পকেট কেটে কোটি কোটি টাকা বাড়তি আয়ের সুযোগ তৈরি করা হয়েছে। মোবাইল ফোনে সারা দিনরাত প্রতি সেকেন্ড ১ পয়সা দরে কথা বলার জন্য দেশের তিন বেসরকারি অপারেটরের একটি বিশেষ প্যাকেজ আছে। বিশেষ এ কলরেটে কথা বলার সুবিধা পেতে হলে গ্রাহকদের ১৯, ২৯,৩৯, ৭৯ ও ১০৯ টাকা রিচার্জ করতে হয়। সুবিধাজনক হওয়ায় অনেক গ্রাহকই অপারেটরদের এ প্যাকেজ কেনেন। কিন্তু রিচার্জের দোকানে গিয়ে মূল্য পরিশোধ করতে গিয়ে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে বাধে বিপত্তি। কারণ, ২৯ বা ১০৯ টাকা রিচার্জ করলে বেশির ভাগ দোকানিই আর ১ টাকা গ্রাহককে ফেরত দেন না।
গ্রাহকেরা বলছেন, এই প্যাকেজের মূল্য যদি জোড় সংখ্যায় হতো, তাহলে এভাবে ১ টাকা ঠকতে হতো না। কিন্তু অভিযোগ আছে, রিচার্জ ব্যবসায়ীদের সুবিধা দিতেই মোবাইল ফোন অপারেটররা এ ধরনের প্যাকেজ ঘোষণা করছে। এ বিষয়টি টেলিযোগাযোগ খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনেরও (বিটিআরসি) জানা। তাদের অনুমোদন নিয়েই মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোন, রবি ও বাংলালিংক এ কাজ করছে। এমনকি সরকারের মালিকানাধীন মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটকেরও একই ধরনের প্যাকেজ আছে। মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো প্রতি ১ হাজার টাকা রিচার্জে খুচরা ব্যবসায়ীদের ২৭ টাকা ৫০ পয়সা থেকে ২৮ টাকা ৫০ পয়সা কমিশন দেয়। তবে টেলিটক প্রতি হাজারে ৩০ টাকা দেয়। অভিযোগ আছে, রিচার্জ ব্যবসায়ীদের যে হারে কমিশন দেওয়া হয়, সেটি যথেষ্ট নয়। এতে তাঁদের দোকানভাড়া, ব্যবসা পরিচালনা, কর্মচারীদের বেতন, ভুল নম্বরে টাকা পাঠানোর কারণে ক্ষতিপূরণ দেওয়াসহ নানা ব্যয় মেটানো কঠিন হয়। কিন্তু ১ টাকা বাড়তি নিয়ে তাঁরা মুনাফার ব্যবস্থা করেন।