চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ১১ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গোলাবারুদ শেষ, পালাচ্ছে ইউক্রেনীয় সেনারা

কিয়েভের স্বীকোরক্তি : প্রতিদিন ২০০ সৈন্য মারা যাচ্ছে
সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
জুন ১১, ২০২২ ১১:১৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সমীকরণ প্রতিবেদন: ইউক্রেনের সেনাবাহিনীতে প্রতি সপ্তাহে পালানোর ঘটনা বাড়ছে, একটি ফাঁস হওয়া গোয়েন্দা প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গিয়েছে। পাশাপাশি, গোলাবারুদের তীব্র সঙ্কটের মধ্যে পূর্ব ডনবাস অঞ্চলে প্রতিদিন প্রায় ২০০ ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হচ্ছে। ফাঁস হওয়া ইউক্রেনীয় গোয়েন্দা রিপোর্ট প্রকাশ করে, ওই অঞ্চলে ক্রেমলিনের বাহিনীর ২০টি আর্টিলারির বদলে ইউক্রেনীয় সেনাদের ১ আর্টিলারি রয়েছে। গোলাবারুদের ক্ষেত্রেও ইউক্রেনীয় ১ জন সেনার বিপরীতে রাশিয়ার ৪০ জন সেনা সেখানে রয়েছে। ইউক্রেনীয় এবং পশ্চিমা কর্মকর্তাদের দ্বারা তৈরি গোয়েন্দা ডসিয়ার, ইউক্রেনীয় সৈন্যদের পলিয়ে যাওয়ার ক্রমবর্ধমান ঝুঁকি সম্পর্কে সতর্ক করে। ডনবাসের ক্রমবর্ধমান পরিস্থিতি ‘ইউক্রেনীয় বাহিনীর উপর গুরুতরভাবে হতাশাজনক প্রভাবের পাশাপাশি একটি খুব বাস্তব বস্তুগত প্রভাব ফেলছে; পরিত্যাগের ঘটনা প্রতি সপ্তাহে বাড়ছে’, ইন্ডিপেনডেন্টের দেখা রিপোর্ট অনুসারে। এদিকে, ইউক্রেনের সামরিক গোয়েন্দা বিভাগের উপ-প্রধান বলেছেন যে, ইউক্রেন ফ্রন্টলাইনে রাশিয়ার বিরুদ্ধে হেরে যাচ্ছে এবং এখন রাশিয়াকে দূরে রাখতে পশ্চিম থেকে অস্ত্র সাহায্যের উপর নির্ভর করছে।

ইউক্রেনের সামরিক গোয়েন্দা বিভাগের উপ-প্রধান ভাদিম স্কিবিটস্কি বলেছেন, ‘এটি এখন একটি আর্টিলারি যুদ্ধ।’ তিনি গার্ডিয়ানকে বলেছিলেন, ‘এবং আর্টিলারির ক্ষেত্রে আমরা হেরে যাচ্ছি’। ‘সবকিছুই এখন নির্ভর করছে (পশ্চিম) আমাদের যা দেয় তার উপর,’ তিনি বলেছেন, ‘ইউক্রেনের তুলনায় রাশিয়ার কাছে ১০ থেকে ১৫ গুণ আর্টিলারি রয়েছে। আমাদের পশ্চিমা অংশীদাররা তাদের যা আছে তার প্রায় ১০ শতাংশ আমাদের দিয়েছে। আমাদের গোলাবারুদ ফুরিয়ে যাওয়ার সাথে সাথে পশ্চিমাদের সরবরাহও কমে যাচ্ছে।’ স্কিবিটস্কি উল্লেখ করেছেন যে, রাশিয়া বর্তমানে দূরপাল্লার বোমারু বিমান ব্যবহার করছে যা রাশিয়ার আকাশসীমা না ছেড়েই ইউক্রেনের যে কোন জায়গায় পৌঁছাতে পারে। ইউক্রেনের সামরিক গোয়েন্দারা বিশ্বাস করে যে, রাশিয়া নতুন অস্ত্র বা সৈন্য না এনেও আরও অন্তত এক বছর যুদ্ধ চালিয়ে যেতে পারবে।

প্রতিদিন ২০০ সৈন্য মারা যাচ্ছে :

ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলে অব্যাহত লড়াইয়ের মধ্যে ইউক্রেনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী স্বীকার করেছেন যে, সেখানে তারা রাশিয়ার দিক থেকে বেশ তীব্র আক্রমণের মুখে আছেন এবং প্রতিদিন তাদের অন্তত ১০০ থেকে ২০০ সৈন্য লড়াইয়ে নিহত হচ্ছে, আহত হচ্ছে প্রতিদিন পাঁচশ’য়ের মত সৈন্য। তবে ইউক্রনের প্রেসিডেন্টের একজন উপদেষ্টা মিখাইলো পদোলিয়াক বলছেন, প্রতিদিন নিহতের সংখ্যা আরও বেশি। তিনি বলছেন, প্রতিদিন একশ’ থেকে দু’শ ইউক্রেনীয় সৈন্য মারা যাচ্ছে। ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী অলেক্সি রেজনিকভ বলেছেন, পোল্যান্ডের কাছ থেকে তারা যে বিশেষ ধরনের হাউয়িৎযার কামান পেয়েছে তা যুদ্ধে ব্যবহারের জন্য এখন অন্যান্য সামরিক সরঞ্জামের পাশাপাশি তৈরি রাখা হয়েছে।

কিন্তু তিনি বলেছেন, তাদের জরুরি ভিত্তিতে এবং দ্রুত আরও ভারি অস্ত্রশস্ত্রের প্রয়োজন। পদোলিয়াক বিবিসিকে বলছেন, রাশিয়ার গোলাবর্ষণ ঠেকাতে এবং তাদের শক্তির সাথে পাল্লা দিতে বিভিন্ন পাল্লার রকেট ছুঁড়তে সক্ষম এমন অন্তত ৩০০ সমরাস্ত্র তাদের দরকার। ইউক্রেনের যুদ্ধ এখনও কেন্দ্রীভূত রয়েছে ডনবাস অঞ্চলে- আরও সুনির্দিষ্ট ভাবে সেভেরোডোনেৎস্ক শহরে। সেভেরোডোনেৎস্কে ইউক্রেন বাহিনীর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির কথা বলা হচ্ছে। সেখানে লড়াই চলছে রাস্তায় রাস্তায় এবং ইউক্রেন বাহিনী তুমুল গোলাবর্ষণের মুখে রয়েছে। লুহানস্কের গভর্নর সেরহি হাইদাই বলেছেন, রুশ আক্রমণের মুখে ইউক্রেনীয় সৈন্যরা শহর থেকে পিছু হঠে শহরের উপকণ্ঠে সরে গেছে। তিনি একথাও বলছেন যে এলাকার ৯০ শতাংশের বেশি এখন রাশিয়ার দখলে, যদিও তিনি বলছেন ‘শহরটি সাময়িকভাবে রাশিয়ার দখলে’।

জ্বালানি খাতে রাশিয়ার মুনাফা বেড়েছে :

রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন বলছেন, পশ্চিমা দেশগুলো আগামী কয়েক বছরেও রাশিয়ার কাছ থেকে তেল ও গ্যাস নেয়া বন্ধ করবে না। তিনি বলেন এই সময়ের মধ্যে কী হতে পারে সেটা কেউই জানে না, ফলে রুশ কোম্পানিগুলোকে তাদের তেল-কূপ বন্ধ করে দিতে হবে না। এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারাও স্বীকার করে নিয়েছেন যে ইউক্রেন যুদ্ধের পরে জ্বালানি খাতে রাশিয়ার মুনাফা যুদ্ধের আগের তুলনায় বেড়ে গেছে। ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন বর্তমানে তার প্রয়োজনীয় গ্যাসের ৪০ শতাংশ রাশিয়ার কাছ থেকে আমদানি করে থাকে। ফেব্রুয়ারি মাসে ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযান শুরু হওয়ার পর ইউরোপের দেশগুলোর এই জোট তেল ও গ্যাসের জন্য রাশিয়ার ওপর নির্ভরতা কমিয়ে আনার কথা ঘোষণা করেছে। তারা বলছে, ২০৩২ সালের শেষ নাগাদ তেলের ওপর নির্ভরতা ৯০ শতাংশ কমাবে। কিন্তু গ্যাসের ব্যাপারে কতোটুকু হ্রাস করবে এখনও তার কিছু উল্লেখ করেনি। ইউক্রেন যুদ্ধের পর মস্কোকে শাস্তি দেয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়ার জ্বালানির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। কিন্তু বিশ্বব্যাপী তেল ও গ্যাসের মূল্য বেড়ে যাওয়ার কারণে এই খাতের রাশিয়ার মুনাফাও বৃদ্ধি পেয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা বলছেন, সার্বিকভাবে সরবরাহের পরিমাণ কমে যাওয়া সত্ত্বেও জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি কারণে সম্প্রতি রুশ কোম্পানিগুলোর মুনাফাও বেড়ে থাকতে পারে। ‘বিশ্ব বাজারে তেলের পরিমাণ কমছে, কিন্তু দাম বাড়ছে,’ মস্কোতে তরুণ উদ্যোক্তাদের একথা বলেন প্রেসিডেন্ট পুতিন। তিনি বলেন, ‘কোম্পানির মুনাফা বাড়ছে।’ বৃহস্পতিবার এই একই ধরনের কথা শোনা গিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রের জ্বালানি নিরাপত্তা সংক্রান্ত দূত অ্যামোস হোকস্টেইনের মুখ থেকেও। সেনেটে শুনানির সময় জানতে চাওয়া হয়েছিল রাশিয়া কি এখন জীবাশ্ম জ্বালানি থেকে যুদ্ধের আগের সময়ের চেয়েও বেশি মুনাফা করছে? এর উত্তরে অ্যামোস হোকস্টেইন বলেন, ‘আমি এটা অস্বীকার করতে পারবো না।’

ফ্রান্স ও জার্মানির কড়া সমালোচনা পোল্যান্ডের:

এরই মধ্যে পোল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট বেশ কঠোর ভাষায় ফ্রান্স এবং জার্মানির সমালোচনা করেছেন। পোল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট আন্দ্রজ ডুডা জার্মানির বিল্ড সাময়িকীকে এক সাক্ষাৎকার দেবার সময় ফ্রান্স আর জার্মানির বিরুদ্ধে খুবই কড়া মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেছেন, রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিন যখন ইউক্রেনকে ধ্বংস করতে ব্যস্ত, তখনও এই দুই দেশ তার সঙ্গে আলোচনা অব্যাহত রেখেছে। তিনি বলেছেন, পুতিনের সঙ্গে এই আলোচনা অর্থহীন। তিনি সাময়িকীতে সাক্ষাৎকার দেবার সময় প্রশ্ন করেছেন: ‘দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় কি কেউ অ্যাডল্ফ হিটলারের সঙ্গে আলোচনা চালিয়েছিল অথবা কেউ কি বলেছিল – নাৎসী নেতাকে অপদস্থ করা ঠিক নয়। তার মুখ বাঁচানোর পথ রাখা উচিত!’ আলোচনার মাধ্যমে এই যুদ্ধ অবসানের চেষ্টায় ইমানুয়েল ম্যাখোঁ এবং ওলাফ শোলৎজ এখনও পুতিনের সঙ্গে যোগাযোগ বজায় রেখেছেন।

রুশ বাহিনীর হাতে আটক ব্রিটিশ সৈন্যদের মৃত্যুদণ্ডাদেশ :

ইউক্রেনে রুশ বাহিনীর হাতে আটক দুজন ব্রিটিশ এবং মরক্কোর একজন নাগরিককে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়েছে বলে খবর দিয়েছে রুশ মালিকানাধীন সংবাদ সংস্থা আরআইএ নভোস্তি। ব্রিটেনের নটিংহামশায়ারের বাসিন্দা ২৮ বছরের এইডেন আসলিন, বেডফোর্ডশায়ারের বাসিন্দা ৪৮ বছর বয়স্ক শন পিনার এবং তৃতীয় আরেক ব্যক্তি মরক্কোর নাগরিক সাউদুন ব্রাহিমকে দোনেৎস্ক গণ প্রজাতন্ত্রের একটি আদালতে হাজির করা হয়। এই কোর্ট পরিচালনা করে রুশ সমর্থক বিদ্রোহীরা। ব্রিটেন বলছে যুদ্ধে অংশ নেবার জন্য তাদের বিচারের মুখোমুখি করা উচিত হয়নি।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।