চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ২২ জানুয়ারি ২০২৩
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গাংনীতে হত্যা মামলার প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
জানুয়ারি ২২, ২০২৩ ৮:৪৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

Girl in a jacket

সমীকরণ প্রতিবেদক:
মেহেরপুরের গাংনী উপেজেলায় আমতৈল গ্রামের জগত আলী হত্যা মামলার প্রধান আসামি আব্দুল গাফ্ফারকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত শুক্রবার রাতে গাংনী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুর রাজ্জাক গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে মানিকদিয়া গ্রাম থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তার আব্দুল গাফ্ফার আমতৈল গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে। তিনি হত্যার শিকার জগত আলীর সম্পর্কে বড় ভাইয়ের ছেলে। আব্দুল গাফ্ফারসহ পুলিশ এ পর্যন্ত হত্যা মামলার দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হলো।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুর রাজ্জাক জানান, গত বছরের ৩০ নভেম্বর সকালে আমতৈল গ্রামের মাঠ থেকে জগত আলীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এর আগে তিনি মাঠে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে নিঁখোজ হন। লাশ উদ্ধারের পর নিহত জগত আলীর স্ত্রী হালিমা খাতুন বাদী হয়ে তিনজনের নাম উল্লেখসহ দুই-তিনজনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে গাংনী থানায় হত্যা মামলা করেন।
এসআই আব্দুর রাজ্জাক আরও জানান, ‘জগত হত্যা মামলার প্রধান আসামি আব্দুল গাফ্ফার হত্যার বিষয়ে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন। সে নিজেই এ হত্যার সঙ্গে জড়িত। গতকাল দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাকে মেহেরপুর জেলা কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।’
মামলার বাদী নিহতের স্ত্রী হালিমা খাতুন বলেন, পৈতৃক জমির মালিকানা নিয়ে ভাতিজা আব্দুল গাফ্ফারের সঙ্গে বিবাদ চলছিল জড়ত আলী। সেই জমিতে আমার ভাসুরের ছেলে আব্দুল গাফ্ফার জোর ভুট্টা রোপণ করে। আমার স্বামী ভুট্টাক্ষেতের ওপর চাষ দিয়ে দেন। জমির ওপর গেলে তাকে হত্যা করার হুমকি দেন আব্দুল গাফ্ফার। জমির ওপর চাষ করার সময় তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে ফেলে পালিয়ে যান তারা।
গাংনী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত কওে বলেন, ‘ জগত আলী হত্যা মামলার প্রধান আসামি আব্দুল গাফ্ফারসহ এজহার নামীয় দুজনতে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। অপর এক আসামি পলাতক রয়েছে তাকেও গ্রেপ্তারের চেষ্টা করা হচ্ছে।’

Girl in a jacket

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।