চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ১৩ নভেম্বর ২০১৬
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গাংনীতে মায়ের মিথ্যা মামলায় মেয়ের সংসার তছনছ

সমীকরণ প্রতিবেদন
নভেম্বর ১৩, ২০১৬ ১২:৩০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

WERWERগাংনী অফিস: মেহেরপুরের গাংনীতে এক মায়ের রাগের বলি হচ্ছেন নিজের মেয়ে। মায়ের মিথ্যা মামলায় মেয়ের সংসার তছনছ হতে চলেছে। জানা গেছে, গাংনী উপজেলার মাইলমারী গ্রামের সাইফুল ইসলামের মেয়ে রাখি খাতুনের সাথে একই উপজেলার ভোলারদার গ্রামের আব্দুর রহমান ওরফে বারেকের ছেলে শাকিল হোসেনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে ভালোই চলছিল তাদের সংসার। সম্প্রতি সময়ে গত কয়েকদিন আগে থেকে জামাই ও শ্বাশুরীর সর্ম্পক ভালো যাচ্ছিল না। আর এই রাগে জামাইকে শায়েস্তা করতে মিথ্যা অপহরণ মামলা কষে দিলেন শ্বাশুরী রাফিয়া বাদি হয়ে। সাথে সাথে তদন্ত ছাড়াই বেরসিক পুলিশ সংসার করা অবস্থায় রাখিকে তুলে নিয়ে আসে থানায়। গত শুক্রবার বিকেলে গাংনী থানার এসআই শহিদুল ইসলাম সঙ্গীয় র্ফোসসহ শাকিলের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে রাখিকে উদ্ধার করে। তবে এসময় শাকিল ও তার পিতা আব্দুর রহমান উপস্থিত ছিলেন না। এদিকে অপহৃত রাখি খাতুন জানান, গত ২৪-৮-১৬ ইং তারিখে আমার মা রাফিয়া খাতুন কুষ্টিয়া স্বর্ণপুর গিয়ে শাকিলের সাথে বিয়ে দেয়। কিন্তু বিয়ের পর ভালোই চলছিল তবে একটি বিষয়ে মায়ের সাথে আমার স্বামীর মত বিরোধ হয়। তাই সে আর চাইনি শাকিলের সাথে সংসার করি। আমাকে তালাক দিতে বলে কিন্তু আমি তালাক না দিয়ে তার বাড়ি গিয়ে আবার নতুন করে সংসার শুরু করি। আর এদিকে আমার মা অপহরণের মিথ্যা মামলা করেছে। গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আনোয়ার হোসেন, আদালতে অপহরণ মামলা করেছেন, রাফিয়া খাতুন বাদি হয়ে শাকিল, তার পিতা আব্দুর রহমান ও মা সাবিনাসহ তিনজনকে আসামী করে। মামলা নং-৬ তাং-৮-১১-১৬ ইং। মামলার দায়িত্ব পান এসআই শহিদুল ইসলাম। তিনি শুক্রবার বিকেলে অভিযান চালিয়ে অপহৃত রাখি খাতুনকে উদ্ধার করে। তবে রাখি খাতুন জানিয়েছে, তিনি অপহৃত হননি। সে স্বামীর সংসার করছিলেন। রাকি খাতুনকে আদালতে সোর্পদ করা হবে। তার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন আদালত।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।