চুয়াডাঙ্গা বৃহস্পতিবার , ১৯ জানুয়ারি ২০২৩
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গাংনীতে বন্ধ হতে চলেছে দশ পরিবারের যাতায়াতের একমাত্র পথ

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
জানুয়ারি ১৯, ২০২৩ ৪:০৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

Girl in a jacket

সমীকরণ প্রতিবেদক:
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার নওপাড়া গ্রামের ১০টি পরিবারের চলাচলের একমাত্র পথটি বন্ধ হতে চলেছে। এলজিএসপি-৩, প্রকল্পের ২০১৮-১৯ অর্থবছরে নওপাড়া গ্রামের হঠাৎপাড়া পিচ রাস্তার খালেকের বাড়ী হতে কোরবান আলীর বাড়ি অভিমুখের রাস্তাটি দুই লাখ টাকা বরাদ্দে হেরিং বোন বন্ড (এইচবিবি) করণ করা হয়। রাস্তটি ওই এলাকায় অবস্থিত কবরস্থানে প্রবেশের ও বেশকিছু পরিবারের যাতায়াতের একমাত্র পথ। স্থানীয়দের অভিযোগ রাস্তাটিতে প্রাচীর ও গেট নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে কবরস্থান কমিটি। ইতিমধ্যে সেখানে প্রাচীর নির্মাণের কাজও চলছে। করবস্থানের প্রবেশ পথের রাস্তায় সীমানা প্রাচীর ও গেট নির্মাণ করার ফলে এলাকার সাধারণ মানুষের চলাচলের একমাত্র পথটি বন্ধ হয়ে যাবে।
ভুক্তভোগীরা জানান, কবরস্থানের স্বার্থে স্থানীয়রা ব্যক্তি উদ্যোগে কবরস্থানের প্রবেশপথ ও যাতায়াতের জন্য রাস্তার জমি ক্রয় করে। উক্ত প্রবেশ পথের রাস্তা সরকারি ভাবে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এইচবিবি করণ করা হয়। কিন্তু বর্তমানে কবরস্থান কমিটি ক্ষমতার প্রভাব ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে প্রবেশ পথের চারপাশে প্রাচীর নির্মাণ করছে। এছাড়াও প্রবেশ পথের প্রথম মাথায় গেট নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তারা আরও জানান, চলাচলের একমাত্র রাস্তাটি বন্ধ হয়ে গেলে আটকা পড়ে যাবে ১০টি পরিবারের সদস্যরা।
এবিষয়ে কবরস্থান কমিটির সদস্যদের সাথে যোগাযোগ করা হলে বেশ কয়েকজন সদস্য জানান, রাস্তায় প্রাচীর ও গেট নির্মাণ করে লোকজনের চলাচলের পথ বন্ধ হোক আমরা এমনটা চায় না। তবে এই রাস্তায় কেন প্রাচীর ও গেট নির্মাণ করা হবে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে তারা বলেন, কমিটিতে ৪০জন সদস্য আছে। রাস্তায় প্রাচীর ও গেট নির্মাণের সিদ্ধান্তে সবার মতামত নেওয়া হয়নি। এমনকি সভাপতি, সেক্রেটারিকে আড়ালে রেখেই, সমজান, রাজ্জাক, ইদু, মচলেম ও পাঞ্জাবসহ ৫জন সদস্য মিলে কবরস্থানের প্রবেশ পথের ও এলাকার কিছু লোকের চলাচলের একমাত্র এই রাস্তায় প্রাচীর ও গেট নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সামাজিক দৃষ্টিতে যা মোটেও কাম্য নয়।
এবিষয়ে স্থানীয় ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আনারুল ইসলাম বলেন, ‘আমিও রাস্তায় প্রাচীর ও গেট নির্মাণের সিদ্ধান্তে একমত নয়। ভুক্তভোগীরা আমাকে ও ইউপি চেয়ারম্যানকে বিষয়টি অবহিত করেছে এবং আমি রাস্তায় প্রাচীর ও গেট নির্মাণ করতে নিষেধ করেছি।’
এবিষয়ে কাথুলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান রানার সঙ্গে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ (গ্রহণ) করেননি।

 

Girl in a jacket

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।