খেয়াল রাখতে হবে ‘ভারত ভেরিয়েন্ট’ যেন প্রবেশ না করে

41

চুয়াডাঙ্গায় সহায়তা বিতরণ সংক্রান্ত জেলা কমিটির সভায় সচিব নাজমানারা খানুম
নিজস্ব প্রতিবেদক:
করোনায় কর্মহীন হয়ে পড়া ব্যক্তিদের মধ্যে মানবিক সহায়তা বিতরণ কার্যক্রম সংক্রান্ত চুয়াডাঙ্গা জেলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার বেলা ১১টায় চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় জুম ক্লাউড অ্যাপে সংযুক্ত থেকে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন করোনা প্রতিরোধে চুয়াডাঙ্গা জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, মানুষের জীবন আগে বাঁচাতে হবে। স্বাস্থ্য-সচেতনতা বৃদ্ধি করা, স্বাস্থ্য-সুরক্ষা এবং নিয়ম-নীতি মেনে নিজেকে ও অন্যকে সুরক্ষা করতে হবে। দেশের মানুষের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড যেন সচল থাকে, এ বিষয়ে সরকার যথেষ্ট সচেতন। তবে মানুষের জীবনটা আগে। তিনি আরও বলেন, করোনাকালে কেউ না খেয়ে থাকবে না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী নেতৃত্বে এখনো কেউ না খেয়ে মারা যায়নি। পর্যাপ্ত খাদ্য সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। পাশের দেশ ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ব্যাপকভাবে বেড়েছে। চুয়াডাঙ্গা সীমান্তবর্তী জেলা হওয়ায় ভারতের ভেরিয়েন্ট চুয়াডাঙ্গায় যেন না প্রবেশ করে সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে। দর্শনা চেকপোস্ট বন্ধ। তবুও সতর্ক থাকতে হবে। আমি প্রতিদিন জেলাভিত্তিক যে প্রতিবেদন পাই, সে অনুযায়ী চুয়াডাঙ্গার পরিস্থিতি অনেক জেলার থেকে ভালো আছে।
সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার। সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, প্রশাসন সব সময় করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া খাদ্য-সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। সরকারিভাবে পাওয়া বরাদ্দ উপজেলা পর্যায়ে বণ্টন করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত চুয়াডাঙ্গার পরিস্থিতি ভালো আছে। ভারত ফেরত এক ব্যক্তি চুয়াডাঙ্গায় এসেছেন। তিনি করোনা পজিটিভ। সদর হাসপাতালের প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে তিনি ভর্তি আছেন। চুয়াডাঙ্গার মানুষ বেশ সচেতন। তারপরও যারা স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না, তাঁদের বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্টে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে আমরা কাজ করছি।
সভায় জুম ক্লাউড অ্যাপে যুক্ত থেকে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম। তিনি বলেন, চুয়াডাঙ্গার পরিস্থিতি এখনো পর্যন্ত বেশ ভালো আছে। পুলিশ সংক্রমণ রোধে মাঠ পর্যায়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধিসহ সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়নে কাজ করছে। পুলিশের পক্ষ থেকে মাস্ক বিতরণসহ স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে সচেতনতামূলক কাজ করা হচ্ছে।
সভায় জুম ক্লাউড অ্যাপে যুক্ত থেকে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে দেন চুয়াডাঙ্গার সিভিল সার্জন ডা. মারুফ হাসান জানান, চুয়াডাঙ্গার সংক্রমণ তুলনামূলক কম। স্বাস্থ্যবিভাগ করোনার ভ্যাকসিন কার্যক্রমসহ নিয়মিত আক্রান্ত রোগীদের সেবা দিচ্ছে।
সভায় আরও বক্তব্য দেন চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন ও সাংবাদিক শাহ আলম সনি। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মনিরা পারভীন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সাজিয়া আফরিন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) আবু তারেক, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিকুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সি আলমগীর হান্নান, নেজারত ডেপুটি কালেক্টর আমজাদ হোসেনসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, সাংবাদিক, রাজনৈতিক ব্যক্তিসহ সংশ্লিষ্ট কমিটির অন্যান্য সদস্যবৃন্দ।