কোটাচঁদপুরে সাদা পোশাকে যুবলীগ নেতাকে উঠিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

356

werwe

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলার লক্ষিপুর গ্রাম থেকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দোড়া ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বর ও যুবলীগের ওয়ার্ড সভাপতি আব্দুল হালিম (৪৭) কে ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে তুলে নিয়ে গেছে। তিনি একই গ্রামের মৃত জবুরুদ্দীন মন্ডলের ছেলে। হালিমের ভাই আব্দুর রাজ্জাক অভিযোগ করেন, বৃহস্পতিবার লক্ষিপুর বাজারে নিজের দোকান আল-আমিন সু স্টোরে বসে থাকা অবস্থায় সাদা পোশাকের লোকজন নিজেদের ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে তাকে তুলে নিয়ে যায়। আব্দুর রাজ্জাক জানান, তার ভাই এক সময় নিষিদ্ধ ঘোষিত চরমপন্থি সংগঠনের সাথে জড়িত থাকলেও অনেক দিন থেকে স্বাভাবিক জীবন যাপন করছেন। গত ইউপি নির্বাচনে আব্দুল হালিম বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় দোড়া ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের মেম্বর নির্বাচিত হন। তার বিরুদ্ধে নতুন কোন মামলা নেই। আব্দুল হালিম ৩ নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন বলে নিশ্চিত করেন কোটচাঁদপুর উপজেলা যুবলীগের সদস্য একই গ্রামের আশরাফুল আলম। বিষয়টি নিয়ে কোটচাঁদপুর থানার ওসি আহম্মেদ কবীর জানান, আমার থানার কোন পুলিশ তাকে আটক করেনি। তবে আমি লোকমুখে হালিম মেম্বরকে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে কে বা কারা তুলে নিয়ে যাওয়ার খবর শুনেছি। তিনি আরো জানান, আব্দুল হালিম স্বাভাবিক জীবন যাপন করছিলেন। আমার জানামতে গত ১০ বছরে তার বিরুদ্ধে কোটচাঁদপুর থানায় কোন মামলা নেই। ওসি জানান আব্দুল হালিম প্রতি সপ্তাহে থানায় হাজিরা দিতেন। এদিকে হরিণাকুন্ডু উপজেলার নির্বাহী অফিসের সার্টিফিকেট সহকারী কাওছার আলী ও কালীগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদকে সাদা পোশাকে উঠিয়ে নিয়ে যাওয়ার পর পুলিশ তাদের গ্রেফতার দেখিয়ে বুধবার আদালতে সোপর্দ করেছে। প্রথম দিকে পুলিশ তাদের আটকের কথা অস্বীকার করেছিলো। কালীগঞ্জ থানার ওসি আমিনুল ইসলাম জানান, আবু সাঈদ ও কাউছার সরকার দলীয় এমপি আনোয়ারুল আজিম আনার হত্যার ষড়যন্ত্র করছিলেন। আদালতে তারা স্বীকারোক্তিমূলক জবাববন্দিও দিয়েছেন। এ ঘটনায় বিপ¬বী কমিউনিস্ট পার্টির সাবেক সদস্য হরিণাকুন্ডু উপজেলার কেষ্টপুর গ্রামের আজিজুল হক, যশোরের খাজুরা গ্রামের মিলন ও মাসুম নামে তিন ব্যক্তিকে পুলিশ খুঁজছে বলেও ওসি জানান। তবে হরিণাকুন্ডুর কেষ্টপুর গ্রামের আব্দুল আজিজকে ৭ দিন আগেই ডিবি পুলিশ পরিচয়ে কে বা কারা উঠিয়ে নিয়ে গেছে বলে হরিণাকুন্ডু থানার ওসি মাহাতাব হোসেন জানান।