চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ৬ আগস্ট ২০১৬

কোটচাঁদপুরের সিটি ক্লিনিক এ্যন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে প্রসুতি মায়ের মৃত্যু

সমীকরণ প্রতিবেদন
আগস্ট ৬, ২০১৬ ২:৪৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

কোটচাঁদপুর প্রতিনিধি: কোটচাঁদপুরের সিটি ক্লীনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে  প্রসুতি মায়ের মৃত্যু হয়েছে। শুকবার বিকালে স্থানীয় হাসপাতাল সড়কে অবস্থিত ক্লিনিকে মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এদিকে ক্লীনিক কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে মৃতের পরিবারকে ম্যানেজ করার অভিযোগ উঠেছে। জানা যায়, উপজেলার লক্ষিপুুর গ্রামের কামাল হোসেনের স্ত্রী ডিনা খাতুন (৩৫)। গেল ৩ জুলাই সিজারিয়ান অপারেশনের জন্য কোটচাঁদপুর সিটি ক্লীনিকে ভর্তি হন। ওইদিন ডাক্তার কামরুন নাহার অপারেশন করে তাঁর বাচ্চা প্রসাব করান। এরপর থেকে ক্লীনিক কতৃপক্ষ তাঁর চিকিৎসা চালাতে থাকে। গেল ৩ জুলাই বিকালে তাঁর অবস্থার অবনতি হলে তাকে যশোরে রেফার্ড করে দেন। এরপর যশোরে যাওয়ার পথে তাঁর মৃত্যু হয়। এ ব্যপারে রোগীর স্বামীর সঙ্গে কথা বলার জন্য যোগাযোগ করে পাওয়া যায়নি। কথা হয় ক্লিনিকের মালিক মোহাম্মদ আলীর সঙ্গে তিনি বলেন, অপারেশনের ৩ দিন পর এ রোগী মারা গেল। তাঁর ভিতরে কোন সমস্য ছিল। আমরা অবস্থা খারাপ দেখে রোগী রেফার্ড করে দিই। পথিমধ্যে তাঁর মৃত্যু হয়েছে। এ দিকে বিষয়টি নিয়ে ডাক্তার কামরুন নাহার বলেন, অপারেশনের সময় তাঁর সমস্যা দেখা দেয়। এরপরও অপারেশন যথাসাধ্য ভাল করার চেষ্টা করা হয়। দীর্ঘ সময় ধওে এ অপারেশন করায় বেশি রক্ত ক্ষরণ ঘটে। এতে সে বেশি দুর্বল হয়ে পড়ে। আজ তাঁর শরীরে ব্লাড দেয়ার কথা ছিল। পরে শুনতে পারি ওই রোগী যশোরে নেবার পথে মারা গেছে। এ দিকে রোগী মৃত্যুর  ঘটনা ধামাচাপা দিতে ক্লীনিক কতৃপক্ষ মোটা অংকের অর্থের বিনিময় করেছে বলে জানা গেছে। কথা হয় কোটচাঁদপুর থানা অফিসার্স ইনচার্জ আহম্মেদ কবির হোসেনের  সঙ্গে, তিনি জানান এ ব্যাপারে এখনও পর্যন্ত থানায় কোন অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।