করোনা জয় করে ফেরা হলো না বাড়ি, ওষুধ ব্যবসায়ী মিলনের মৃত্যু

172

নিজস্ব প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল রোডের ওষুধ ব্যবসায়ী মিলন ফার্মেসির স্বত্বাধিকারী এস এম মিলন ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন। গতকাল বুধবার বিকেলে তাঁর মৃত্যু হয়। এস এম মিলন চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার গুলশানপাড়ার মৃত আনোয়ার বিডিয়ারের ছেলে। জানা যায়, ১৭ দিন আগে মিলন হঠাৎ অসুস্থ হলে তাঁকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন পরিবারের সদস্যরা। দুদিন পর তাঁর করোনা পজিটিভ আসে। এরপর থেকে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। গত সোমবার তাঁর নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য আবার পাঠানো হলে গত বুধবার তাঁর করোনা রির্পোট নেগেটিভ আসে। তবে করোনা সেরে গেলেও তার লিভারজনিত সমস্যা ধরা পরে। যার কারণে তিনি হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন ছিলেন। এরমধ্যেই গতকাল সকাল থেকে মিলনের আবারও প্রচন্ড শ্বাসকষ্ট শুরু হলে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে ঢাকায় রেফার্ড করেন। এরপর মিলনের পরিবারের সদস্যরা তাকে অ্যাম্বুলেন্সযোগে ঢাকায় নেওয়ার পথিমধ্যে রাজবাড়ির দৌলৎদিয়া ফেরি ঘাটে পৌছে ফেরিতে উঠার পরেই তিনি মৃত্যুবরণ করেন।
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. সাজিদ হাসান বলেন, তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন ছিলেন। ১৪ দিন পার হওয়ার পর আবার নমুনা পাঠালে গত বুধবার রাতে তাঁর করোনা রির্পোট নেগেটিভ আসে। তবে লিভার জনিত সমস্যা দেখা দেয়। এরমধ্যেই গতকাল সকাল থেকে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে ঢাকায় রেফার্ড করা হয়। ঢাকায় যাওয়ার পথেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে।
এদিকে, মিলনের মরদেহ বাড়িতে নিয়ে আসলে শোকের ছায়া নেমে আসে। আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় জান্নাতুল মাওলা জামে মসজিদে জানাযার নামাজ শেষে জান্নাতুল মাওলা কবরস্থানে তাঁর দাফনকার্য সম্পন্ন করা হবে বলে জানিয়েছেন পরিবারের সদস্যরা। এদিকে তাঁর মৃত্যুতে দৈনিক সময়ের সমীকরণ পত্রিকার বার্তা সম্পাদক হুসাইন মালিকসহ বিভিন্ন পর্যায়ের রাজনৈতিক-সামাজিক নেতৃবৃন্দ শোক প্রকাশ করেছেন।