চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ৩১ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ওষুধ কোম্পানির রিপ্রেজেন্টেটিভসহ তিনজনের মর্মান্তিক মৃত্যু

চুয়াডাঙ্গায় ট্রাক ওভারটেক করতে গিয়ে সামনে থেকে মোটরসাইকেলের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ
সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
জুলাই ৩১, ২০২২ ৩:১৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

কোনো অভিযোগ না থাকায় তিনজনের মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে : ওসি মাহাব্বুর রহমান

নিজস্ব প্রতিবেদক:  চুয়াডাঙ্গায় দুই মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে ওষুধ কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধিসহ তিনজন নিহত ও একজন আহত হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুর সোয়া একটার দিকে চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার জাফরপুর যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে চুয়াডাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট স্থানীয়দের সহায়তায় দুর্ঘটনার শিকার চারজনকে দ্রুত উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়। পরে জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দুজনকে মৃত ঘোষণা করেন ও জখম অপর দুজনকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে ভর্তি রাখেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বেলা ৩ টা ১৫মিনিটের সময় আরো একজনের মৃত্যু হয়। নিহতরা হলেন- চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার নুরনগর কলোনিপাড়ার রিকাত আলীর ছেলে মিঠু হোসেন (৩০), একই এলাকার ফার্মপাড়ার সিরাজুল ইসলামের ছেলে টুনু হোসেন ওরফে আনন্দ (২২) ও সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লাপাড়া থানার শ্রী মনোরঞ্জন হালদারের ছেলে ও এভারেস্ট ফার্মাসিটিউক্যালস কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধি শ্রী মুক্তা হালদার (২৮)। এছাড়া আহত রনি হোসেন (৩৫), রাজশাহী জেলার বাগমারা থানার মনোহরপুর গ্রামের আলাউদ্দীন বিশ্বাসের ছেলে ও এভারেস্ট ফার্মাসিটিউক্যালস গ্রুপের বিক্রয় প্রতিনিধি। কর্মসূত্রে শ্রী মুক্তা হালদার ও রনি হোসেন চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার গুলশানপাড়ায় ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দুপুর ১টার দিকে চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার কলোনিপাড়া থেকে একই মোটরসইকেলযোগে মিঠু হোসেন ও টুনু হোসেন ওরফে আনন্দ সরোজগঞ্জ বাজারের দিকে যাচ্ছিলেন। অপরদিকে অন্য একটি মোটরসাইকেলযোগে এভারেস্ট ফার্মাসিটিউক্যালস কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধি শ্রী মুক্তা হালদার ও রনি হোসেন কাজ শেষে (ভিজিট) চুয়াডাঙ্গার শহরের দিকে ফিরছিলেন। পথের মধ্যে জাফরপুর যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সামনে পৌঁছালে একটি ট্রাককে ওভারটেক করার পরেই দুই মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে উভয় মোটরসাইকেলের চালকসহ চারজনই গুরুতর জখম হয়। এসময় স্থানীয় ব্যক্তিরা ফায়ার সর্ভিসে খবর দেয়। খবর পেয়ে চুয়াডাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট স্থানীয়দের সহায়তায় দুর্ঘটনার শিকার চারজনকেই দ্রুত উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়। জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে মিঠু হোসেন ও টুনু হোসেন ওরফে আনন্দকে মৃত ঘোষণা করেন। গুরুতর জখম শ্রী মুক্তা হালদার ও রনি হোসেনকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা ও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। তবে অ্যাম্বুলেন্সে নেওয়ার পূর্বেই হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শ্রী মুক্তা হালদারের মৃত্যু হয়।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এভারেস্ট ফার্মাসিটিউক্যালস কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধি রনি হোসনে জানান, প্রতিদিনের ন্যায় ভিজিট শেষে মোটরসাইকেলেযোগে শ্রী মুক্তা হালদার ও তিনি সরোজগঞ্জের দিক থেকে চুয়াডাঙ্গা শহরের দিকে ফিরছিলেন। মোটরসাইকেলটি চালিয়ে নিয়ে আসছিলেন মুক্তা হালদার। পথের মধ্যে যুব উন্নয়নের সামনে পৌঁছালে একটি ট্রাককে ওভারটেক করে সামনে থেকে অপর একটি মোটরসাইকেল তাদের মোটরসাইকেলেকে স্বজোরে ধাক্কা দেয়। এতে তারা রাস্তায় পড়ে জ্ঞান হারায়। এরপর কি হয়েছে তেমন কিছু মনে নেই বলেও জানান রনি।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. শাপলা খাতুন বলেন, ‘দুপুর দেড়টার দিকে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট সড়ক দুর্ঘটনার শিকার চারজনকে রক্তাক্ত জখম অবস্থায় জরুরি বিভাগে নেয়। তবে চারজনের মধ্যে জরুরি বিভাগে দুজনকে মৃত অবস্থায় পেয়েছি। হাসপাতালে নেওয়ার পূর্বেই তাদের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও গুরুতর জখম দুজনকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে ভর্তি রাখা হয়। এরমধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। তবে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বেলা তিনটা ১৫মিনিটের দিকে তারও মৃত্যু হয়।

এদিকে, বেলা সাড়ে তিনটার দিকে রনি হোসেনের উন্নত চিকিৎসার জন্য পরিবারের সদস্যরা তাকে নিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপতালের উদ্যেশ্যে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল ত্যাগ করে।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাহাব্বুর রহমান কাজল বলেন, ‘সদর থানাধীন জাফরপুর যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সামনে দুই মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে উভয় মোটরসাইকেলের তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। আহত রনি হোসেন ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছে। তবে নিহতদের পরিবারের কারো পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ না থাকায় বিকেলে তিনজনের মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।’

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।