চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ১১ ডিসেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ওটিপি ভেরিফিকেশনের সময় চুরি হচ্ছে আপনার ফোনের তথ্য!

প্রযুক্তি প্রতিবেদন:
ডিসেম্বর ১১, ২০২১ ১১:৪৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

প্রায় সবার মোবাইলেই এখন ইন্টারনেট। আর তাই গুগল, হোয়াটস্যাপ, টুইটার এবং অনান্য ওয়েবসাইট ব্যবহার করা খুবই স্বাভাবিক। যারা বিভিন্ন কাজে ওই ওয়েবসাইট এবং অ্যাপগুলো ব্যবহার করেন তাদের ফোনে মাঝে মাঝেই আসতে থাকে ওটিপি বা ওয়ান টাইম পাসওয়ার্ড। কোনও বিশেষ ফিচার চালু করতে বা পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করতে এবং অনান্য কাজের জন্য প্রয়োজন সেই পাসওয়ার্ডের। এবার ওই ওটিপি নিয়েই চিন্তা বাড়লো। যে সংস্থা ওই ওটিপি ম্যানেজমেন্ট করে সেই সংস্থার বিরুদ্ধে নজরদারি চালানোর অভিযোগ উঠলো। লন্ডনের একটি সংবাদ সংস্থার রিপোর্টে ওই অভিযোগ তোলা হয়েছে। গুগল, হোয়াটস্যাপ, টুইটার এর ওটিপি ম্যানেজ করে সুইৎজারল্যান্ডের এমআইটিটিও নামে একটি সংস্থা। এছাড়াও লিংকডইন এবং টেলিগ্রাম এরও ওটিপি ম্যানেজ করে ওই সংস্থা। এবিষয়ে একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে লন্ডনের একটি ননপ্রফিট অর্গানাইজেশন ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন জার্নালিজম। তাদের রিপোর্টে জানা গেছে, এমআইটিটিও-র যে নেটওয়ার্ক রয়েছে তা নজরদারির কাজেও ব্যবহার করা হয়। ওই রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, বিভিন্ন নজরদারি সংস্থার সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে এমআইটিটিও। যারা সরকারি বিভিন্ন এজেন্সির হয়ে কাজ করে। এমআইটিটিও এজি-র সদর দফতর সুইৎজারল্যান্ডে। যাদের সঙ্গে প্রায় ১০০টি টেলিকম অপারেটর যুক্ত রয়েছে। গোটা বিশ্বে টেক জায়ান্টগুলোর ওটিপি ম্যানেজমেন্টের দায়িত্ব রয়েছে তাদের উপর। তাই বিভিন্ন টেলিকম সংস্থার সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করে এমআইটিটিও এজি। টিবিআইজে যে রিপোর্ট প্রকাশ করেছে তাতে অভিযোগ করা হয়েছে, এসএস৭ প্রোটোকল ব্যবহার করে এমআইটিটিও এজি। এই প্রোটোকলের মাধ্যমে কোনও ওটিপি ব্যবহারকারীর লোকেশন ট্র্যাক করা সম্ভব। একই সঙ্গে ওটিপি গ্রাহকদের মেসেজ বক্সের মধ্যে ঢুকে মেসেজ রিড করতে পারে সংস্থাটি। এসএস৭ প্রোটোকলটি বিভিন্ন টেলিকম সংস্থাও ব্যবহার করে। বিশ্বজুড়ে যে সব টেলিকম সংস্থা রয়েছে তারা যখন কোনও কল একটি নেটওয়ার্ক থেকে অন্য নেটওয়ার্কের মধ্যে কানেক্ট করে তখন এই প্রোটোকল ব্যবহার করা হয়। যদিও ওই রিপোর্ট প্রকাশ পাওয়ার পর পুরো অভিযোগ অস্বীকার করেছে এমআইটিটিও। ইতিমধ্যে তারা বিভিন্ন নজরদারি সংস্থা থেকে দূরত্ব বাড়াতে শুরু করেছে। এবিষয়ে সংস্থার তরফে বিবৃতি দিয়ে বলা হয়েছে, ‘আমাদের সংস্থার তরফে যে অভিযোগ তোলা হয়েছে তার জন্য আমরা খুব অবাক হয়েছি। এমআইটিটিও-র অতীতে এমন কোনও ডিভিশন ছিল না, এখনও নেই বা আগামীদিনেও থাকবে না যার মাধ্যমে টেলিকম নেটওয়ার্কের মাধ্যমে নজরদারির কাজ করে। বিশ্বব্যাপী যে কাস্টমার আমাদের রয়েছে তাদের সঠিক পরিষেবা দেওয়াই আমাদের লক্ষ্য।’ গুগল, হোয়াটস্যাপ, টুইটার, লিংকডইন এবং টেলিগ্রামএর মত সংস্থাগুলি এসএমএস বেসড ভেরিফিকেশন চালু রয়েছে। যার জন্য প্রয়োজন ওটিপি। সেই ওটিপি প্রদানের কাজ করে এমআইটিটিও।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।