এনাল ফিসার : প্রতিকার ও চিকিৎসা

30

এনাল ফিসার কী? খুব সহজ ভাষায় এনাল ফিসার হচ্ছে পায়ুপথ ছিড়ে যাওয়া। মহিলারা এই রোগটিতে বেশি আক্রান্ত হয়।
কীভাবে ঘটে? পায়খানা অস্বাভাবিক কঠিন হলে, তাড়াহুড়া করে টয়লেট করতে গেলে কিংবা টয়লেটের সময় অতিরিক্ত চাপ প্রয়োগ করলে, মহিলাদের বাচ্চা ধারনের সময় অথবা প্রসবের সময় চাপ প্রয়োগ করলে পায়ুপথ ছিড়ে যেতে পারে, জন্মগতভাবে এনাল কেনাল অস্বাভাবিক হলে, কবিরাজি ঔষধ/মলম ব্যবহার করলে, মলদ্বারে ইনজেকশনের মাধ্যমে চিকিৎসা নিলে।
লক্ষণ: পায়ুপথের মিউকোসা ছিড়ে যাওয়ার পর ব্যথা হয়। এই ব্যথা ব্লেড দিয়ে কাটার মতো অথবা পিনের খোচার মতো পায়ুপথে জ্বালাপোড়া, ব্যথার জন্য টয়লেট করতে ভয়লাগে, চুলকানি মনে হয় কৃমি হয়েছে। মাংশের গোটারমত বের হওয়া। চক্রাকারে এ সমস্যা চলতে থাকলে, পায়ুপথ সংকুচিত হওয়া, অনেকক্ষণ টয়লেটে বসে থাকা অথবা দৈনিক দুই-তিনবার টয়লেটে যাওয়া তারপরেও মনে হয় পায়খানা সম্পূর্ণ না হওয়া।
এনাল ফিসার চিকিৎসা: প্রাথমিক পর্যায়ে চিকিৎসা হলো- ঔষধ, জীবন আচরণ ও অভ্যাস পরিবর্তন। মল নরম করার জন্য আঁশযুক্ত খাবার গ্রহণ এবং হিপ বাথ এটির নিয়ম হচ্ছে আধা গামলা কুসুম গরম পানি সাথে লবন অথবা ঠরড়ফরহ ঝড়ষঁঃরড়হ মিশিয়ে পানির মধ্যে মলদ্বার ডুবিয়ে ১০/১৫ মিনিট দৈনিক ২/৩ বার বসা এই রোগের প্রধান চিকিৎসা। পরবর্তী পর্যায়ে পায়ুপথ সংকুচিত হয়ে গেলে অপারেশনের মাধ্যমে এই রোগ সারা জীবনের জন্য নির্মূল করা হয়।অপারেশনের পরে কিছু দিনের মধ্যে স্বাভাবিক কাজে ফিরে যেতে পারেন।রোগীর অপারেশনের আগের তীব্র ব্যথা জ্বালাপোড়া তাৎক্ষনিক ভাবে কমে যায়। সারা জীবনের জন্য মলত্যাগের কষ্ট ভালো হয়ে যায়।আধুনিক পদ্ধতি ও চিকিৎসার মাধ্যমে রোগী সুস্থতা লাভ করে। তাই অবহেলা না করে সার্জারী বিশেষজ্ঞর পরামর্শ মত চিকিৎসা নিন ও সুস্থ জীবন যাপন করুন।

ডা. মো. আরিফুল ইসলাম
এমবিবিএস (ঢাকা) এফসিপিএস (সার্জারি)
কনসালট্যান্ট (সার্জারি), কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল
ফেলোঃ এন্ডোসকপি, ল্যাপারোস্কপি ও কলোরেক্টাল সার্জনস (ইন্ডিয়া)
চেম্বার: পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার, কুষ্টিয়া।
যোগাযোগ: ০১৪০৭-০৬২৫১৫