একই মাইক্রোবাসের ধাক্কায় দুজন আহত

55

দামুড়হুদার লোকনাথপুর ও দুধপাতিলায় দুই দফায় সড়ক দুর্ঘটনা
দর্শনা অফিস:
দামুড়হুদার লোকনাথপুর ও দুধপাতিলায় একই মাইক্রোবাসের ধাক্কায় আলমসাধু চালক নাজমুল হোসেন ও পথচারী শহিদুল ইসলাম নামের দুজন গুরুতর আহত হয়েছেন। আহতদের উদ্ধার করে দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল বুধবার রাত ৮টার দিকে দামুড়হুদা-দর্শনা সড়কের লোকনাথপুর মাদ্রাসা ও বেস্ট ব্রিকসের নিকটবর্তী স্থানে দুর্ঘটনাটি দুটি ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা পরানপুর গ্রামের ছাইজোর ছেলে আলমসাধু চালক নাজমুল হোসেন (১৮) দামুড়হুদা থেকে দর্শনার উদ্দেশ্যে আসছিলেন। পথের মধ্যে দামুড়হুদা-দর্শনা সড়কের লোকনাথপুর মাদ্রাসা ও বেস্ট ব্রিকসের নিকটবর্তী স্থানে পৌঁছালে একই দিক থেকে আসা একটি মাইক্রোবাস (ঢাকা মেট্রো-চ-৫৬-৩৭৪৫) আলমসাধুকে পিছন দিক থেকে ধাক্কা দিলে আলমসাধু চালক নাজমুল হোসেন মাটিতে লুটিয়ে পড়ে গুরুতর আহত হন। এসময় স্থানীয় লোকজন ও দর্শনা ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে আহত নাজমুলকে উদ্ধার করে দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।
পরে মাইক্রোবাসটি দুধপাতিলা গ্রামের মধ্যদিয়ে পালানোর সময় বড় দুধপাতিলা গ্রামের তেমাথা মোড়ের বটতলা জমশেদের চায়ের দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা গ্রামের পূর্বপাড়ার মৃত শফিউদ্দিনের ছেলে শহিদুল ইসলামকে (৫০) ধাক্কা দিলে তিনিও গুরুতর আহত হন। স্থানীয় লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। মাইক্রোবাসটি দ্বিতীয় দফায় দুর্ঘটনার পর গ্রামবাসী মাইক্রোবাসটির ধাওয়া করলে পথের মধ্যে দর্শনা-দুধপাতিলা সড়কের আরাম ব্রিকসের নিকট জনতার হাতে আটক হয়। স্থানীয় লোকজন মাইক্রোবাসটি আটক করতে সক্ষম হলেও মাইক্রোবাসটি ফেলে রেখে কৌশলে চালক পালিয়ে যান। পরে ঘটনাস্থল থেকে মাইক্রোবাসটি উদ্ধার করে দর্শনা থানার পুলিশ। দুর্ঘটনার শিকার মাইক্রোবাসটিও ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়।
দর্শনা ফায়ার সার্ভিস স্টেশন অফিসার জাফর শেখ জানান, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে একজনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করি।