চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ২০ আগস্ট ২০১৬

এইচএসসির ফলাফল : ব্যর্থ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

সমীকরণ প্রতিবেদন
আগস্ট ২০, ২০১৬ ৭:০৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট বা এইচএসসি এবং সমমানের পরীক্ষায় চলতি বছর দৃশ্যত ভালো ফল করেছে পরীক্ষার্থীরা। আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, মাদ্রাসা ও কারিগরি বোর্ডের অধীনে ৮ হাজার ৩৪৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মোট ১২ লাখ ৩ হাজার ৬৪০ জন শিক্ষার্থী চলতি বছরের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নেয়। এর মধ্যে ৮ লাখ ৯৯ হাজার ১৫০ জন পাস করেছে। পাসের হার ৭৪ দশমিক ৭ শতাংশ। গত বছর পাসের হার ছিল ৬৯ দশমিক ৬ শতাংশ। এই হিসাবে পাসের হার বেড়েছে ৫ দশমিক ১ শতাংশ। এ বছর সর্বোচ্চ ফলাফল জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫৮ হাজার ২৭৬ জন শিক্ষার্থী। গত বছর যার সংখ্যা ছিল ৪২ হাজার ৮৯৪। ফলাফল দৃষ্টে এ বছর জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে তাৎপর্যপূর্ণ অগ্রগতি ঘটেছে। ১০টি বোর্ডের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় ফলাফলের ক্ষেত্রে এই উন্নতি সম্ভব হয়েছে যশোর বোর্ডে পাসের হার ব্যাপকভাবে বেড়ে যাওয়ার কারণে। অন্য সব বোর্ডে গত বছরের মতো প্রায় একই ধরনের সাফল্য অর্জিত হলেও যশোর বোর্ডে পাসের হার বেড়েছে ৩৭ শতাংশ। যা সব বোর্ডের গড় পাসের হার ৫ শতাংশেরও বেশি বৃদ্ধিতে অবদান রেখেছে। ইংরেজিতে সব বোর্ডের শিক্ষার্থীরা গতবারের চেয়ে ভালো করেছে। এর মধ্যে যশোর বোর্ড চমক দেওয়ার মতো সাফল্য অর্জন করেছে। এ বোর্ডে গত বছরের চেয়ে ৩৯ শতাংশের বেশি শিক্ষার্থী ইংরেজিতে পাস করেছে। যশোর বোর্ডে গত বছর ফেল করা প্রায় ৩৫ হাজার শিক্ষার্থী শুধুমাত্র একটি বিষয়ে পরীক্ষা দিয়েছে। তাদের প্রায় সবাই পাস করায় ফলাফলের ওপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। ফলাফলে ব্যাপক উন্নতি হওয়া সত্ত্বেও এক-চতুর্থাংশের বেশি শিক্ষার্থীর ফেল নিঃসন্দেহে অনাকাঙ্ক্ষিত ও দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা। শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় পাস করবে এটিই স্বাভাবিক, ফেলের মধ্যে রয়েছে ঘোরতর অস্বাভাবিকতা। কোনো শিক্ষার্থী স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় পড়াশোনা করলে তার ফেল করার প্রশ্ন ওঠাও অবান্তর। কলেজ বা সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তদারকির অভাবে এবং অন্যান্য ত্র“টির কারণে যে বিপুলসংখ্যক পরীক্ষার্থী ব্যর্থ হয়েছে তা একটি অনুমানযোগ্য বিষয়। এ অবস্থার অবসানে যে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাসের হার একেবারে নিম্নপর্যায়ে সে সব প্রতিষ্ঠানের ওপর নজরদারি বাড়াতে হবে। এইচএসসি পরীক্ষায় যারা ভালো ফল করেছে তারা যাতে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে মানসম্মত প্রতিষ্ঠানগুলোতে পড়ার সুযোগ পায় সেদিকে সংশ্লিষ্টদের নজর দিতে হবে। এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের প্রতি আমাদের অভিনন্দন ও শুভ কামনা।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।