চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ৩ ডিসেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ঋণ ও আমানতের সুদ বাড়ছে

মূল্যস্ফীতির চাপে ঋণের সুদ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত
সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
ডিসেম্বর ৩, ২০২২ ৯:৩২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

Girl in a jacket

সমীকরণ প্রতিবেদন:
মূল্যস্ফীতির চাপ মোকাবিলায় ঋণের সুদ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। আগামী বছরের প্রথম দিন থেকে কার্যকর হতে পারে নতুন সুদহার। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন ব্যাংকাররা। প্রথমে বাড়বে এসএমই ঋণের সুদ। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক মনে করছে, সীমা প্রত্যাহারের মাধ্যমে সুদহার মুদ্রা বাজারের ওপর ছেড়ে দিলে ব্যাংকগুলোতে মূল্যস্ফীতির চাপ কিছুটা হলেও কমবে। পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রথমে ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা (এসএমই) ঋণের সুদহারের সীমা প্রত্যাহার করা হবে। পরবর্তীতে চলতি মূলধন ঋণ ও মেয়াদি শিল্প ঋণের সুদহারের সীমা তুলে নেওয়া হবে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, বর্তমানে ব্যাংকগুলো ৭ দশমিক ৫ শতাংশ পর্যন্ত সুদে আমানত সংগ্রহ করছে। কিন্তু ঋণ বিতরণ করতে হচ্ছে ৯ শতাংশ সুদেই। ফলে ব্যাংকের নেট মুনাফা থাকছে না। একই সঙ্গে সুদহারের সীমা তুলে দেওয়ার চাপ রয়েছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলেরও। সবকিছু মিলে ঋণের সুদহারের সীমা প্রত্যাহার করা হবে। তখন বাড়বে আমানতের সুদও।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র জানিয়েছে, বাজার ব্যবস্থার ম্যাধমে নির্ধারিত সুদহার বাস্তবায়নের প্রথম উদ্যোগ হিসেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক অনানুষ্ঠানিক ভাবে ব্যাংকগুলোকে ভোক্তা ঋণের সুদের হার বাড়ানোর অনুমতি দিয়েছে গত অক্টোবরে। ব্যাংকগুলো বর্তমানে ১২ শতাংশ পর্যন্ত সুদে ভোক্তা ঋণ বিতরণ করছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, সম্প্রতি অনুষ্ঠিত বৈঠকে সব ধরনের ঋণের সুদহারের সর্বোচ্চ সীমা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংক ইতোমধ্যেই ভোক্তা ঋণের সুদহার বাড়ানোর জন্য বেসরকারিভাবে ব্যাংকগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে। আগামী বছরের প্রথম দিন হতে পর্যায়ক্রমে সুদহারের সীমা প্রত্যাহারের পরিকল্পনা রয়েছে।
তিনি আরও বলেন, মুদ্রাস্ফীতির চাপ ব্যাংকগুলোকে আমানতের সুদহার বাড়াতে বাধ্য করেছে। সুদহারের সীমার কারণে এটি ঋণ-আমানতের সুদহারের ব্যবধানের (স্প্রেড) ওপর ব্যাপক চাপ সৃষ্টি করেছে। ফলে ব্যাংকগুলোর মুনাফা কমে গেছে। এ কারণেই সুদহারের সীমা তুলে নেওয়ার পরিকল্পনা করছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংকের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন ব্যাংকাররা। তারা বলেন, বাজারে দক্ষতা নিশ্চিত করার পাশাপাশি সঠিক খাতে বিনিয়োগ করতে সহায়তা করবে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ মাহবুবুর রহমান। তিনি বলেন, মূল্যস্ফীতি বেড়ে যাওয়া আমাদের ৭ থেকে সাড়ে ৭ শতাংশ সুদে আমানত সংগ্রহ করছে। ৯ শতাংশ সুদে ঋণ বিতরণ করে ব্যাংকগুলোর নেট মুনাফা হচ্ছে না।

সুদহারের সীমার কারণে ব্যাংকগুলোর নেট আয় কমে যাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, আমি মনে করি আমরা যদি ব্যাংকগুলোকে টেকসই করতে চাই, তাহলে আমাদের নেট সুদের আয় বাড়াতে হবে। এ জন্য আমাদের সুদের সর্বোচ্চ ৯ শতাংশের সীমা প্রত্যাহার করতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই। উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ১ এপ্রিল থেকে ক্রেডিট কার্ড ছাড়া সব ধরনের ঋণের সুদহার ৯ শতাংশ এবং আমানতের সুদহার ৬ শতাংশ বেঁধে দিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক প্রজ্ঞাপন জারি করে ওই বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি। সার্কুলারে বলা হয়, ব্যাংক ঋণের উচ্চ সুদহারের ফলে ঋণ গ্রহীতারা যথাসময়ে ব্যাংক ঋণ পরিশোধে সমর্থ হয় না। ব্যাংকিং খাতে ঋণ শৃঙ্খলা বিঘ্নিত হয় এবং সার্বিকভাবে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হয়।

Girl in a jacket

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।