উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে নৌকায় ভোট প্রার্থনা

98

আলমডাঙ্গায় আ.লীগের প্রার্থী হাসান কাদির গনুর মোটরসাইকেল শোডাউন
আলমডাঙ্গা অফিস:
আলমডাঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনীত নৌকার মেয়র প্রার্থী হাসান কাদির গনুর সমর্থনে মোটরসাইকেল শোডাউন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার বিকেলে কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে কলেজ প্রাঙ্গণ থেকে এক বিশাল মোটরসাইকেল শোডাউন বের করেন হাসান কাদির গনু। শোডাউনটি আলমডাঙ্গা শহর থেকে কলেজপাড়া, আনন্দধাম, সোনাপট্টি, পশুহাট, স্টেশনপাড়া, বন্ডবিল, গোবিন্দপুর, এরশাদপুর, হাই রোড়সহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে কলেজ প্রাঙ্গণে এসে শেষ হয়।
শোডাউন শেষে মেয়র প্রার্থী হাসান কাদির গনু বলেন, ‘নৌকা মার্কার প্রার্থী হিসেবে আমাকে মনোনীত করায় বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে আন্তরিক অভিবাদন ও ধন্যবাদ জানাই।’ এসময় গনু মিয়া আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করে বলেন, ‘আলমডাঙ্গা পৌরবাসী আমাকে তিনবার ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছে, আমি আপনাদের কাছে ঋণী। আগামী ১৪ তারিখের নির্বাচনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে মনোনয়ন দিয়ে নৌকা প্রতীক দিয়েছেন, আপনাদের কাছে অনুরোধ উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে আপনারা নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করবেন। আমি আমার নেতা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন এমপিকে সঙ্গে নিয়ে আগামী দিনে আপনাদের সেবা করতে পারি, সেই সুযোগ আমাকে দেবেন। এমপি ছেলুনের সহায়তায় সম্প্রতি পৌরসভায় ৩৩টি রাস্তার কাজ উদ্বোধন করেছি। কাজ চলছে, ভোটের আগেই রাস্তার কাজ শেষ হবে ইনশাআল্লাহ।’
শোডাউনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আলমডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক কাজী রবিউল হক, সহসভাপতি হামিদুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আতিয়ার রহমান, আলম হোসেন, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক সাইফুর রহমান পিণ্টু, পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, জেলা মৎসজীবী লীগের আহ্বায়ক সাহাবুল হক, জেলা পরিষদের সদস্য মিজানুর রহমান মিজান, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সালমুন আহমেদ ডন, কৃষক লীগ নেতা আশাদুল হক, যুবলীগ নেতা সাজ্জাদুল ইসলাম স্বপন, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি নয়ন সরকার, সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি আশরাফুল হক, ছাত্রলীগ নেতা হাসান, বাদশাহ, সাকিব, রকিসহ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা।