চুয়াডাঙ্গা বৃহস্পতিবার , ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

উত্তাপ সামলাতে বাড়তি সতর্কতা

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২ ৯:২৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সমীকরণ প্রতিবেদন: আন্দোলনের নামে সরকার বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো রাজপথে সংঘাত-সহিংসতায় জড়ানোর চেষ্টা চালালে পুলিশ এতদিন লাঠিচার্জ করে কিংবা টিয়ার শেল-রাবার বুলেট ছুড়ে উত্তপ্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। কোথাও কোথাও শর্টগান বা চাইনিজ রাইফেলের গুলি ছুড়ে ভয়াবহ নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সামাল দিয়েছে। তবে একই কৌশলে আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে গিয়ে সম্প্রতি বিভিন্ন স্থানে পুলিশ বড় ধরনের হামলার ঘটনা ঘটেছে। তাই রাজপথের উত্তাপ সামলাতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তা ও সদস্যদের আরও সতর্ক হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের আশঙ্কা, বিশেষ মহলের উসকানিতে রাজনৈতিক ক্যাডাররা আগামীতে এ ধরনের নাশকতা ও আক্রমণের ঘটনা আরও ঘটিয়ে দেশকে অস্থিতিশীল করে তুলতে পারে। পুলিশের মনোবল ভেঙে দেওয়ার টার্গেট নিয়ে চোরাগোপ্তা হামলা চালানোরও আশঙ্কা রয়েছে। তাই এ ধরনের তাণ্ডব চালানোর আগেই যাতে তাদের ছক পণ্ড করে দেওয়া যায় তার সর্বোচ্চ প্রস্তুতি রাখার তাগিদ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে রাজপথের আন্দোলনে যাতে প্রাণহানি, যানবাহন, দোকানপাট বাসাবাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা না ঘটে তা নিশ্চিত করতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢেলে সাজানোর নির্দেশ দিয়েছে পুলিশের শীর্ষ প্রশাসন।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম বলেন, রাজনৈতিক কর্মসূচি শান্তিপূর্ণভাবে পালন করলে পুলিশ বাধা দেবে না। তবে রাজনীতির নামে আগুন সন্ত্রাস করলে আইনগত কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। রাজনৈতিক কর্মসূচিতে সংঘাত বাড়ানোর জন্য কিছু মানুষ কাজ করে, তাদের বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। এসব মিছিল-মিটিংয়ে যেন প্রাণহানির ঘটনা না ঘটে আন্দোলনকারীদের সেদিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে। এদিকে শুধু ডিএনপিতেই নয়, সারা দেশে পুলিশের প্রতিটি ইউনিটকে বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি পুলিশ সদর দপ্তর থেকে পাঠানো চিঠির মাধ্যমে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়।

এ প্রসঙ্গে এআইজি পদমর্যাদার একজন কর্মকর্তা জানান, দেশ ও জনগণের সর্বোচ্চ সুরক্ষা ও কল্যাণ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ন্যূনতম কোনো আশঙ্কার সুযোগ যাতে না থাকে এ জন্য সংশ্লিষ্ট সব ইউনিটকে সর্বোচ্চ সতর্ক করা হয়েছে। এছাড়া দায়িত্বে অবহেলার কারণে রাজনৈতিক আন্দোলনের নামে কোথাও নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে পুলিশের সংশ্লিষ্ট ইউনিট প্রধানের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও কঠোরভাবেহুঁশিয়ার করা হয়েছে। তবে পুলিশের কোনো দায়িত্বশীল কর্মকর্তা কিংবা মাঠপর্যায়ে সদস্য অতি উৎসাহী হয়ে যাতে আন্দোলনকারীদের তাণ্ডবসৃষ্টির সুযোগ করে না দেয় সে ব্যাপারে সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কারও বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগের প্রমাণ পাওয়া গেলে প্রচলিত বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে পুলিশ সদর দপ্তর হুঁশিয়ার করেছে। একই সঙ্গে উসকানির ফাঁদে পা না দেওয়ার ব্যাপারে পুলিশকে কঠোরভাবে সতর্ক করা হয়েছে।

অন্যদিকে রাজনৈতিক সংঘাত-সহিংসতা এবং পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় মৃত কোনো ব্যক্তি কিংবা প্রবাসী বা নিরীহ কাউকে যাতে আসামি করা না হয় সেদিকে তীক্ষ্ম নজর রাখতে বলা হয়েছে। সম্প্রতি কয়েকটি মামলার এ ধরনের বেশ কয়েকজনকে এজাহারভুক্ত আসামি করায় পুলিশ বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়েছে। আগামীতে যাতে একই ধরনের ঘটনা না ঘটে এজন্য রাজনৈতিক সংঘাত- সহিংসতার ঘটনায় এজাহারভুক্ত আসামিদের নাম যাচাই-বাছাই করে মামলা নথিভুক্ত করতে বলা হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে এ ধরনের নির্দেশনা পাওয়ার কথা মাঠপর্যায়ের পুলিশ কর্মকর্তারা স্বীকার করছে।

পুলিশের দায়িত্বশীল একাধিক কর্মকর্তা জানান, সম্প্রতি একই স্পটে ক্ষমতাসীন ও বিরোধী দলের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি দেওয়ার হিড়িক পড়েছে। এতে দুইপক্ষের মধ্যে প্রায়ই সংঘর্ষ বাধছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে গিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী হামলার শিকার হচ্ছে। ক্ষমতাসীন ও বিরোধী দলের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও মুখোমুখি সংঘর্ষের মধ্যে পড়ে পুলিশের বিপুল সংখ্যক কর্মকর্তা-সদস্য গুরুতর জখম হচ্ছে। জাতীয় দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের দিনক্ষণ যত ঘনিয়ে আসবে, এ ধরনের ঘটনা ততই বাড়বে বলে গোয়েন্দারা আশঙ্কা করছেন। তাই নিজের জীবন, সরকারি অস্ত্র, জনগণের জানমাল রক্ষা করে কীভাবে এ পরিস্থিতি সামাল দেওয়া যায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সে কৌশল নিরূপণ করছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।