চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ৭ জানুয়ারি ২০১৭
আজকের সর্বশেষ সবখবর

উত্তপ্ত শ্রীমঙ্গল

সমীকরণ প্রতিবেদন
জানুয়ারি ৭, ২০১৭ ২:২৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

48013_f1

সমীকরণ ডেস্ক: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে ব্যবসায়ী ও বিজিবি’র মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনার প্রেক্ষিতে উত্তপ্ত অবস্থা বিরাজ করছে পর্যটন শহরে। হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনার প্রতিবাদে ব্যবসায়ী সমিতি ও পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের ডাকে শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে অনির্দিষ্টকালের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও পরিবহন ধর্মঘট চলছে। গতকাল দিনভর এই শ্রমিক ধর্মঘটে শ্রীমঙ্গলের সঙ্গে দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। দিনভর বিভিন্ন শ্রমিক ও ব্যবসায়ী সংগঠন শহরে প্রতিবাদ মিছিল ও বিক্ষোভ করে। সন্ধ্যায় পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের উদ্যোগে শহরের চৌমুহনা চত্বরে এক বিশাল প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে কয়েক হাজার শ্রমিক অংশ নেন। শনিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ঘোষণা দেয়া হলেও তা একদিনের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে বৈঠক শেষে ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি লুৎফুর রহমান জানিয়েছেন, দায়ী বিজিবি সদস্যদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস পাওয়ায় ধর্মঘট শনিবার পর্যন্ত  স্থগিত করা হয়েছে। দাবি পূরণ না হলে রোববার থেকে ধর্মঘট চলবে। এদিকে গতকাল এক বিজ্ঞপ্তিতে শ্রীমঙ্গল বিজিবি ঘটনার ব্যাখ্যা দিয়েছে। এ পরিস্থিতিতে সব পক্ষকে নিয়ে গতকাল বৈঠক হয়েছে। বৈঠকের পর আনুষ্ঠানিক কোনো ঘোষণা না দিলেও স্থানীয় সংসদ সদস্য উপাধ্যক্ষ আবদুস শহীদ আশা প্রকাশ করে বলেন, শনিবার থেকে স্থানীয় লোকজন স্বাভাবিক পরিবেশই দেখতে পাবে। এদিকে পরিবহন ধর্মঘটের কারণে যাত্রীরা চরম দুর্ভোগে পড়েছেন। যে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এদিকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে গুলিবিদ্ধদের মধ্যে ব্যবসায়ী পবিত্র পালের অবস্থার অবনতি হলে তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে।
স্থানীয় সংসদ সদস্য উপাধ্যক্ষ আবদুস শহীদ ব্যবসায়ীদের শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, ব্যবসায়ী ও পথচারীদের ওপর হামলার ঘটনায় যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি ক্ষতিগ্রস্ত দোকানপাট পরিদর্শন করেন। শ্রীমঙ্গল ব্যবসায়ী সমিতির সহসভাপতি মো. কাদির খান বলেন, বিজিবি সদস্যদের সঙ্গে ব্যবসায়ীদের কোনো ঘটনা ঘটেনি। তাহলে কি অপরাধে বিজিবি সদস্যরা ব্যবসায়ীদের দোকানপাটে হামলা চালালো। ভাঙচুর করে কোটি টাকার ক্ষতি করলো। আমরা এ ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত ও দায়ীদের উপযুক্ত বিচার না পাওয়া পর্যন্ত ধর্মঘট অব্যাহত রাখবো। শ্রীমঙ্গল পরিবহন শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি মো. ময়না মিয়া বলেন, বিজিবির সদস্যরা আমাদের পরিবহন শ্রমিককে গুলিবিদ্ধ করেছে। শতাধিক গাড়ি ভাঙচুর করেছে। আমরা এসবের সুষ্ঠু তদন্ত চাইছি। উপযুক্ত বিচার না পাওয়া পর্যন্ত আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি চালিয়ে যাবো। তিনি বলেন, বাইরের পর্যটক, খাবারের গাড়ি, ওষুধের গাড়ি, জরুরি অ্যাম্বুলেন্স, বিয়ের গাড়ি, বাইরের মেহমানদের যানবাহনে কোনো বাধা দেয়া হচ্ছে না। এসব গাড়ি ধর্মঘটের বাইরে থাকবে। এদিকে ঘটনার বিষয়ে শুক্রবার বিজিবি শ্রীমঙ্গল সেক্টর হেডকোয়ার্টার থেকে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ৫ই জানুয়ারি শ্রীমঙ্গল সেক্টরের (অতিরিক্ত পরিচালক অপারেশন) মেজর মো. মিন্নাত আলী এবং ভারপ্রাপ্ত মেডিকেল অফিসার মেজর মো. মাহতাবুল হাসান সরকারি জিপগাড়িযোগে বিওপি পরিদর্শন শেষে আনুমানিক ওইদিন বিকাল ৪টা ৫০ মিনিটে শ্রীমঙ্গল শহর থেকে আনুমানিক ১৫ কিমি. পশ্চিমে উত্তরসুর এলাকায় সখিনা সিএনজি ফিলিং স্টেশনের কাছে পৌঁছালে ফিলিং স্টেশনের ভিতর থেকে একটি কালো রংয়ের মাইক্রোবাস কোনো সিগন্যাল না দেখিয়ে বেপরোয়াভাবে চালিয়ে হঠাৎ রাস্তায় উঠে আসে। মেজর মো. মিন্নাত আলী মাইক্রোবাসটিকে থামিয়ে ড্রাইভারকে বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালানোর ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে দুঃখ প্রকাশ না করে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এবং ঔদ্ধ্যতপূর্ণ আচরণ করে। তখন মেজর মো. মিন্নাত আলী তাকে ধমক ও বকাবকি করলে সে ‘সরি’ বলে মাইক্রোবাস নিয়ে বিজিবির গাড়ির পিছনে পিছনে আসতে থাকে। বিকাল আনুমানিক ৫টা ১৫ মিনিটে বিজিবির জিপটি শহরের ভানুগাছ সড়কের পানসী রেস্টুরেন্টের সামনে এলে মেজর মো. মিন্নাত আলী অনেক লোকজন রাস্তার ওপর দাঁড়ানো অবস্থায় দেখেন। এ সময় কালো মাইক্রোবাসটি দ্রুতগতিতে বিজিবির জিপের সামনে এসে গতিরোধ করে দাঁড়ায়। বিজিবির জিপের ড্রাইভার এবং দ্বিতীয় আসনধারীকে উপস্থিত লোকেরা ইউনিফরমের কলার ধরে টেনেহিঁচড়ে গাড়ি থেকে নামিয়ে মারধর করতে করতে পানসী রেস্টুরেন্টের ভিতরে নিয়ে যায়। পানসী রেস্টুরেন্টের সামনে কর্তব্যরত পুলিশ অফিসারের সহায়তায় বিজিবির অফিসারদ্বয় চালককে মাথা ফাটা আহত অবস্থায় উদ্ধার করে শ্রীমঙ্গল সেক্টর সিক-বেডে নিয়ে আসেন। পরবর্তীতে ওইদিনই বিকাল আনুমানিক ৫টা ৪৫ মিনিটে মেজর মো. মিন্নাত আলী উক্ত ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের শনাক্ত করতে পানসী রেস্টুরেন্টের সামনে আসেন। ঘটনাস্থলে যাওয়ার পর দেখা যায় প্রায় ১০০০-১২০০ লোক রাস্তার বিভিন্ন স্থানে আগুন জ্বালিয়েছে এবং দোকানপাট ভাঙচুর করছে এবং বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছে। বিজিবির লোকজন দেখামাত্রই তারা এগিয়ে আসতে শুরু করে এবং বৃষ্টির মতো ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনায় বিজিবির ২ জন সদস্য গুরুতর আহতসহ মোট ৮ জন সদস্য আহত হয়। বিজিবি সদস্যদের জীবন ও সরকারি মালরক্ষার্থে উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবিলায় ওইদিন বিকাল ৬টা ৩০ মিনিটে  বিজিবি কর্তৃক দুই ধাপে ১৫ রাউন্ড ফায়ার করা হয়। পরবর্তীতে শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী অফিসার, শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এবং উপজেলা চেয়ারম্যান ঘটনাস্থলে আসেন এবং বিজিবির সহায়তায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হন। আনুমানিক সন্ধ্যা ৬টা ৪৫ মিনিটে এলাকার সকল সদস্যকে শ্রীমঙ্গল সেক্টরে ফেরত নিয়ে আসা হয়। উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার সময় স্থানীয় উচ্ছৃঙ্খল জনতা দোকানপাট ও যানবাহনে ভাঙচুর এবং রাস্তায় অগ্নিসংযোগ করে’।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।