ইসলামে পরকালে বিশ্বাস

904

ধর্ম ডেস্ক: পরকাল বা শেষ দিবসের প্রতি বিশ্বাস ইমানের মৌলিক স্তম্ভের অন্তর্ভুক্ত। এ বিশ্বাসের ক্ষেত্রে তিনটি বিষয়কে প্রাধান্য দিতে হবে ১। পুনরুত্থানে বিশ্বাস: তা হলো মৃত ব্যক্তিদের কবর থেকে আবার জীবিত করা হবে। সব মানুষ আল্লাহর সামনে দণ্ডায়মান হবে। তাদের পোশাক, জুতা ও খাতনাবিহীন অবস্থায় এক জায়গায় একত্র করা হবে। আল্লাহ বলেন, নিশ্চয়ই তোমাদের এরপরে মৃত্যুবরণ করতে হবে। তারপর নিশ্চয়ই তোমাদের কিয়ামতের দিন পুনরায় উঠানো হবে (সূরা মুমিনুন: ১৫-১৬)। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, কিয়ামতের দিন মানুষের জুতা, পোশাক এবং খাতনাবিহীন অবস্থায় সমবেত করা হবে (বুখারি ও মুসলিম)। ২। হিসাব-নিকাশ ও মিজানে বিশ্বাস: সৃষ্টিজীব দুনিয়াতে যে সব কর্ম করেছে আল্লাহ কিয়ামতের দিন তাদের সে সব কর্মের হিসাব নিবেন। মিজান বা পাল্লায় আমলসমূহ ওজন করা হবে। যার বদ আমলের চেয়ে নেক আমলের পাল্লা ভারী হবে তিনি জান্নাতি হবেন। যার নেক আমলের চেয়ে বদ আমলের পাল্লা ভারী হবে সে জাহান্নামি হবে। আল্লাহ বলেন, অতঃপর যার ডান হাতে তার আমলনামা দেয়া হবে, অচিরেই তার হিসাব নিকাশ সহজ করা হবে। বস্তুত: সে তার পরিবারের সদস্যদের কাছে সন্তুষ্টচিত্তে ফিরে যাবে। কিন্তু যার আমলনামা তার পিঠের পেছনের দিক থেকে দেয়া হবে, সে অচিরেই মৃত্যুকে ডাকবে এবং সে উত্তপ্ত জাহান্নামে প্রবেশ করবে (সূরা ইনশিকাক: ৭-১২)। ৩। জান্নাত ও জাহান্নামে বিশ্বাস: জান্নাত হলো চিরস্থায়ী সুখ-শান্তির স্থান। আল্লাহ মুমিনদের জন্য তা তৈরি করে রেখেছেন। আর জাহান্নাম চিরস্থায়ী দুঃখ-কষ্টের স্থান। আল্লাহ এবং তার রাসুলের অবাধ্যদের জন্য আল্লাহ তা তৈরি করে রেখেছেন। আল্লাহ বলেন, আর তোমরা তোমাদের প্রতিপালকের ক্ষমা ও জান্নাতের জন্য দ্রুত অগ্রসর হও, যার প্রশস্ততা হলো আসমান ও জমিন সমতুল্য যা মুত্তাকিদের জন্য তৈরি করা হয়েছে (সূরাহ আলে ইমরান: ১৩৩)। সুতরাং তোমরা সে আগুনকে ভয় কর, যার ইন্ধন হবে মানুষ ও পাথর, যা কাফেরদের জন্য তৈরি করা হয়েছে (সূরাহ বাকারাহ: ২৪)। কিয়ামত দিবসের প্রতি বিশ্বাস ইমানের ছয়টি রুকনের অন্যতম। কেউ এর প্রতি বিশ্বাস না রাখলে তার ইমান সঠিক হবে না।