চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ইজিবাইকের দখলে জীবননগরের সব সড়ক!

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২২ ২:২৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

জীবননগর অফিস:
জীবননগর পৌর এলাকার বিভিন্ন সড়ক দখল করে তৈরি করা হয়েছে অবৈধ যানবাহন স্ট্যান্ড। এসব সড়ক যেন তিন চাকার ডিজেল ইঞ্জিনচালিত থ্রি-হুইলার (সিএনজি) ও ব্যাটারি চালিত অটো রিকসাদের (ইজিবাইক) দখলে। এদিকে মহাসড়ক দখল করে এসকল অবৈধ স্ট্যান্ড তৈরি হওয়াই সড়ক জুড়ে যানজট নিত্য দিনের সঙ্গীতে পরিণত হয়েছে। ফলে সাধারণ পথচারী ও গাড়ি চলাচলে দূর্ভোগ পোহাতে সাধারণ মানুষের। তাদের অভিযোগ সড়কের এক পাশে সিএনজি এবং অপরপাশে রয়েছে ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকের স্ট্যান্ড। ফলে সাধারণ মানুষকে প্রতিদিন চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা জানলেও কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে না।


স্থানীয় বাসিন্দা সমশের আলী ও হাকিমুল ইসলাম বলেন, জীবননগরে বাজার করতে আসলে মানুষের ভোগান্তির শেষ থাকে না। মহাসড়ক দখল করে চালকরা ইজিবাইক ও সিএনজির স্ট্যান্ড বানিয়েছে। অন্যান্য গাড়ি ঠিকমতো আসা-যাওয়া করতে পারে না। যানজট এখানকার নিত্যসঙ্গী। ইজিবাইক ও সিএনজির স্ট্যান্ড মহাসড়ক থেকে সরিয়ে অন্য কোনো ফাঁকা জায়গায় তৈরি করলে সবার জন্য ভালো হয়।’


কয়েকজন যাত্রী বলেন, ‘তারা প্রায়ই এ সড়ক দিয়ে জীবননগর থেকে চুয়াডাঙ্গা, আলমডাঙ্গা ও যশোরে যাতায়াত করেন তারা। কিন্তু জীবননগর বাজারে আসলে দেখা যায় চরম যানজট। চোখের সামনে রাস্তা দখল করে কীভাবে ইজিবাইক ও সিএনজির স্ট্যান্ড বানিয়েছে সেটি বোধ হয় কারও চোখে পড়ছে না।’


আক্কাচ আলী নামের এক ট্রাক চালক বলেন, জীবননগর শহরের প্রধান স্টান্ডের রাস্তা দখলের কারণে গাড়ি চলাচলের রাস্তা একেবারে সঙ্কীর্ণ হয়ে গেছে। বিশেষ করে জীবননগর শহরের চ্যাংখালী রোডে সবসময় রাস্তার ওপর রাখা হয় ইজিবাইক। বড় কোনো গাড়ি এ রাস্তা দিয়ে প্রবেশ করতে পারে না। তাছাড়া মহাসড়কের দুপাশে গাড়ি দাঁড়িয়ে থাকায় প্রতিদিন সাধারণ মানুষকে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়।


জীবননগর পৌর শহরে সড়কে দাঁড়িয়ে থাকা ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক এবং সিএনজির কয়েকজন চালকের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বললে তারা বলেন, ‘আমরা কোথায় যাব? দাঁড়ানোর মতো কোনো জায়গা নেই এখানে। বাধ্য হয়ে কখনো রাস্তার পাশে, কখনো রাস্তার ওপরই গাড়ি দাঁড় করিয়ে রাখতে হয়। তা না হলে যাত্রী পাওয়া যায় না। প্রশাসন আমাদের অন্য কোনো জায়গা দিক, আমরা সেখানে চলে যাব।
জীবননগর পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমি পৌরসভার পক্ষ থেকে অনেকবার চেষ্টা করেছি, কিন্তু পারিনি। তারপরও পৌরসভা থেকে আনসার সদস্য নিয়োগ করে সেখানে যানজট নিরসনের জন্য চেষ্টা করা হয়।’


জীবননগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ( ইউএনও ) আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে এভাবেই চলে আসছে। মেইন স্টান্ড দখল করে কখনই ইজিবাইক ও সিএনজির স্ট্যান্ড তৈরি করতে দেওয়া হবে না। যদি কেউ রাস্তা দখল করে স্ট্যান্ড তৈরি করে তবে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।