চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৬

আলমডাঙ্গা কালিদাশপুরে মুক্তিযোদ্ধার ছেলে রক্তাক্ত জখম করায় থানায় মামলা

সমীকরণ প্রতিবেদন
সেপ্টেম্বর ৩, ২০১৬ ১০:২৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

e3rtgrtt

আলমডাঙ্গা অফিস: গতকাল সকালের দিকে আলমডাঙ্গা কালিদাসপুর গ্রামের গোলাম রহমানের ছেলে রোজাউর রহমান বাবুকে ক্যানেলপাড়ার ৪জন বেধড়ক মারপিট করে রক্তাক্ত জখম করে। তাকে উদ্ধার করে আলমডাঙ্গা হারদী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ব্যাপারে রেজাউর রহমান বাবুর পিতা গোলাম রহমান বাদী হয়ে আলমডাঙ্গা থানায় মামলা দায়ের করেন। এসময় আলমডাঙ্গা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শফিউর রহমান জোয়ার্দ্দার সুলতান ও কালিদাসপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। জানাযায়, কালিদাসপুর উত্তরপাড়ার গোলাম রহমানের ছেলে রেজাউর রহমান বাবু সকালের দিকে ক্যানেলপাড়ার সামনে পাকা রাস্তার উপর হাটতে গেলে মৃত মোতালেব আলীর ছেলে কাশেম (৫০), ওপু (২৫), সানোয়ার হোসেন সানু (৩০), কাশেমের স্ত্রী আরতী খাতুন একত্রে বাবুর উপর চড়াও হয়। বাবুর সাথে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে কাশেম অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও হুমকি প্রদান করতে থাকে। বাবু তাকে গালিগালাজ করতে নিশেষ করলে কাশেমসহ অন্যরা সকলে মিলে ধারালো চাইনিজ কুড়াল, লোহার শাবল, রড ও দেশিয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বাবুর মাথায় আঘাত করলে করাটি ফেটে রক্তাক্ত জখম হয় এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাথাড়ি আঘাত করায় নীল ফোলা যখম হয়। এসময় বাবুর পকেটে থাকা ৫ হাজার ৫ শত টাকা তারা ছিনিয়ে নেয়। বাবুর ডাক চিৎকারে আসামীগণ তাকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। এসময় হাসান রেজা মুন্না, আনোয়ার হোসেন, করিমসহ বিবিন্ন লোকজন তাকে উদ্ধার করে হারদী হাসপাতালে ভর্তি করে। বর্তমানে বাবু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। বাবুর পিতা মুক্তিযোদ্ধা গোলাম রহমান বাদি হয়ে ৪ জনকে আসামি করে আলমডাঙ্গা থানায় মামলা দায়ের করেন। গতকালই থানা পুলিশ এজাহারভুক্ত আসামি আরতী খাতুনকে আটক করেছে বলে জানাগেছে। অন্যরা পলাতক আছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।