আলমডাঙ্গায় অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়ে গরু ব্যবসায়ী স্বর্বশান্ত

35

ভ্রাম্যমাণ প্রতিবেদক, আলমডাঙ্গা:
আলমডাঙ্গায় অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়ে এক লাখ টাকা খুইয়েছেন নজরুল ইসলাম (৩৭) নামের এক গরু ব্যাবসায়ী। গতকাল বুধবার বেলা একটার দিকে লাল ব্রিজ বাসস্ট্যান্ডে অচেতন অবস্থায় তাঁকে বাস থেকে নামানো হয়। খবর পেয়ে নজরুল ইসলামের পরিবারের সদস্যরা তাঁকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়া গরু ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম আলমডাঙ্গা উপজেলার শালিকা গ্রামের বাজারপাড়ার শফিকুল ইসলামের ছেলে।
জানা যায়, গতকাল বুধবার দুপুর ১২টার দিকে নজরুল ইসলাম আলমডাঙ্গা পৌর পশুহাটে গরু কেনার উদ্দেশ্যে বাড়ি হয় শফিকুল। বাসযোগে আলমডাঙ্গা পশুহাটে যাওয়ার পথে তিনি অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়েন। বাস আলমডাঙ্গা লাল ব্রিজে পৌঁছালে বাসের কন্ট্রাক্টর তাঁকে অচেতন অবস্থায় বাস থেকে নামিয়ে বাসস্ট্যান্ড কামিটির নিকট হস্তান্তর করে। পরে খবর পেয়ে শফিকুল ইসলামের পরিবারের সদস্যরা তাঁকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়। এসময় জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালের পুরুষ মেডিসিন ওয়ার্ডে ভর্তি করে।
গরু ব্যবসায়ী নজরুল ইসলামের স্ত্রী লাইলী খাতুন বলেন, গরু কেনার জন্য গচ্ছিত এক লাখ টাকা নিয়ে দুপুর ১২ টার বাড়ি থেকে বের হয় নজরুল ইসলাম। বেলা ১টার দিকে মোবাইল ফোনে জানতে পারি আমার স্বামী অচেতন অবস্থায় আলমডাঙ্গা বাস স্ট্যান্ডে রয়েছেন। তখনি আমরা বাসস্ট্যান্ড থেকে তাঁকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করি।
এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিতসক ডা. সাইদুজ্জামান বলেন, অচেতন অবস্থায় নজরুল ইসলামকে হাসপাতালে নিয়ে আসে তাঁর পরিবারের সদস্যরা। ধারণা করা খাবারের মাধ্যমে তাঁর শরীরে চেতনানশক প্রবেশ করেছে। তাঁকে তাৎক্ষণিক চিকিৎসা ভর্তি রাখা হয়েছে। যে কোন সময় তাঁর চেতনা ফিরতে পারে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে এ ধরণের রোগীদের চেতনা ফিরতে ২৪ ঘণ্টারও বেশি সময় লেগে যায়।