চুয়াডাঙ্গা সোমবার , ২২ আগস্ট ২০১৬
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আলমডাঙ্গা পারিবারিক কলহে গলায় দড়ি দিয়ে গৃহকর্তার আত্মহত্যা

সমীকরণ প্রতিবেদন
আগস্ট ২২, ২০১৬ ৭:০১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আলমডাঙ্গা অফিস: গতকাল আলমডাঙ্গা বাড়াদি ইউনয়নের গোপাল নগর গ্রামে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শাহজাহান আলী নামে এক ব্যক্তি গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করে। আত্মহত্যার খবর পেয়ে তার ছোট বেটার বৌবিষ পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। বাড়ির লোকজন দ্রুত হারদি হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়ার পর এখন সুস্থ্য আছে। জানা যায়, গতকাল সকাল থেকে বৃষ্টির কারণে বাড়াদি ইউনিয়নের গোপালনগর গ্রামের মৃত হারাণ মুন্সির ছেলে শাহজাহান আলী (৫৬) বাড়ির মাটির দেওয়াল ধ্বসে পড়ায় শাহজাহান আলী নিজের বাঁশ ঝাড় থেকে বাঁশ কেটে কাবারি তৈরিকরে দেওয়াল নির্মাণের চেষ্টা করছিল। এ সময় তার ছোট ছেলের স্ত্রী মিনারা খাতুন তার শ্বশুরকে বলে ঝাঁড়ের বাশ না কেঁটে বাজার থেকে চাটাই কিনে বেড়া দিলেই অসুবিধা কী? এই নিয়ে বেটা স্ত্রীর সাথে ২/১ কথায় কথা কাটা কাটি হয়। এক পর্যায়ে শাহজাহান অভিমান করে বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যায়। শাহাজাহানের ৩ ছেলে ১ মেয়ে ২ ছেলে আলাদা খায়, শাহজাহান তার ছোট ছেলে আশকার আলীর সাথে থাকে। দুপুরে বিয়ে যাওয়ার পরে বাড়ি ফিরতে দেরি হওয়ায় সকলে খোঁজাখুজি শুরু করে। অনেক খোঁজাখুজির পর তাদের পানের বরজের ভিতর একটি নিমগাছের সাথে গলায় দড়ি দিয়ে ঝুলে থাকতে দেখে। তাৎক্ষণিক এলাকাবাসীসহ সকলে তাকে গাছ থেকে নামায়। খবর পেয়ে আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ আকরাম হোসেন এসআই শাখাওয়াত হোসেনসহ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এরই মধ্যে শ্বশুর গলায় দড়ি দেওয়ায়। বেটার বৌমিনা রাখাতুন বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করলে বাড়ির লোক জনতাকে দ্রুত হারদি হাসপাতালে ভর্তি করে। কর্তৃব্যরত চিকিৎসকের চিকিৎসায় বর্তমানে মিনারা খাতুন সুস্থ্য আছে। আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ এলাকার গণ্যমাণ্য ব্যক্তিদের সাথে আলাপ করে মৃত শাহজাহান আলীর বিরুদ্ধে কেউ কোন অভিযোগ না করায় তাকে দাফন করার অনুমতি দিলে গতকাল সন্ধ্যায় পারিবারিক কবরস্থানে শাহজাহানের দাফনকাজ সম্পন্ন হয়।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।