আমলের পার্থিব প্রতিদান

521

ধর্ম ডেস্ক: নেক আমলের প্রতিদান পরকালেই পাব, দুনিয়াতে এর বিনিময়ে কিছু পাব না- এই ধারণাটি মূলত ঠিক নয়। নেক আমল করলে তাৎক্ষণিক একটি ফল পাওয়া যায়। তা হলো আল্লাহর প্রতি আশা ও প্রত্যাশার জন্ম নেয়। কেউ নামাজ পড়ার পর তার মধ্যে একটি ধারণা জন্মায়, আমি একটি ভালো কাজ করেছি, এর প্রতিদান আমি পাব। এই যে প্রতিদানের প্রত্যাশা এটা হলো নেক আমলের প্রথম উপকার। রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘তোমাদের নেক আমল যখন তোমাকে খুশি করে এবং বদ আমল ব্যথিত ও বিমর্ষ করে তখন এটি তোমাদের ইমানের প্রতীক।’ নেক আমলের পার্থিব আরেকটি পুরস্কার হলো আল্লাহর সঙ্গে সম্পর্ক। কেউ যখন কোনো নেক আমল করে তখন স্বাভাবিকভাবেই আল্লাহর সঙ্গে তার একটি সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মানুষের ইবাদতের মাত্রা যত বাড়বে তত আল্লাহর সঙ্গে তার সম্পর্ক গাঢ় হবে। আর আল্লাহর সঙ্গে সম্পর্ক যত বাড়বে তত মনে শান্তি ও প্রফুল্লতা জন্মাবে। তখন সে শয়তানের পাতা ফাঁদ থেকেও বেঁচে থাকতে পারবে। মানুষের সম্পর্ক আল্লাহর সঙ্গে যত গাঢ় হবে শয়তানের সঙ্গে সম্পর্ক তত নড়বড়ে হবে। এজন্য বেশি বেশি নেক আমলের দ্বারা শয়তান এমনিতেই দূরে থাকতে বাধ্য হয়। নেক আমলের তাৎক্ষণিক আরেকটি পুরস্কার হলো অন্য আরেকটি নেক আমলের স্পৃহা জন্মায়। আপনি একটি নেক আমল করলে আরেকটি নেক আমল করার সুযোগ পাবেন। পক্ষান্তরে গোনাহের বৈশিষ্ট্য হলো একটি গোনাহ আরেকটি গোনাহকে টেনে আনে। নেক আমলের যেমন নগদ উপকারিতা আছে তেমনি বদ আমলেরও আছে। কেউ বড় আমল করলে পরকালে তার জন্য জাহান্নামের শাস্তি তো অবধারিত। কিন্তু পার্থিব শাস্তিও তার জন্য নির্ধারিত। গোনাহের নগদ কুফল হলো ভয়, অন্ধকার ও উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা। যারা গোনাহ করেন তারা মানসিকভাবে দুর্বল হন। পার্থিব জীবনে মানুষ নেক আমল করলে যেমন একটি নগদ ফল ভোগ করবে তেমনি বদ আমল করলে তাৎক্ষণিক শাস্তিও নির্ধারিত।