চুয়াডাঙ্গা সোমবার , ২৫ এপ্রিল ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আমঝুপিতে সেনা সদস্যের স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার

পরিবারের দাবি স্বামী মিঠু শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে রওশানারাকে
প্রতিবেদক, আমঝুপি:
এপ্রিল ২৫, ২০২২ ৭:৫৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

মেহেরপুরের সদর উপজেলার আমঝুপি বাজারের একটি ভাড়া বাসা থেকে রওশানারা খাতুন (৩০) নামের এক সেনা সদস্যের স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রওশানারা মেহেরপুর সদর উপজেলার রাজনগর গ্রামের খলিলুর রহমানের মেয়ে ও একই গ্রামের বদর উদ্দীনের ছেলে সেনা সদস্য মিঠু হোসেনের স্ত্রী। গতকাল রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মেহেরপুর সদর থানা পুলিশের একটি দল রওশানারা খাতুনের মরদেহ উদ্ধার করে।

নিহতের স্বজনদের দাবি, রওশনারাকে শারীরিক নির্যাতন ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করে আত্মহত্যার নাটক সাজিয়েছেন তাঁর স্বামী সেনা সদস্য মিঠু। এ ঘটনায় নিহতের স্বজনরা স্বামী মিঠুকে আটক ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন। স্থানীয়রা জানান, রওশনারা আমঝুপি বাজারের কারিগর পাড়ার আনসারের বাড়ির দ্বিতীয় তলার একটি ফ্লাটে ভাড়ায় থাকতেন।

নিহত রওশানারার মা আমিনা খাতুন জানান, মিঠুর পরকীয়া প্রেমে বাধা দেওয়ায় আমার মেয়েকে মিঠু প্রায়ই মারধর করতো। প্রতিনিয়ত সে মোবাইল ফোনে কথা বলাতে নিষেধ করতো রওশানারা। ৮ দিন আগে সেনা সদস্য মিঠু ছুটিতে বাড়িতে এসে আজকেই ছুটি শেষ করে কর্মস্থলে ফেরার কথা তার। তবে সকালের দিকে মিঠু তার স্ত্রীর পাশে বসে কান্না কান্নাকাটি করলেও রওশানার বাবার পরিবারের লোকজন আসার সাথে সাথে ছেলেকে নিয়ে পালিয়ে যায়।

নিহতের পিতা খলিলুর রহমান অভিযোগ করেন, ‘মিঠু আমার মেয়েকে প্রতিনিয়ত নির্যাতন করে আসছে। আমার মেয়ে প্রায় দিনই ফোন দিয়ে তার ওপর অকথ্য নির্যাতনের কথা বলেছে আমাদের। আমার জামাই মোবাইল ফোনে পরকীয়া প্রেম করে বলে জানিয়েছিল মেয়ে। রওশানা তার স্বামী মিঠুকে পরকীয়া প্রেম করতে নিষেধ করাই মারধর করতো সে।’

রওশানারার বড় চাচা আব্দুল গনি অভিযোগ করেন, মিঠু ও রওশানার সম্পর্ক করে বিয়ে করাই মিঠুর পরিবারের লোকজন মেনে নেয়নি। তারা বলত আজ হোক আর ১০ বছর পর হোক রওশানারাকে ছাড়িয়ে দেবে। মেয়েটি মৃত্যুর ভয়ে প্রায় কাতর থাকত। তাকে মেরে ফেলা হবে বলেও সে আভাস দিয়েছে। এ ঘটনায় মিঠুর বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন রওশানারার পরিবারের লোকজন।

মেহেরপুর সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহ দারা খান বলেন, রওশানারার পরিবারের লোকজনের তথ্যের ভিত্তিতে ঘটনাস্থল থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে নেওয়া হয়েছে তার মরদেহ।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।