চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ৮ মে ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আফগানিস্তানে নেকাব বাধ্যতামূলক হচ্ছে

বিশ্ব প্রতিবেদন:
মে ৮, ২০২২ ২:৫৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

আফগানিস্তানে নারীদের জন্য বোরখার পাশাপাশি নেকাব বাধ্যতামূলক হচ্ছে। একটি ডিক্রির মাধ্যমে দেশটির ক্ষমতাসীন তালেবান সরকার নারীদের জন্য নেকাব বাধ্যতামূলক করছে। নির্দেশ অমান্য করলে শাস্তির ব্যবস্থাও রাখছে তারা। শনিবার বিবিসির খবরে বলা হয়, কয়েকদশক পর প্রথমবারের মতো দেশটিতে নেকাব বাধ্যতামূলক হচ্ছে। কোনো নারী যদি এ আদেশ অমান্য করেন এবং মেনে চলতে অস্বীকার করেন, তাহলে তার পরিবারের সদস্যদের মধ্যে একজনকে (অভিভাবক) তিনদিনের জন্য জেলে যেতে হতে পারে। তালেবান ১৯৯০-এর দশকে তাদের প্রথম ক্ষমতায় থাকাকালে আফগানিস্তানের সর্বত্র বোরকা পরা বাধ্যতামূলক করে। কিন্তু গত বছর দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে তারা আফগান শহরগুলোতে তা কার্যকর করেনি। আফগানিস্তানের অনেক নারী ইতোমধ্যেই বোরকা পরেন। কিন্তু কিছু অঞ্চল, বিশেষ করে শহরাঞ্চলে, তাদের চুলের উপর একটি সাধারণ আবরণ দেখা যায়। অনেকে নেকাব পরেন না। ডিক্রিটি তালেবান সরকারের প্রিভেনশন অব ভাইস এবং প্রোমোশন অব ভার্চ্যু মন্ত্রনালয় থেকে পাস হয়েছে। তালেবান কর্মকর্তারা ডিক্রিটিকে ‘পরামর্শ’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন। তবে কেউ যদি এ আদেশ মেনে না চলেন, তবে একাধিক পদক্ষেপ গ্রহণের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এ পদক্ষেপের মধ্যে রয়েছে- প্রথম অবস্থায় তাদের বাড়িতে গিয়ে তাদের স্বামী, ভাই বা বাবার সাথে কথা বলা হবে। দ্বিতীয়ত, তাদের পুরুষ অভিভাবককে মন্ত্রণালয়ে তলব করা হবে। তৃতীয় পদক্ষেপ হিসেবে, পুরুষ অভিভাবককে আদালতে নিয়ে যাওয়া হবে এবং তিন দিনের জন্য জেল হতে পারে। প্রসঙ্গত, আফগানিস্তান বিশ্বের একমাত্র দেশ যেখানে প্রকাশ্যে লিঙ্গ অনুসারে শিক্ষাকে সীমাবদ্ধ করা হচ্ছে। তালেবানের আন্তর্জাতিক বৈধতা অর্জনের প্রচেষ্টার একটি প্রধান স্টিকিং পয়েন্ট। মেয়েদের মাধ্যমিক শিক্ষা গ্রহণে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে, নারী বিষয়ক মন্ত্রণালয় ভেঙে দেয়া হয়েছে এবং অনেক ক্ষেত্রে নারীদের কাজ করতে দেয়া হয়নি।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।