আন্দুলবাড়ীয়ায় সহকারী শিক্ষিকার বহিষ্কারের দাবিতে মানববন্ধন

190

প্রতিবেদক, আন্দুলবাড়ীয়া:
আন্দুলবাড়ীয়া বহুমুখী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী শিক্ষিকা নাসিমা খাতুনের বহিষ্কার দাবিতে মানববন্ধন করেছে শিক্ষকরা। গতকাল সোমবার দুপুর ১২টার দিকে বিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। মানববন্ধন শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি আন্দুলবাড়ীয়া বহুমুখী মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে বের হয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।
জানা গেছে, আন্দুলবাড়ীয়া বহুমুুখী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা নাসিমা খাতুন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মমতাজ আহম্মদ তাজ ওরফে মুন্তাজ মাস্টারের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়েরের ঘটনাকে কেন্দ্র করে চুয়াডাঙ্গা থেকে প্রকাশিত স্থানীয় একটি পত্রিকায় গত ১৫ ও ১৬ জানুয়ারি এ সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশিত হওয়ায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। এলাকার বিভিন্ন হাট-বাজারসহ চায়ের দোকানে বইছে এখন আলোচনা-সমালোচনার ঝড়। এছাড়াও তাঁর ব্যবহৃত ফেসবুক আইডিসহ সরাসরি পাবলিক প্লেসে মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন অপবাদ রটনা করার অভিযোগ উঠেছে। এসব অভিযোগ তুলে ধরে প্রধান শিক্ষক মমতাজ আহম্মেদ তাজের নেতৃত্বে বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকা ও কর্মচারীরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে।
মমতাজ আহম্মেদ তাজ সাংবাদিকদের নিকট সহকারী শিক্ষিকা নাসিমা খাতুনের বিরুদ্ধে দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনে অবহেলা, প্রধান শিক্ষক, ম্যানেজিং কমিটির নেতৃবৃন্দের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণসহ নানা অভিযোগ তুলে ধরে বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ ওঠায় সহকারী প্রধান শিক্ষক ছাইদুর রহমান, এসএমসি শিক্ষক শহিদুল ইসলাম ও সহকারী শিক্ষিকা মাফিয়া খাতুনকে প্রধান করে তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত শেষে তদন্ত কমিটি একটি লিখিত প্রতিবেদন দাখিল করে। যাতে অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হলে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি তাঁকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করে। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির পরবর্তী সভায় সহকারী শিক্ষিকা নাসিম খাতুন লিখিত জবাব প্রদানে অনাকাক্সিক্ষত ঘটনার জন্য প্রকাশ্যে ক্ষমা প্রার্থনা করলে উক্ত সভায় উপস্থিত বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে নাসিমা খাতুনের সাময়িক বরখাস্ত প্রত্যাহার করে শাস্তি স্বরূপ জানুয়ারি মাস থেকে জুন ২০১৯ইং পর্যন্ত মোট ৬ মাসের মাসিক বেতন-ভাতা কর্তন করার সিদ্ধান্ত নেয়।