চুয়াডাঙ্গা বৃহস্পতিবার , ১৬ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আত্মীয়দের দান করার ফজিলত

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
জুন ১৬, ২০২২ ৯:১০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ধর্ম প্রতিবেদন:

আর্থসামাজিক উন্নয়ন এবং দারিদ্র্য বিমোচনে ইসলাম বহুমুখী কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। জাকাত, সদকাতুল ফিতর, আকিকা, নফল সদকাসহ বিভিন্ন উদ্যোগের কথা কোরআন-হাদিসে এসেছে। অসহায়-দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়ানো অত্যন্ত মানবিক গুণ। তবে এর মাহাত্ম্য বহুগুণে বেড়ে যায় যখন তা অসহায় আত্মীয়দের জন্য করা হয়। প্রায় সময় অসহায় মানুষেরা আত্মীয়দের কাছে হাত পাততে লজ্জা পায় এবং আত্মমর্যাদার কারণে নীরবতা অবলম্বন করে। ফলে তারা কাছের মানুষ হওয়া সত্ত্বেও ধনী আত্মীয়দের পাশে পায় না, যা কাম্য নয়। তাই ধনীদের কর্তব্য হলো, অসহায় আত্মীয়দের বিশেষভাবে খোঁজখবর রাখা এবং তাদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘(বরং কল্যাণ আছে) আল্লাহকে ভালোবেসে আত্মীয়-স্বজন, এতিম-মিসকিন, মুসাফির ও সাহায্যপ্রার্থীদের এবং দাস মুক্তির জন্য ধন-সম্পদ ব্যয় করার মধ্যে।’ (সুরা বাকারা: ১৭৭) হাদিসে এসেছে, মহানবী (সা.) বলেন, ‘কোনো গরিব মানুষকে সদকা দিলে শুধু সদকার সওয়াবই পাওয়া যাবে। আর গরিব আত্মীয়কে সদকা দিলে পাওয়া যাবে দুই বিষয়ের সওয়াব। সদকার সওয়াব এবং আত্মীয়তার বন্ধন রক্ষা করার সওয়াব।’ (আহমদ) সাহাবি সাআদ ইবনে আবি ওয়াক্কাস মৃত্যুশয্যায় মহানবী (সা.)-কে জিজ্ঞেস করলেন, ‘আমার তো প্রচুর সম্পদ অথচ আমার একমাত্র কন্যাই আমার উত্তরাধিকারী। আমি কি আমার সকল সম্পদ গরিবদের জন্য লিখে দিয়ে যাব?’ তিনি পরামর্শ দিলেন, ‘এক-তৃতীয়াংশ লিখে দিতে পার। এক-তৃতীয়াংশ মানেও বিপুল সম্পদ। তবে শোনো, তোমার স্বজনদের ভিখারি রেখে যাওয়ার চেয়ে তাদের সচ্ছল রেখে যাওয়া অধিক উত্তম।’ (মুসলিম)

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।