আজ আন্তর্জাতিক পরিবার দিবস

392

সমীকরণ ডেস্ক: পরিবার শব্দটি বাঙালির মানসপটে যে ছবিটি ফুটিয়ে তুলে, সেখানে মা-বাবা, দাদা-দাদি, ভাইবোনসহ আরো অনেকে থাকেন। আধুনিক সমাজে পরিবারের সেই রূপটি ক্রমশ হারিয়ে গিয়ে বাড়ছে একক পরিবার। পরিবার মানুষের প্রথম শিক্ষালয়। কাজের প্রয়োজনে হোক আর ইচ্ছে করেই হোক মানুষ পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হচ্ছে ফলে হারিয়ে যাচ্ছে পারিবারিক শিক্ষা এবং আমাদের হাজার বছরের ঐতিহ্য। পারিবারিক বন্ধনকে শক্তিশালী করার লক্ষে পৃথিবীব্যাপী আজ পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক পরিবার দিবস।
শিল্প বিপ্লবের পর পশ্চিমাদের মধ্যে পরিবারের প্রতি অনাগ্রহ দেখা দেয়ার ফলে পারিবারিক সম্পর্ক অস্থিতিশীল হয়ে ওঠে। বাড়তে থাকে বিবাহবিচ্ছেদসহ নানা সামাজিক সমস্যা, যার প্রধান শিকার হয় শিশুরা। অনেক শিশুই বাবার পরিচয় ছাড়া বড় হতে থাকে। বিপ্লবের দীর্ঘ ধারাবাহিক প্রভাবের পরিপ্রেক্ষিতে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে অবশেষে ১৯৯৩ সালের ২০ সেপ্টেম্বর এক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১৫ মে আন্তর্জাতিক পরিবার দিবস হিসেবে ঘোষিত হয়। জাতিসংঘ ১৯৯৪ সালকে আন্তর্জাতিক পরিবার বর্ষ ঘোষণা করেছিল। যার ধারাবাহিকতায় পৃথিবীর অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও এ দিবসটি সরকারি-বেসরকারি নানা পর্যায়ে পালিত হয়ে আসছে। জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে জাতীয় আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে পরিবার দিবস পালন করা প্রয়োজন। সমাজবিজ্ঞানীরাও মনে করেন, এ ধরনের দিবস পরিবারের সদস্যদের মধ্যে ভালোবাসা বাড়ায়। একদিনের জন্য পরিবারের সদস্যদের এক করতে পারে। যেহেতু সামাজিক উন্নয়নে পরিবারের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে তাই এ বিষয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য বৈশ্বিক, আঞ্চলিক ও জাতীয় পর্যায়ে দিবসটি উদযাপন করা জরুরি।