চুয়াডাঙ্গা সোমবার , ২৫ ডিসেম্বর ২০১৭
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা

সমীকরণ প্রতিবেদন
ডিসেম্বর ২৫, ২০১৭ ৯:৩৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

আজ শুভ বড়দিন : চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর ও ঝিনাইদহের খ্রিষ্টান পল্লীতে উৎসবের আমেজ
ডেস্ক রিপোর্র্ট: খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শুভ বড়দিন আজ। অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশের খ্রিষ্টধর্মানুসারীরা যথাযথ ধর্মীয় আচার, আনন্দ-উৎসব ও প্রার্থনার মধ্যদিয়ে দিনটি উদযাপন করবেন। ধর্মীয় এ উৎসবটি এবার বাংলাদেশে আরো জাঁকজমকপূর্ণভাবে উদযাপিত হবে। আজ খ্রিষ্টানদের ঘরে ঘরে উৎসবের আনন্দধারা। বহুবর্ণ আলোকসজ্জায় সেজেছে গির্জা, গৃহ আর অভিজাত হোটেলগুলো। সাজানো হয়েছে গোশালা, ক্রিসমাস ট্রি। পাপীকে নয়, ঘৃণা করো পাপকে- এই আহ্বান নিয়ে যিশুখ্রিষ্ট এদিন আসেন এই পৃথিবীতে। তাই খ্রিষ্টান সম্প্রদায় নানা আনুষ্ঠানিকতায় পালন করছেন এই উৎসব। আজ প্রভাতে গির্জায় বিশেষ প্রার্থনা (খ্রিষ্টযোগ) হবে। ধর্মীয় গান, কীর্তন, অতিথি আপ্যায়ন আর পরমানন্দে দিনটি উদযাপিত হবে। শান্তিপূর্ণভাবে দিনটি উদ্যাপনে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা।
আমাদের কার্পাসডাঙ্গা প্রতিনিধি জানিয়েছে: খ্রীষ্টান ধর্মাবলম্বীদের সব চাইতে বড় ধর্মীয় উৎসব বড়দিন উপলক্ষে দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা, বাঘাডাঙ্গা মিশনপল্লী ও গীর্জা পরিদর্শন করেন চুয়াডাঙ্গা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল মোমেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দামুড়হুদা সার্কেল) মো. কলিমুল্লাহ। দামুড়হুদা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আকরাম হোসেন, কার্পাসডাঙ্গা পুলিশ ফাঁড়ির আইসি আসাদুর রহমান আসাদ। এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বিষয়ে সার্বিক খোজ খবর নেন। খ্রীষ্টান ধর্মাবলম্বী নেতাদের সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেন ও মিশনপল্লী ঘুরে দেখেন।
মুজিবননগর প্রতিনিধি জানিয়েছে: মেহেরপুর জেলার বিভিন্ন গ্রামে রোমান ক্যাথলিক চার্চ অব বাংলাদেশ, এজি মিশন চার্চ, প্রেস ব্রিডিয়াম চার্চসহ সকল চার্চের আওতাধীন আনুমানিক ৫ হাজার খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের বসবাস। ভবরপাড়ার, বল্লভপুর, আনন্দবাস, রতনপুর, জয়পুর, নাজিরাকোনা, তারানগর, মানিকনগর প্রতিটা গ্রামের খ্রিষ্টান সম্প্রদায় প্রতি বছর ২৫ ডিসেম্বর এলেই মেতে ওঠে শুভ বড়দিন উৎসবে। এলাকা ঘুরে ঘুরে দেখা গেছে অন্য বছরের ন্যায় এবছরও শুভ বড়দিন উৎসবে ব্যাপক আয়োজন করা হয়েছে। মুজিবনগর উপজেলার বাগোয়ান ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য দিলিপ মল্লিক জানান, উপজেলার বিভিন্ন গীর্জাগুলোতে করা হয়েছে ব্যাপক আলোকসজ্জা। বড়দিনের দেখার মত সবচেয়ে দর্শনিয় স্থান হচ্ছে বেহসতি আদলে তৈরি গোসালা ঘর। যেখানে দুইশত বছর আগে জন্ম নিয়েছিলো যিশু খ্রিষ্ট। তাছাড়া মা মেরীর আবাসস্থলটি তৈরি করা হয়েছে পাথরের টুকরো দিয়ে। সাজানো হয়েছে নানা রঙে। ২৪ তারিখ রাত বারোটার সময় কেক কেটে যিশু খ্রিষ্টের জন্মদিন পালন করা হয়। ভবরপাড়া মিশনের পুরহিত অমিও মিস্ত্রি জানান, গতকাল রাত সাড়ে এগারোটায় উপাসনা করা হয় এবং আজ সকাল ৮ টার সময় ভবরপাড়া সহ মোট ৪টি গির্জায় প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হবে। মুজিবনগর থানার ওসি মনিরুল ইসলাম জানান, বড়দিন উৎসব নির্বিঘেœ পালনে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।
বল্লভপুর ও ভবেরপাড়া গ্রামে বড়দিন উপলক্ষে চার্চ অব বাংলাদেশ বল্লভপুর ডীনারির ডীন ইম্মানুয়েল চার্চের পুরোহিত রেভা:। শিমসন মজুমদার জানান, বড়দিন উপলক্ষে ডীনারির অন্তরর্গত চার্চ গুলোতে ব্যাপক আয়োজন করা হয়েছে। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টা থেকে গীর্জায় প্রার্থনা আনন্দ ফুর্তি নাচ গান এবং গোশালা গুলো উদ্বোধন করা হবে এবং ২৬ তারিখে মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন দোদুল উপস্থিত থেকে বল্লভপুর খেলার মাঠে এলাকার ঐতিহ্যবাহি ৭ দিন ব্যাপি আনন্দ মেলার উদ্বোধন করবেন। বল্লভপুর আনন্দ মেলা উৎযাপন কমিটির সম্পাদক সুজিত মল্লিক জানান বড়দিন এবং আনন্দ মেলার নিরাপত্তার জন্য প্রশাসন সর্বাত্বক সহযোগীতা করছেন। প্রশাসনের পাশাপাশি চার্চ ও মেলা কমিটিও নিরাপত্তার জন্য নিজস্ব ব্যবস্থা গ্রহন করেছে। ভবেরপাড়া ক্যাথলিক চার্চের পুরোহিত ফাদার অমিয় মিস্ত্রী জানান যীশু খ্রিষ্টের জন্মদিন শুভ বড়দিন উপলক্ষে ক্যাথলিক চার্চের নিয়ন্ত্রনাধীন চার্চগুলোতে ব্যাপক আয়োজন করা হয়েছে গীর্জাগুলো বর্ণীল সাজে সাজানো হয়েছে।
ঝিনাইদহ অফিস জানিয়েছে: খ্রীষ্টান ধর্মের সবচেয়ে বড় উৎসব বড়দিন পালন উপলক্ষে ঝিনাইদহের বিভিন্ন উপজেলার গীর্জা ও চার্চের পালক, সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকদের সাথে মতবিনিময় করেছে পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান। গতকাল রোববার দুপুরে পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় সদ্য পদোন্নতি প্রাপ্ত পুলিশ সুপার আজবাহার আলী শেখ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) ডা: কানিজ হোসেন জাহান, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (শৈলকুপা সার্কেল) তারেক আল মেহেদি, সদর থানার ওসি এমদাদুল হক শেখ, ডিএসবি’র ওসি মীর শরিফুল হক, ডিবি ওসি জাহাঙ্গীর আলমসহ জেলার ৩৭ টি গীর্জা ও চার্চের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এসময় পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, জেলায় বড়দিন উদযাপন উপলক্ষে পুলিশের পক্ষ থেকে সকল প্রকার নিরাপত্তা মুলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এছাড়াও দিনটিতে কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশি টহল ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।