চুয়াডাঙ্গা বৃহস্পতিবার , ৭ এপ্রিল ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

অস্থাবর সম্পত্তি বন্ধক রেখেও ব্যাংক থেকে নেওয়া যাবে ঋণ

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
এপ্রিল ৭, ২০২২ ৯:৫১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সমীকরণ প্রতিবেদন:
আমানত, বন্ড, কৃষিপণ্য, মেধাস্বত্বসহ বিভিন্ন অস্থাবর সম্পত্তি বন্ধক রেখেও ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়ার বিধান রেখে ‘সুরক্ষিত লেনদেন (অস্থাবর সম্পত্তি) আইন ২০২২’-এর খসড়া নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। বুধবার জাতীয় সংসদ ভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম প্রেস ব্রিফিংয়ে এ কথা জানান। তিনি বলেন, ‘এটা একটা নতুন আইন। আমরা ব্যাংক থেকে যেসব লোন দিই, সেটার বিপরীতে একটা ইকুইটি দিতে হয়, স্থাবর সম্পত্তি কিংবা ক্যাপিটাল ইকুয়েপমেন্ট আনলে সেগুলো। এখানে অস্থাবর সম্পত্তিকে ইকুইটি হিসেবে দেওয়ার জন্য একটা প্রস্তাব নিয়ে আসা হয়েছে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ থেকে।’ মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘এখন থেকে অস্থাবর সম্পত্তির বিপরীতেও কেউ ঋণ নিতে পারবে। কারও যদি স্থায়ী আমানত থাকে সেটার বিপরীতেও, সেটাকে সিকিউরিটি রেখে অনুপাত অনুযায়ী ঋণ নিতে কারও যদি বন্ড থাকে সেটা দিয়েও সে ঋণ নিতে পারবে। দামি গাড়ি, স্বর্ণ, মেধাস্বত্ব বন্ধক রেখেও ঋণ নেওয়া যাবে।’ এছাড়া খনিজসম্পদ, কৃষিজাতপণ্য, প্রক্রিয়াজাত মাছ ও জলজ প্রাণী, গবাদিপশু, রপ্তানি আদেশ অনুযায়ী পণ্য প্রস্তুতের কাঁচামাল, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের আমানত, নিবন্ধিত কোম্পানির শেয়ার সার্টিফিকেট, কোনো সেবার প্রতিশ্র¤œতির বিপরীতে সেবাগ্রহীতার মূল্য পরিশোধের স্বীকৃতি বন্ধক রেখে ব্যাংক ঋণ নেওয়া যাবে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব। পদ্মা সেতু পেছাচ্ছে ইউক্রেন যুদ্ধে: এদিকে, দেশের দক্ষিণ জনপদের মানুষের স্বপ্নের পদ্মা সেতু খুলে দেওয়ার সময়সূচি কেন পিছিয়ে যাচ্ছে, তার একটি ব্যাখ্যা দিলেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। তিনি বলেছেন, সেতুর নির্মাণ কাজের জন্য কিছু সরঞ্জাম আসে ইউরোপ থেকে, ইউক্রেনে হঠাৎ করে যুদ্ধ বেঁধে যাওয়ায় সেসব সরঞ্জাম আনায় বিঘœ ঘটছে। চলতি বছরের জুন মাসেই পদ্মা সেতু যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া যাবে বলে এতদিন আশা প্রকাশ করে আসছিলেন সরকারের মন্ত্রী ও সচিবরা। তবে বুধবার সংসদ অধিবেশনের প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘২০২২ সালের শেষ নাগাদ পদ্মা সেতু চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়ার জন্য কাজ দ্র¤œতগতিতে এগিয়ে চলছে।’ পদ্মা সেতু কবে খোলা হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা বলেছি ৩০ জুনের মধ্যে পদ্মা সেতু আমরা ওপেন করে দেব।’ এ সময় সংসদে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া বক্তব্যের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘আসলে তো পদ্মা সেতু শেষ হওয়ার নির্ধারিত সময় ২০২২-এর ডিসেম্বর। আমরা চেষ্টা করছি যে যদি সম্ভব হয়, দেখা যাক, আমি উনার (প্রধানমন্ত্রী) সাথেও কথা বলব, উনি কি বলেন।’ প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের পেছনে সম্ভাব্য কারণ ব্যাখ্যা করে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘উনি (প্রধানমন্ত্রী) যে কথাটি বলেছেন, তার একটি লজিক হল, রিসেন্টলি কিছু মালামাল আসতে সমস্যা হচ্ছে ইউক্রেন যুদ্ধের জন্য। এই মালামালগুলি মার্চ মাসে আসার কথা ছিল, কিন্তু এখন কিছুটা আনসার্টেইনিটি চলে এসেছে। এ জন্য আমার মনে হয়, আমাদের একটি সেইফটি মেজার… আমাদের টাইম আছে ২০২২-এর ডিসেম্বর পর্যন্ত। ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে এসব মালামাল আসবে। কিছু কিছু মালামাল আছে, যেগুলো একটা বা দুটো দেশই পৃথিবীতে বানায়। এখন এমনিতেও কোভিডের জন্য আসতে দেরি হচ্ছিল এখন যুদ্ধের কারণে দেরি হচ্ছে।’ দ্বৈত কর পরিহার চুক্তির খসড়া অনুমোদন : এদিকে, বাংলাদেশের সঙ্গে ইরান এবং মালদ্বীপের মধ্যে দ্বৈত করারোপ পরিহার ও রাজস্ব ফাঁকি রোধ সংক্রান্ত চুক্তির খসড়ার অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। বুধবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানান, বাংলাদেশ ও ইরানের মধ্যে সইয়ের লক্ষ্যে দ্বৈত করারোপ পরিহার ও রাজস্ব ফাঁকি রোধ সংক্রান্ত চুক্তির খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের মধ্যে সইয়ের লক্ষ্যে দ্বৈত করারোপ পরিহার ও রাজস্ব ফাঁকি রোধ সংক্রান্ত চুক্তির খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ইতোপূর্বে অন্যান্য দেশগুলোর সঙ্গে যে দ্বৈত করারোপ পরিহার ও রাজস্ব ফাঁকি রোধ সংক্রান্ত চুক্তি হয়েছে এ দুটি তেমনই। সন্তানের লেখাপড়ার খরচ দেবে ট্রাস্ট: এদিকে, চাকরিরত অবস্থায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কোনো শিক্ষকের মৃত্যু হলে তার অপ্রাপ্তবয়স্ক সন্তানের লেখাপড়ার খরচ চালাবে ট্রাস্ট- এমন বিধান রেখে ‘সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক কল্যাণ ট্রাস্ট আইন, ২০২২’-এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। বুধবার মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, ‘সরকার একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন করা হবে। এটি একটি সংবিধিবদ্ধ সংস্থা হবে। সরাসরি সরকারি না, অটোনোমাস টাইপের হবে। আইন দিয়ে এটি হবে। এ আইনের খসড়া বুধবার চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হলো।’ ঢাকায় ট্রাস্টের প্রধান কার্যালয় থাকবে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘সরকারের পূর্ব অনুমোদন নিয়ে বাংলাদেশের যেকোনো স্থানে শাখা বা কার্যালয় স্থাপন করা যাবে। পরিচালনায় একটি ট্রাস্টি বোর্ড থাকবে। মূল বিষয় হলো চাকরিরত অবস্থায় একজন শিক্ষকের মৃত্যু হলে তার অপ্রাপ্তবয়স্ক কোনো সন্তান থাকলে, প্রতিবন্ধী বা বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশু থাকলে কিংবা তৃতীয় লিঙ্গের কোনো শিশু থাকলে তাদের লেখাপড়ার খরচ ট্রাস্টের পক্ষ থেকে দেওয়া হবে।’ এছাড়া ‘বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন (সংশোধন) আইন, ২০২২’-এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘এটি খুব ছোট একটি আইন। কমিশনের কয়েকজনের ডেজিগনেশন সেক্রেটারি আছে, সেটা পরিবর্তন করে এক্সিকিউটিভ অফিসার করা হয়েছে।’

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।