১ মার্চ থেকে মাদকের অপব্যবহার বিরোধী তথ্য অভিযান

239

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ মাদক এবং মাদকাসক্তি এক জাতীয় সমস্যায় পরিণত হয়েছে। বর্তমানে আমাদের দেশে প্রায় ৭০ লক্ষ মাদকাসক্ত রয়েছে এবং এটি দ্রুতহারে কিশোর-কিশোরী, পথ শিশু এবং স্কুল-কলেজগামী ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে বিস্তার ঘটছে। গত এক দশক ধরেই দেখা যাচ্ছে দেশের অধিকাংশ মাদকসেবীই কিশোর-কিশোরী। একটি গবেষণায় দেখা গেছে, পূর্বে ২০ থেকে ৩০ বছর বয়সীদের মধ্যে মাদকাসক্তের হার বেশি ছিল, বর্তমানে বয়সের ধাপ আরো নিচে নেমে এসেছে। কিশোর জনগোষ্ঠীই এখন সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে আছে। যে যুব সমাজের ওপর দেশের শিক্ষা-দীক্ষা, উন্নতি, অগ্রগতি ও ভবিষ্যৎ নির্ভরশীল তাদের উল্লেখযোগ্য একটি অংশ যদি মাদকাসক্তিতে পথভ্রষ্ট হয়ে পড়ে তবে সে দেশের ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত হওয়ার যথেষ্ট কারণ রয়েছে।
বর্তমান সরকার মাদকের ভয়াবহতা রোধকল্পে সংকল্পবদ্ধ। আগামী প্রজন্মকে মাদকের ভয়াবহতা থেকে রক্ষার জন্য তথ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক আগামী ১ মার্চ ২০১৮ থেকে ‘মাদকের অপব্যবহার বিরোধী তথ্য অভিযান’ শুরু হবে। এ অভিযানের গৃহীত কর্মসূচি সমূহ হলো- (ক) ১ মার্চ ২০১৮ খ্রি: সকাল ১১ ঘটিকায় সকল জেলা তথ্য অফিসের স্থানীয় সংবাদিকগণের সাথে মাদকের অপব্যবহার বিরোধী তথ্য অভিযান সম্পর্কে প্রেস ব্রিফিং; (খ) ১ মার্চ ২০১৮ রাত ৮ টা ৫০ মিনিটে সকল টিভি চ্যানেল ও রেডিওতে একযোগে ‘জীবনকে ভালবাসুন, মাদক থেকে দূরে থাকুন’ শিরোনামে একটি অনুষ্ঠান প্রচার করবে এবং এ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে মাদকের অপব্যবহার বিরোধী তথ্য অভিযান আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে; (গ) মাদকবিরোধী প্রচার কার্যক্রমে তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সম্প্রচার) এবং মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের পরিচালক (অপারেশন ও গোয়েন্দা) ফোকাল পয়েন্ট হিসেবে কা করবেন; (ঘ) গণযোগাযোগ অধিদপ্তর কর্তৃক ৬৪টি জেলায় মাদকবিরোধী প্রচার কার্যক্রমের প্রতিবেদন পরবর্তী মাসের ০১ তারিখের মধ্যে অতিরিক্ত সচিব (সম্প্রচার), তথ্য মন্ত্রণালয় বরাবর প্রেরণ করবেন এবং অতিরিক্ত সচিব (সম্প্রচার), তথ্য মন্ত্রণালয় প্রতিবেদটি সুরক্ষা ও সেবা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব বরাবর প্রতি মাসের ৬ তারিখের মধ্যে প্রেরণ করবেন; ও (ঙ) মাদকবিরোধী কর্মকান্ড ও অগ্রগতি নিয়ে তথ্য অধিদপ্তর (পিআইডি) প্রতিমাসে প্রেস রিলিজ দিবেন এবং তা সকল গণমাধ্যমে প্রচারের ব্যবস্থা নিবেন। এছাড়া তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী তার সুবিধামত সময়ে কেন্দ্রীয় কারাগারে আটক মহিলা কয়েদি ও আসামীদের সাথে সাক্ষাৎ করে তাদেরকে মাদকবিরোধী কর্মকান্ডে উদ্বুদ্ধ করবেন।