হেঁচকির সমস্যা দূর হবে কীভাবে?

25

স্বাস্থ্য প্রতিবেদন
একদম হুট করেই দেখা দেয় হেঁচকি বা হিক্কা ওঠার সমস্যাটি। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অল্প কিছুক্ষণের মাঝে সমস্যাটি ভালো হয়ে গেলেও, প্রায়শ বেশ লম্বা সময়ের জনু রয়ে যায় হেঁচকি ওঠার সমস্যা। প্রাথমিকভাবে সমস্যাটি বিরক্তিকর হলেও, হেঁচকি ওঠার সমস্যাটি লম্বা সময়ের জন্য থাকলে তা বেশ কষ্টকর হয়ে ওঠে। সাধারণত ৩০ সেকেন্ড থেকে এক মিনিট পর্যন্ত স্থায়ী হয় হেঁচকি ওঠার সমস্যাটি। তবে গুরুতর অবস্থায় ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্তও স্থায়ী হতে পারে সমস্যাটি। কীভাবে হেঁচকি ওঠার সমস্যা দূর করা সম্ভব হবে সেটা জানার আগে জানুন কী কারণে হেঁচকি ওঠার সমস্যাটি দেখা দেয়। হেঁচকি কেন ওঠে? ১. দ্রুত খাবার খেলে। ২. অত্যাধিক মানসিক চাপ, উদ্বিগ্নতা এবং মাত্রাতিরিক্ত আনন্দের অনুভূতির প্রাবল্যের কারণে। ৩. অতিরিক্ত গরম বা ঠান্ডা খাবার খেলে শরীরের আভ্যন্তরীণ তাপমাত্রা করে ওঠানামা করে, যার দরুন হেঁচকি দেখা দেয়। ৫. অতিরিক্ত ঝাল ও মশলাযুক্ত খাবার খেলে। ৬. অ্যাসিডিটির সমস্যা দেখা দিলে। কোন কারণে হেঁচকির সমস্যাটি দেখা দিতে পারে সেটা জানার পর এবারে জানুন, এই সমস্যাটি দেখা দিলে কী খেলে এবং কোন পদ্ধতি অনুসরণ করলে হেঁচকি দ্রুত দূর করা সম্ভব হবে। আদা : হেঁচকি বন্ধ করতে আদা খুবই উপকারে আসবে। ছোট এক টুকরা আদা মুখের ভেতরে দিয়ে দশ মিনিট চুষতে হবে। আদার ঝাঁঝালো রস হেঁচকি বন্ধ করবে। চিনি বা মিছরি: হেঁচকি উঠলে এক চা চামচ চিনি কিংবা ছোট এক টুকরা তালমিছরি মুখে দিয়ে ধীরে ধীরে চুষতে হবে। এই উপায় হেঁচকির সমস্যা দ্রুত কমে আসতে সাহায্য করে। এলাচ: কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে হেঁচকি দূর করতে চাইলে এলাচ খেতে হবে। দুইটি এলাচ চিবিয়ে কিংবা এলাচ গুঁড়া করে পানিতে মিশিয়ে পান করতে হবে। মধু ও ক্যাস্টর অয়েল: উপকারী দুইটি উপাদানের মিশ্রণ হেঁচকি দূর করতে খুবই কার্যকর। সাধারণত নির্দিষ্ট একটা সময় পর নিজ থেকেই হেঁচকি ওঠা বন্ধ হয়ে যায়। যদি এমনটা না হয় তবেএক চা চামচ মধু এবং এক চা চামচ ক্যাস্টর অয়েল মিশিয়ে মিশ্রণটি চামচের সাহায্যে অল্প পরিমাণে খেতে হবে। দুই-তিনবার মিশ্রণটি খাওয়া হলেই হেঁচকি দূর হয়ে যাবে। ঠান্ডা পানি পান: হেঁচকি দূর করতে পানি পান সবচেয়ে সহজ ও পুরনো পদ্ধতি। কিন্তু গরম বা স্বাভাবিক তাপমাত্রার পানি নয়, এক্ষেত্রে পান করতে হবে ঠান্ডা পানি। পানিতে বরফ নিয়ে ধীরে ধীরে চুমুক দিয়ে পানি পান, হেঁচকি দূর করতে সাহায্য করবে। লম্বা শ্বাস নিন: হেঁচকি ওঠার শুরুতেই পিঠ সোজা করে বসে একটা লম্বা শ্বাস নিয়ে নাক বন্ধ করে ৩০ সেকেন্ড আটকে রাখুন। আবার নাম ছেড়ে দিয়ে লম্বা শ্বাস নিয়ে নাক আটকে রাখুন। এই নিয়ম ৩-৪ বার পুনরাবৃত্তি করলে কিছুক্ষণের মধ্যেই হেঁচকি ওঠা বন্ধ হয়ে যাবে। হাঁটু বুকের কাছে আনুন: লম্বা শ্বাস নিয়ে হাঁটু ভাঁজ করে বুকের কাছে এনে দুই হাতের সাহায্যে শক্ত করে ধরে রাখুন কিছুক্ষণের জন্য। এভাবে কয়েক মিনিট বসে থাকলে সমস্যা মিটে যাবে।